রাজনীতি যখন বাজিন্য দেশ তথন দুর্বিত্তের রাজ্য : মনি

329
gb

ডেমোক্রেটিক লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুদ্দিন আহমেদ মনি এক বিবৃতিতে গতকাল শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্দন অনুষ্ঠানে মহামান্য রাষ্ট্রপতি এডভোকেট আবদুল হামিদ প্রদত্ত ভাষনে ”রাজনীতি প্রসঙ্গে বক্তব্যকে” অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, রাজনীতি এখন বাণিজ্য। জাতীয় সংসদ এমপি-মন্ত্রীদের কোটিপতি হওয়ার বাণিজ্য কেন্দ্র হতে পারে না। সেই লক্ষে রাজনীতিতে তথা সংসদ সদস্য হওয়ার জন্য কিছু নিতিমালা প্রনয়ন করা প্রয়োজন।

বিবৃতিতে তিনি বলেন, চাকরি থেকে অবসর জীবনে জনগনের অর্থে সরকারী পেনশন ভোগকারী অবসরপ্রাপ্ত আমলাদের সংসদ সদস্য হওয়ার বিধান রহিত করা প্রয়োজন। জনগন তাদের দল নিরপেক্ষভাবে দেশের প্রশাসন চালানোর জন্য চাকরিজীবনে বেতনভাতা প্রদান করেছে এবং অবসর জীবনে সাচ্ছন্দে থাকার জন্য পেনশনের ব্যবস্থা করেছে। তাদের রাজনীতি নিষিদ্ধ না করলে তারা চাকরি জীবনের শেষ সময় ক্ষমতাসীন দলের আজ্ঞাবহ হয়ে পরবর্তীকালে ক্ষমতাসীন দলের মনোনয়নের জন্য কাজ করে থাকে। ফলে প্রশাসনের নিরপেক্ষতা ক্ষুন্ন হয়। ঠিক একইভাবে সরকারী টাকা তথা জনগনের অর্থ ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে বিশাল বাণিজ্য করেন যে সকল ব্যবসায়ীরা তাদেরও সংসদ সদস্য হওয়ার অযোগ্য ঘোষনা করা উচিত। তারা ঋণ নিয়েছেন দেশে ব্যবসা করবেন, কর্মঘন্টার সময় তারা ব্যবসা করে জনগনের টাকা ফেরত দিবেন এবং নিজের পরিবার পরিজন নিয়ে সুখে-শান্তিতে দিন কাটাবেন। জনগনের টাকা নিয়ে তারা যদি রাজনীতি করেন এবং সরকারের কোপানলে পরে ব্যবসায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয় তাহলে জনগনের টাকা শোধ করবে কে ?

তিনি বলেন, রাজনীতি যখন বাজিন্য দেশ তথন দুর্বিত্তের রাজ্য। রাজনীতি-সংসদ শুধু রাজনীতিবিদদের হাতে ছেড়ে দিলেই দেশের সমস্যার ৯০% সমাধান হয়।

তিনি রাজনীতি করে কিভাবে দামি গাড়ী-বাড়ী মালিক হলেন দল-মত নির্বিশেষে তার হিসাব নেবার ব্যাবস্থা করার জন্য আইন প্রনয়নের জোর দাবী জানান।