দর্শনা আন্তর্জাতিক রেলবন্দরের তিন নিরাপত্তাকর্মীকে কুপিয়ে জখম, গ্রেফতার ৫

449
gb

শামসুজ্জোহা পলাশ, চুয়াডাঙ্গা:
চুয়াডাঙ্গার দর্শনা আন্তর্জাতিক রেলবন্দরে এক আনসার সদস্যসহ ইয়ার্ডের তিন নিরাপত্তাকর্মিকে উপর্যপুরী কুপিয়ে জখম করেছে দূর্বত্তরা। শনিবার রাতে ইয়ার্ডে টহল দেওয়ার সময় নিরাপত্তাকর্মিদের উপর এই হামলার ঘটনা ঘটে। আহতদের মধ্যে দুই জনকে চুয়াডাঙ্গা থেকে ঢাকাতে রেফার্ড করা হয়েছে।

গুরুতর আহত নিরাপত্তারক্ষীরা হলেন, চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার তিতুদাহ গ্রামের রহেত আলীর ছেলে হাফিজুর রহমান (৩৮), নড়াইল জেলার কালিয়ার ইউসুফ আলির ছেলে আব্দুর রাজ্জাক (৫০) ও ঝিনাইদাহ জেলার শৈলকূপা উপজেলার সুকন্দ্র বিশ্বাসের ছেলে সঞ্জিত কুমার বিশ্বাস (৩৫)।

এই হামলায় জড়িত সন্দেহে পুলিশ জসিম, রাশেদুল, সুজন, হারুন ও গাফ্ফার নামে ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে।

দর্শনা রেল ইয়ার্ড সূত্র জানায়, প্রতিদিনের মত শনিবার রাতে দর্শনা রেল ইয়ার্ডে টহল দিচ্ছিলো ৫ জন নিরাপত্তারক্ষী। এ সময় ৭/৮ জনের সশস্ত্র একটি দূর্বত্তর দল ধারালো অস্ত্র নিয়ে আকস্মিক তাদের উপর হামলা করে। এ সময় দূর্বত্তরা উপর্যপুরী কুপিয়ে নিরাপত্তাকর্মি হাফিজুর রহমান, আব্দুর রাজ্জাক ও সঞ্জিত কুমার বিশ্বাসকে জখম করে পালিয়ে যায়। আহতদের চিৎকারে স্থানীয়রা ছুঁটে এসে তাদেরকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক ডাঃ মশিউর রহমান জানান, ধারালো অস্ত্রের কোপে তিনজনের শরীরের বিভিন্ন স্থানে মারাক্তক জখম হয়েছে। এদের মধ্যে হাফিজুর ও রাজ্জাকের অবস্থা আশাঙ্কাজনক হওয়ায় তাদেরকে ঢাকাতে রেফার্ড করা হয়েছে।

নিরাপত্তা ইনচার্জ বিভাগের চীফ ইন্সপেক্টর শাহ আলম জানান, হামলাকারীরা চিহ্নিত। এরা দীর্ঘদিন ধরে ভারত থেকে আসা মালবাহী ট্রেনের ওয়াগন ভেঙ্গে লুটপাটের সাথে জড়িত। বিভিন্ন সময় তাদের লুটপাটে বাঁধা দেওয়ার কারণে এই হামলা বলেও তিনি জানান।

এদিকে এই হামলার পর দর্শনা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ সদস্যরা অভিযান চালিয়ে হামলাকারীদের মধ্যে জসিম, রাশেদুল, সুজন, হারুন ও গাফ্ফারকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।