যাতায়াতের পথ সংকোচন, দুর্ভোগে ৪০০ শিক্ষার্থী

243
gb

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধা||

বেড়া দিয়ে রাস্তা সংকোচন করায় স্কুলে যাওয়া আসার সময় চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছে গাইবান্ধা সদর
উপজেলার রহমতপুর আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রায় চারশোশিক্ষার্থী।বিদ্যালয়ে যাওয়া আসার রাস্তায় লোহার পেরেক দিয়ে বেড়া দেওয়ায়প্রতিদিনই ঘটছে ছোটখাটো দুর্ঘটনা। ছিঁড়ে যাচ্ছেশিক্ষার্থীদের জামা কাপড় ও স্কুলব্যাগ। সমস্যা উত্তরণে প্রশাসনের উচ্চপর্যায়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে একাধিকবার সমঝোতা হলেও মিলছে নাকোনো প্রতিকার।দেড় বছর আগেও রাস্তাটি অনেক প্রশস্ত ছিল। মোস্তাফিজার নামেএক ব্যক্তি নিজের জমি দাবি করে শিক্ষার্থীদের চলাচলের রাস্তায় বেড়াদেওয়ায় রাস্তাটি সরু হয়ে গেছে। ফলে শিক্ষার্থীদের যাওয়া আসার সময়বেড়ায় থাকা পেরেকে আটকে জামা-কাপড় ও ব্যাগ ছিঁড়ে যাচ্ছে।ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে জানা যায়, মোস্তাফিজার রহমানের বাবারকাছ থেকে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠার সময় রাস্তাটি কেনা হয়েছিল।কিছুদিন পরেই মোস্তাফিজার রহমানের বাবা মারা যান। ফলে জমিরেজিস্ট্রি সম্ভব হয়নি।২০১৬ সালের শেষের দিকে মোস্তাফিজার তা অস্বীকার করে বিদ্যালয়েপ্রবেশের রাস্তায় বেড়া দেন, ফলে রাস্তাটি সংকোচিত হয়ে যায়। এনিয়ে তৎকালীন সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ এলাকার গণ্যমান্যব্যক্তিবর্গদের নিয়ে বিষয়টি সমঝোতা হয়। সেসময় মোস্তাফিজাররহমান রাস্তা থেকে বেড়া সরিয়ে নেবেন মর্মে কাগজে স্বাক্ষরও করেন।কিন্তু কয়েকমাস পরেই পেশি শক্তির বলে আবারও বেড়া দিয়ে বিদ্যালয়ে প্রবেশে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেন এবং শিক্ষকদের হুমকিও দেন।