সাপাহারে পুলিশের নির্যাতন ও সাজানো মামলার বিরুদ্ধে রক্ষা পেতে ও প্রতিপক্ষের জালিয়াতি রেকট বাতিলের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

327
gb

 

হাফিজুল হক, সাপাহার নওগাঁ প্রতিনিধিঃ

সাপাহারে পুলিশেরনির্যাতন ও সাজানো মামলার বিরুদ্ধে রক্ষা পেতে ও প্রতিপক্ষের জালিয়াতিরেকট বাতিলের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।২৫ ফেব্রয়ারী রোববার বিকালে সাপাহার রিপোর্টার্স ফোরামে অনুষ্ঠিতএক সংবাদ সম্মেলনে সাপাহার উপজেলার গোয়ালা কদমডাঙ্গা গ্রামেরমোছাঃ-সাজেদা , হুমায়ন কবির ,আলম হোসেন, আঃ হক, একরামুল ওসাহিনুর খাতুন লিখিত বক্তব্য পাট করে শোনান অসহায় নিরুপায় এইপরিবার গুলোর প্রতি পুলিশের নির্যাতন ও সাজানো মামলার স্বীকার হয়েছেতারা। ৪৫ বছর যাবত তাদের বাপ দাদার আমল হতে সরকারী খাস জমি প্রথা বাবিধান অনুযায়ী মাঠজরিপ কৃত সম্পতি যার মৌজা দক্ষিনকোচকুড়িলিয়া , দাগ নং ৭৩৬/৮৭১,জে এল নং৭০, এর ২২একর শতাংশ জমিসংবাদ সম্মেলনকারীর পক্ষের নিয়াজউদ্দিনের পুত্র জনাব আলী,মতিউল্লা পুত্রনিয়াজউদ্দিন,জিয়ারউদ্দিনের পুত্র আঃসামাদ,খাবুরুদ্দিন এর পুত্র আরসাদআলী,কেফাতুল্লা এর পুত্র আসকর ও ওহাব আলী, কে দখল ও ১৯৬৯-৭০ সালের মাঠজরিপে অংশিদারিত্ব করে দেন সে সময় হতে সংবাদ সম্মেলনকারীর পক্ষের লোকজন উক্ত জমির উপর বাড়ি ঘর নির্মান ফসলাদী করে সংসার জীবন অতিবাহিত
করে আসার এক পযায়ে প্রতিপক্ষের প্রতারক চালাক চতুর ও জালিয়াতপ্রকৃতির ভুয়া ডাক্তার জালাল ১৯৭২ সালে নিজের জমি দাবি করে নিজের
নামে রেকট করেছে এবং মালিকানাধীন বসত বাড়ির মৌজা গোয়ালা , দাগনং ৪২৪/৩৩৭,ও ৪২৯/৩৩৮ জে এল নং৭১, এর ৪৪ শতাংশ জমি জালিয়াতী করেভুয়া ডাক্তার জালাল ,পরবর্তীতে তিনি ও তার লোক জন দখলকৃত ঐ সম্পত্তিতে
উঠার (দখলের) চেষ্ঠা করলে তারা বাঁধা প্রদান করলে দখল নিতে পারে না ।
বর্তমানে সাপাহার থানার ওসি সামশুল আলম শাহ্ধসঢ়; এর নিদ্দেশ মোতাবেকএস আই মাফিজুর তাদের উপর নির্মম অত্যাচার এমন কি পরিবারের সকলকেনানান প্রকার ভয় ভীতি বাড়ির জিনিস পত্র মালামাল ভাংচুর করে , যার ফলে
প্রতিপক্ষ সাহস পেয়ে গত ২৩ ফেব্রয়ারী শুক্রবার ১১ টার সময় জমির উপরগেলে দখলকারী পক্ষের লোকজন বাধাঁ দিলে তাদের লোকজনকে বেদম পারপিট করেএবং উল্টো তারায় সাপাহার থানার ওসিকে ফোন দেয় ফোন পাওয়ার পর এস
আই মাফিজুর গিয়ে মূত আব্দুর সামাদের পুত্র রবিউল আলীর বাড়ির দরজাভেঙ্গেঁ ভিতরে ডুকে বাড়ির বউ সাজেদা এর উপর শারিরীক নির্যাতন করেন।এবং পুলিশ দাঁড়িয়ে থেকে প্রতিপক্ষের মতিনের পুত্র আজিজুল কে দিয়ে
আব্দুর রশিদের স্ত্রী মরিয়ম ও আঃ হক এর স্ত্রী আবেদা কে মারিয়েছে ।পুলিশেরএ ধরনের অত্যাচার সহ্য করতে না পারায় স্থানীয় সাংবাদিক দের জানালেনিজেকে বাঁচানোর লক্ষে এস আই মাফিজুর তাদের কাগজ পত্র ওসি দেখবেবলে মিথ্যা অভিনয়ে থানায় ডাকে যার ফলে তাদের পক্ষের মৃত হযরত আলীর পুত্ররবিউল,মৃত নিয়াজউদ্দিনের পুত্র তৈয়ুব আলী,র্মত সৈয়ব আলীর পুত্র
আঃকাহাব,হাবিবুর রহমানের পুত্র আফাজউদ্দিন,গত কাল শনিবার বেলা ১২ টারসময় থানায় উপস্থিত হলে সারাদিন বিভিন্ন অজুহাতে বসিয়ে রেখে
সন্ধায় সাজানো মিথ্যা মামলা দিয়ে আটকের কথা জানিয়েছে ্ধসঢ়;এবংযোহর ও আছরের নামাজ পযন্ত তাদেও পড়তে দেয়নি থানা পুলিশ,বলে সংবাদ
সম্মেলনে উল্লেখ করেন।এ বিষয়ে সাপাহার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি)সামশুল আলম শাহ্ধসঢ়; এর সাথে মোবাইলে কথা হলে তিনি বিষয়টি কিছুইজানেনা বলে সাংবাদিকদের জানান।মর্মে পুলিশের এধরনের অত্যাচারেরসুবিচার সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে দেশবাসি,সরকারের,ও উর্দ্ধতন
কর্মকর্তার নিকট,এবং জমির অংশিদারিত্ব ফিরে পেতে ও প্রতিপক্ষেরজালিয়াতি রেকট বাতিলের লক্ষে সাপাহার রিপোর্টার্স ফোরামে এসে
সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে জালিয়াতচক্রের বিরুদ্ধে উর্দ্ধতন প্রশাসন মহলেরসুদৃষ্টি ও হস্তক্ষেপ কামনা করছি।