চুয়াডাঙ্গায় যুবলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ গুলি বর্ষণ দোকান পাট ভাংচুরের অভিযোগ: আহত ২

74

শামসুজ্জোহা পলাশ, চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি ||
চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা উপজেলার দর্শনা পুরাতন বাজারে পাওনা টাকা নিয়ে যুবলীগের দু’গ্রপের সংঘর্ষে যুবলীগ নেতা আব্দুস সালাম ভুট্টু (৪৬) ও যুবলীগ নেতা আব্দুল মান্নান (৪৯) আহত হয়েছে। এসময় গুলি বর্ষণ ও দোকান-পাট ভাংচুরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। আজ মঙ্গলবার দুপুর ১২ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। আহত আব্দুস সালাম ভুট্ট উপজেলার রঘুনাথপুর গ্রামের মৃত খেলাফত আলীর ছেলে ও আব্দুল মান্নান একই উপজেলার দর্শনা মোবারকপাড়ার আলী হোসেনের ছেলে।

প্রতক্ষদর্শীরা জানান, আজ মঙ্গলবার দুপুরে দামুড়হুদা উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি আব্দুস সালাম ভুট্টু দর্শনা পুরাতন বাজারস্থ কফি হাউজে বসে চা খাচ্ছিল। এসময় যুবলীগ নেতা আব্দুল মান্নান তার পাওনা টাকা আব্দুস সালাম ভুট্টর কাছে চাইলে ভুট্ট ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে উভয়ের মধ্যে বাক বিতন্ডা শুরু হয়। একপর্যায়ে আব্দুল মান্নান জোরপূর্বক আব্দুস সালাম ভুট্টুকে মোটরসাইকেলে তুলে নিয়ে নিজ দোকান ঘরের মধ্যে আটকে রেখে মারধর করে। এরপর সামনের দোকানের মালিক দর্শনা পৌর যুবলীগের সভাপতি আশরাফুল আলম বাবু উপর চড়াও হলে আব্দুস সালাম ভুট্টু ও আশরাফুল আলম বাবুর লোকজন আব্দুল মান্নানকে পিটিয়ে আহত করে। এ খবর এলাকায় দ্রæত ছড়িয়ে পড়লে আব্দুল মান্নানের লোকজন একত্রিত হয়ে মিছিল সহকারে আশরাফুল আলম বাবুর দোকান ঘর ভাঙচুর ও ৩ রাউন্ড ফাকা গুলি বর্ষণ করে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পরে দামুড়হুদা মডেল থানার ওসি সুকুমার বিশ্বাস সরেজমিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

দর্শনা পৌর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আসলাম আলী তোতা জানান, স্থানীয় কফি হাউজে আব্দুস সালাম ভুট্টু বসে চা খাচ্ছিল এসময় আব্দুল মান্নান তাকে মোটরসাইকেলে করে জোরপুর্বক তুলে নিয়ে এসে নিজস্ব দোকান ঘরে আটকিয়ে মারপিট করে আহত করে। এরপর মান্নান সহ তার লোকজন এসে পৌর যুবলীগের সভাপতি বাবুর দোকান ভাঙচুর ও ৩ রাউন্ড গুলি বর্ষণ করে।

যুবলীগ নেতা আব্দুল মান্নান জানান, স্থানীয় কফি হাউজে বসে থাকার সময় ভুট্টর কাছে পাওনা টাকা চাইতে যায়। একপর্যায়ে ভুট্ট ক্ষিপ্ত হয়ে আমার উপর চড়াও হয় এরপর আমি তাকে মোটরসাইকেলে উঠিয়ে নিজস্ব দোকান ঘরে বসিয়ে রাখি এবং অপর পাওনাদার পৌর যুবলীগের সভাপতি বাবুর কাছে টাকা চাই। এরপর ভুট্টর লোকজন আমাকে মারপিট করে আহত করে। খবর পেয়ে আমার লোকজন ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে। গুলি বর্ষনের ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি জানান, গুলি বর্ষণ আমার লোকজন পটকা বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে কিন্তু দোকান ঘর ভাঙচুরের ঘটনার সত্য নয়।

দামুড়হুদা থানার ওসি সুকুমার বিশ্বাস পাওনা টাকা চাওয়াকে কেন্দ্র করে দু’গ্রæপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে বলে জানালেও গুলি বর্ষণ ও দোকান ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেনি বলে জানান।

মন্তব্য
Loading...