সামাজিক অবক্ষয়ের কারণে সকলে চরম আতঙ্কিত : জেবেল

38
gb

জিবি নিউজ।।

সামাজিক চরম অবক্ষয়ের কারণে শিশুসহ সমগ্র দেশবাসী আজ চরম আতঙ্কিত বলে মন্তব্য করে বাংলাদেশ ন্যাপ চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি বলেন, সামাজিক ও নৈতিক অবক্ষয়ের কারণে শিশু হত্যা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পিটিয়ে ছাত্র হত্যা, ধর্ষণ ও নির্যাতনের ঘটনা আশঙ্কাজনক হারে বেড়েছে।

তিনি বলেন, দেশের বিচারহীনতার সংস্কৃতির ফলে আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের মতো নৃশংস ঘটনা বৃদ্ধি পাচ্ছে। আর এই সকল হত্যাকান্ডের পেছনে রাজনৈতিক শক্তির ইন্ধন থাকায় এসবের বিচার হয় না। হত্যাকান্ডগুলোকে রাজনৈতিক ফয়দা লুটার জন্য ব্যবহারের কারণে ইন্ধনদাতারা থাকেন ধরা-ছোঁয়ার বাইরে।

বুধবার বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ’র নরসিংদী জেলা নেতৃবৃন্দের সাথে টিলিকনফারেন্সের মাধ্যমে মতবিনিময়কালে এসব কথা বলেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, যুগ্ম মহাসচিব মো. আতিকুর রহমান।

তিনি বলেন, শিশু তুহিন হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় সুনামগঞ্জসহ দিরাইয়ের সবাই যেমন শোকে বিহ্বল তেমনি আমরাও নির্বাক, হতবাক এবং বিস্মিত। এ ঘটনায় গোটা জাতির সঙ্গে বাকরুদ্ধ খেলাঘর পরিবারের প্রতিটি সদস্য। কি এমন অপরাধ করেছিল পাঁচ বছরের শিশুটি। যে কারণে তাকে অল্পদিনেই পৃথিবী থেকে বিদায় করে দেয়া হলো। ঘাতকদের পৈশাচিকতা মধ্যযুগিয় বর্বরতাকেও হার মানিয়েছে।

সমাজে শিশুরা আজ নিরাপদ নয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, একের পর এক শিশুরা হত্যা, ধর্ষণ ও নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। পরিবার থেকে শুরু করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেও শিশুরা নিরাপদ পরিবেশ পাচ্ছে না। এতে নতুন প্রজন্মের মানসিক ও শারীরিক বিকাশেও বাধাসৃষ্টি হচ্ছে। সামাজিক চরম অবক্ষয়ের কারণে শিশুসহ অভিভাবকরাও আজ চরম আতঙ্কিত।

ন্যাপ চেয়ারম্যান আরো বলেন, দেশের মধ্যে প্রতিনিয়ত আবরার ফাহাদ হত্যার মতো ঘটনা ঘটেই চলেছে। এসব ঘটনার সত্যিকারের কোনো বিচার আমরা দেখি না। রাজনীতিবিদদের সহযোগিতায়-ছত্রছায়ায় খুনিরা থাকেন। বিচারহীনতার রাজনীতির কারণে অপরাধ কমানো যাচ্ছে না।

তিনি বলেন, সমাজ থেকে এসব অমানবিক ও পৈশাচিক ঘটনায় অবসান ঘটাতে হলে আদর্শভিত্তিক রাষ্ট্র ও সমাজ গঠনে সকলকে একসাথে কাজ করতে হবে। সকলকে মনে রাখতে হবে, এই সকল ঘটনা সকলকেই ক্ষতিগ্রস্থ করে থাকে। আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় দেশবাসীকে সচেতন করতে হবে।

জেলা কার্যালয়ে নরসিংদী জেলা সমন্বয়কারী এহসানুল হকের নেতৃত্বে উপস্থিত ছিলেন জেলা যুগ্ম সমন্বয়কারী অধ্যাপিকা শিউলী সুলতানা, রফিকুল ইসলাম, নির্বাহী সদস্য রাফিয়া খাতুন, শামসুর রহমান মোল্লা, আবদুল হাই, তাইজুদ্দিন ফকির, সাহিদা আক্তার, মাইনউদ্দিন ভূঁইয়া, মোমিনুল হক ফকির প্রমুখ।

gb

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More