ব্রিটিশ পার্লামেন্টের সামনে খালেদা জিয়ার সুচকিৎিসা ও নিঃশর্ত মুক্তি দাবিতে যুক্তরাজ্য বিএনপির বিক্ষোভ

215
gb

জিবি নিউজ ডেস্ক।।

বিএনপি চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সুচকিৎিসা ও নিঃশর্ত মুক্তি, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ওপর সকল রাজনতৈকি মামলা প্রত্যাহার, কারাগারে বন্দী বিএনপির সকল নেতা-কর্মীর মুক্তির দাবীতে ১লা জুলাই ব্রিটিশ পার্লামেন্টের সামনে বিক্ষোভ করেছে যুক্তরাজ্য বিএনপি।

যুক্তরাজ্য বিএনপির সভাপতি এম এ মালিকের এর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম আহমদের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে যুক্তরাজ্যের বিভিন্ন শহর থেকে বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনগুলোর বিপুল সংখ্যক নেতা-কর্মী এই বিক্ষোভ সমাবেশে বিভিন্ন স্লোগান সম্বলিত প্ল্যাকার্ড, ব্যানার, ফেস্টুন প্রর্দশন করেন বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি দাবী করেন এবং আওয়ামী সরকারের ফ্যাসিবাদী শাসনের বিরুদ্দের নানা স্লোগানে মুখরিত করে পুরো পার্লামেন্ট স্কয়ার।

সভাপতির বক্তবে এম এ মালিক বলেন, “মাদার অফ ডেমোক্রেসী”বিএনপি চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে সুচিকিৎসা থেকে বঞ্চিত করে করে বিনা কারণে সরকার প্রতিহিংসার বশবর্তী হয়ে সর্ম্পূণ অন্যায়ভাবে নির্জন কারাগারে বন্দী করে রেখেছে। তিনি আরও বলেন, সরকারি দলের লোকেরা ব্যাংকের আমানত ও দেশের সম্পদ লুঠ করে বিদেশে সম্পদের পাহাড় গড়ছে যার বড় প্রমাণ সুইজারলান্ডের সুইচ ব্যাংকে সরকারী দলের লোকদের আমানত বৃদ্ধি। দ্রবমূল্যর ঊর্ধ্ব গতিতে দেশের সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস উঠছে।

সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম আহমদ বিএনপির চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার অবনতির জন্য স্বৈরাচারী আওয়ামী বাকশালি সরকার দায়ী । তিনি অনতিবিলম্বে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে বিশেষায়িত হাসপাতালে সুচকিৎিসা ও নি:শর্ত মুক্তি দাবী করেন। তিনি বলেন, আওয়ামীলীগের কর্তৃত্ববাদী শাসনে দেশের সমাজ ব্যবস্থা সম্পূর্ণ ভেঙ্গে পড়েছে। দেশে ন্যায় বিচার নেই বলেই প্রকাশ্য দিবালোকে মানুষ খুন হচ্ছে। বিরোধী দল সহ দেশের সকল শ্রেণীর মানুষ আজ আওয়ামী বাকশালীদের অত্যাচার নির্যাতনে জর্জরিত।

বিক্ষোভ সমাবেশে নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাজ্য বিএনপির সাবেক সহসভাপতি আলহাজ্ব তৈমুছ আলী, গোলাম রাব্বানি সোহেল, সাবেক সহসাধারণ সম্পাদক ফেরদৌস আলম, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক শামিম আহমেদ, সাবেক সিনিয়র সদস্য মিসবাউজ্জামান সোহেল, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি নাসির আহমেদ শাহিন, জাসাসের সভাপতি এমাদুর রহমান এমাদ, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আবুল হোসেন, যুবদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দুল বাসিত বাদশা, যুক্তরাজ্য বিএনপির সাবেকসহ দপ্তর সম্পাদক সেলিম আহমেদ, সাবেক সহ ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক মোঃ সরফরাজ আহমেদ সরফু, সাউথ ইস্ট বিএনপির সভাপতি সালেহ আহমেদ জিলান, সাসেক্স বিএনপির সভাপতি কাউন্সিলার তোফাজ্জল হোসেন, বিএনপিনেতা মো: তৌকির শাহ, লন্ডন মহানগর বিএনপির সহসভাপতি মোঃ আবু তাহের, যুগ্ম সম্পাদক সোহেল শরীফ মোহাম্মদ করিম ,সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ চৌধুরী, প্রচার সম্পাদক মো: মঈনুল ইসলাম, আইন বিষয়ক সস্পাদক মোঃ শাহনেওয়াজ.সহ পশিক্ষন বিষয়ক সম্পাদক. জামাল হোসেন. ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক মোঃ ইমরান হোসেন, আব্দুল হক শাওন, পটল মিয়া, নজরুল ইসলাম, নজরুল ইসলাম দুলু, গোলজার আহমদ, মো: আশরাফুল আলম,মো: হেদায়েতুল ইসলাম, আবদুল্লাহ সিদ্দিকী, আহমেদ শওকত রানা রাজু, মোঃ সোহেল উদ্দিন সিকদার. মোঃ এছাম উদ্দিন.মোঃ শরিফুল ইসলাম.রফিক আহমদ, নাদির আহমদ. মোঃ শাহীনুর ইকবাল.জামাল মিয়া, ইস্ট লন্ডন বিএনপির সহ সাধারণ সম্পাদক একলিমুর রাজা চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ নুরে আলম সোহেল, যুক্তরাজ্য যুবদলের সহ দপ্তর সম্পাদক কাজী তাজ উদ্দিন আহমেদ, লন্ডন মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক শেখ সাদেক আহমেদ, জাসেসের সহসাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আরিফ আহমেদ, সাবেক ছাত্রনেতা মো: ফয়েজ উল্লাহ, মোহাম্মদ নাসের আহমদ, বি. এম. এমতামজীদ, মো: মহিন উদ্দিন, আব্দুস সামাদ রাজ, সালা উদ্দিন, আল আমিন, আব্দুল কাদের জিলানী, তোফাজ্জল হোসেন, শরিফ রানা, আবিদুর রহমান,মোঃ মাফিজুর রহমান , মনোয়ার হোসেন ময়না, নুরে আলম জাহাঙ্গীর, মোঃআব্দুল আলীম, মোঃ মাহমুদুল হাসান, আবু সাদেক অপু,তারেক আলিম, মনসুর হোসেন, ছাজওয়ার হোসেনরাজেদ, ফরহাদ আহমেদ, এম এ আজিম, মারুফ আহমেদ, মোঃ আলিনুর আহমেদ, মোঃ,আরিফুর রহমান খান, জাকারিয়া খান, প্রমুখ।