যে গোপন অভিমানে দুঃসময়ে খালেদার পাশে নেই জামায়াত

273
gb

রাজনৈতিক জীবনের বড় দুঃসময়ে পতিত খালেদা জিয়ার পাশে নেই জোটের অন্যতম শরিক দল বাংলাদেশ জামায়েতে ইসলাম। অভিমান করেই বিএনপি চেয়ারপারসন ও ২০ দলীয় জোট নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার পাশে থাকছে না নিবন্ধন হারানো দলটি। জামায়াতের একাধিক নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে, আগামীকাল বৃহস্পতিবার জিয়া আরফানেজ চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায় ঘোষিত হবে। তবে জোট নেত্রীর এমন রায়ের দিনেও মাঠে না থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জামায়াত।

কারণ হিসাবে জামায়াতের একটি সূত্র বলেন, বিএনপি নেত্রীর বিরুদ্ধে যে মামলাটি হয়েছে তা আদালতেই মীমাংসা হোক। এটা জামায়াতের চাওয়া। এ নিয়ে রাজপথে তার পক্ষে এ মহুর্তে দাঁড়ানো সম্ভব নয়। এটা তার ব্যক্তিগত ও বিএনপির ব্যাপার। এখানে জামায়াত নাক গলাতে যাবে না। জোটবদ্ধভাবে আন্দোলনের বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্তও হয়নি।

এদিকে, জামায়াতের আরো একটি সূত্র জানিয়েছে, বিএনপি চেয়ারপারসন আদালতের রায়ে দণ্ডিত হবেন নাকি খাসাল পাবেন সেটা আদালত নির্ধারণ করবে। রাজনৈতিক কৌশল হিসাবে ২০ দলীয় জোটের নেত্রীর পক্ষে জামায়াত মানসিক সমর্থন দিলেও তার জন্য রাজনীতির মাঠে নামতে নারাজ। কেন মাঠে থাকবে না জামায়াত এমন প্রশ্নের জবাবে সূত্র জানিয়েছে, ঢাকা উত্তর সিটি মেয়র উপ-নির্বাচনে জামায়াতের প্রার্থীকে মনোনয়ন দেয়নি ২০ দলীয় জোট। এ নিয়ে বিএনপির ওপর অভিমান রয়েছে জামায়াতের। গোপন এ অভিমানের কথা বিএনপির অনেক নেতা জানলেও তা মিটানোর কোন উদ্যোগ নেয়া হয়নি।

এছাড়া, আগামীকাল ঢাকা ছাড়াও দেশের বিভিন্ন শহররে বিএর্নপি নেতাকর্মীদের অপতৎপরতা ঠেকাতে সরকারের প্রশাসন বিশেষ করে আইন শৃঙ্খলা রক্ষকারী বাহিনী জোর প্রস্তুতি রয়েছে। যেকোনো ধরণের নাশকতা রোধ করতে সরকারর পাশাপাশি আওয়ামী লীগ, ছাত্রলী ও যুব লীগের নেতাকর্মীরা মাঠে থাকবেন বলেও জানা গেছে।