নির্বাচনকালীন সরকার নির্বাচন কমিশন যে সব সহযোগিতা চাইবে, সেই সব সহযোগিতা দেবে কোন পলিসি ডিসেশন নেবে না -আইন মন্ত্রী আনিসুল হক এমপি

516
gb

 

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি||
আইন মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম এমপি বলেছেন, বিএনপি যে সহায়ক সরকারের কথা বলছে, সেটা উনারা বলুক সহায়ক সরকারকি? উনারা কিছুদিন পরে বলবেন, উনারা যেহেতু বলেন নাইসেটা আমি বলতে পারবো না। সাতক্ষীরা সার্কিট হাউজেবৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের প্রশ্নের আইনমন্ত্রী আনিসুল হকএসব কথা বলেন। আইনমন্ত্রী বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সংবাদ সম্মেলন করে নির্বাচনকালীন সরকারের রূপরেখা তুলে ধরেছেন।তিনি বলেছেন, নির্বাচন পরিচালনা করবে নির্বাচন কমিশন।তখনকার যে সরকার থাকবে বাংলাদেশ সংবিধানের ১২৬নংঅনুচ্ছেদে নির্বাচন কমিশনকে নির্বাহী বিভাগ সকলবিভাগকে সহযোগিতা করবে মাত্র।মন্ত্রী বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, নির্বাচনকালীন সময় মন্ত্রিপরিষদের আকার কমিয়ে দেবেন। কোনো পলিসি ডিসিশাননেওয়া হবে না। শুধুমাত্র দৈনন্দিন কাজ করা হবে। এটাই হচ্ছে নির্বাচনকালীন সরকার। তিনি বলেন, বিএনপি বলেছে সংবিধানে নির্বাচনকালীন সরকার বলে কিছু নেই। নির্বাচনকমিশন যে সব সহযোগিতা নির্বাহী বিভাগ থেকে চানশুধুমাত্র সেই সব সহযোগিতা করা হবে। সকল গণতান্ত্রিক দেশে ওযেসব দেশে লিখিত সংবিধান নাই সেসব দেশে এইভাবে নির্বাচন পরিচালনা করে আসছে।সংলাপ বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, আমার দলের মুখপাত্র যারা আছেন তার
সংলাপ বিষয়ে সরকার ও দলের অবস্থান ব্যাখা করেছেন।এরপর সাতক্ষীরা চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের নতুন ভবনের ফলক উন্মোচন ও দোয়া অনুষ্ঠানের পর বিচার বিভাগ ওগনপুর্ত বিভাগের আয়োজনে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি
হিসেবে বক্তব্য রাখেন। অনুষ্টানে সাতক্ষীরা জেলা ও দায়রা জজমো.সাদিকুল ইসলাম তালুকদারের সভাপিতিত্বে বিশেষ অতিথিহিসবে বক্তব্য রাখেন-সাতক্ষীরা- ৩ আসনরে এ সময় উপস্থিত ছিলেন সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী আ ফ ম রুহুল হকএমপি, সংসদ সদস্য মীর মোস্তাক আহমেদরবি,এমপি,অ্যাডভোকেট মুস্তফা লুৎফুল্লাহ এমপি,এস এম জগলুলহায়দার এমপি,আইন ও বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিবআবু সালেহ শেখ মো. জহিরুল হক, জেলা প্রশাসক আবুল কাসেমমো.মহিউদ্দিন ও পুলিশ সুপার সাজ্জাদুর রহমান,অ্যাডভোকেট শাহ
আলম প্রমূখ।পরে আইন মন্ত্রী নবনির্মিত সাতক্ষীরা চীফ জুডিসিয়ালম্যাজিট্রেট আদালত ভবন ও জেলা জজ আদালত ভবনের উর্দ্ধমূখী
সম্প্রসারিত অংশ এর উদ্ভোধন করেন।