অনুমতি না পাওয়ায় রাবিতে আনু মুহাম্মদের আলোচনা সভা স্থগিত

34

অনুমতি না পাওয়ায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) বিশিষ্ট কলামিস্ট ও অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক আনু মোহাম্মদের এক আলোচনা স্থগিত করা হয়েছে।

সোমবার ক্যাম্পাসে রাকসু আন্দোলন মঞ্চ আয়োজিত ‘কেমন বিশ্ববিদ্যালয় চাই’ শীর্ষক আলোচনা সভায় আনু মোহাম্মদসহ ঢাবি, চবি ও রাবির কয়েকজন প্রগতিশীল শিক্ষক থাকার কথা ছিল। কিন্তু প্রশাসনের অনুমতি না মেলায় এ সভা স্থগিত করে সংগঠনটি।

সোমবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের আমতলায় আয়োজিত দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করে এমন অভিযোগ করেন সংগঠনের আহ্বায়ক আবদুল মজিদ অন্তর।

সংবাদ সম্মেলনে আবদুল মজিদ অন্তর লিখিত বক্তব্যে বলেন, টিএসসিসির পরিচালকের মৌখিক অনুমতিক্রমে রাকসু আন্দোলন মঞ্চ ১৮ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ স্মৃতি সংগ্রহশালা মুক্তমঞ্চে ‘কেমন বিশ্ববিদ্যালয় চাই’ শীর্ষক শিক্ষক শিক্ষার্থীদের ভাবনা নিয়ে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে ছিল। অনুষ্ঠানের সব আয়োজন সম্পন্ন হলে প্রশাসন অনুমতি বাতিল করে। এ ব্যাপারে প্রক্টরের সঙ্গে দেখা করতে চাইলে তিনি অস্বীকৃতি জানান ও কর্মসূচি বাতিল করার জন্য চাপ প্রয়োগ করেন এবং রাকসু আন্দোলন মঞ্চের কার্যক্রম বন্ধ করার জন্য হুমকি দিতে থাকেন।’

তিনি লিখিত বক্তব্যে আরও জানান, পরবর্তীতে প্রক্টর দফতরে মুক্তমঞ্চ বাতিল করে বিশ্ববিদ্যালয়ের যে কোনো জায়গায় কর্মসূচি পালনের অনুমতি চেয়ে আবেদন দিতে গেলে দফতরের এক কর্মকর্তা ‘জমা নেয়া নিষেধ আছে’ জানিয়ে আবেদনপত্র জমা নিতে অস্বীকৃতি জানান। পরে ছাত্র উপদেষ্টাকে ফোন করে বিষয়টি অবহিত করলে উপাচার্য স্যারের নিষেধ আছে বলে জানান তিনি। এমন কর্মকাণ্ডের মধ্য দিয়ে প্রশাসনে স্বৈরাচারী মনোভাব ফুটে উঠেছে উল্লেখ করে আবদুল মজিদ অন্তর বলেন, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বনামধন্য শিক্ষকরা উপস্থিত থাকবেন জেনেও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ন্যূনতম সৌজন্যবোধ ও সহযোগিতা না করে স্বৈরাচারী ও অগণতান্ত্রিক পন্থা অবলম্বন করে আমাদের কর্মসূচি স্থগিত করতে বাধ্য করেছে। প্রশাসনের এমন সিদ্ধান্তের তীব্র নিন্দা ও ধিক্কার জানাই।

এ সময় তিনি প্রশাসনকে অতিদ্রুত বিশ্ববিদ্যালয়ে গণতান্ত্রিক কর্মসূচি পালনে সব প্রকার বাধা-নিষেধ প্রত্যাহার করে বিশ্ববিদ্যালয়ে গণতান্ত্রিক পরিবেশ বজায় রাখার আহ্বান জানান। অন্যথায় প্রশাসনের এই অগণতান্ত্রিক নীতির বিরুদ্ধে বৃহত্তর ছাত্র-আন্দোলনের হুমকি দেন।

অনুমতি দিয়ে বাতিলের বিষয়টি অস্বীকার করে টিএসসিসির ভারপ্রাপ্ত পরিচালক হাসিবুল আলম প্রধান বলেন, ‘বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সঙ্গে বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনের রাকসু নিয়ে সংলাপ চলছে। তাই প্রশাসন আপাতত রাকসু সংক্রান্ত অন্য কোনো কর্মসূচিতে অনুমতি দিতে চাইছে না।’

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. লুৎফর রহমান বলেন, আমি গত বৃহস্পতিবার থেকে ক্যাম্পাসে ছিলাম না। ক্যাম্পাসে থাকাকালীন কেউ আমার কাছে অনুমতির জন্য আবেদন করেনি।

তার বিরুদ্ধে করা অভিযোগ মিথ্যা উল্লেখ তিনি বলেন, প্রক্টর দফতরে কেউ অনুমতির জন্য আবেদন করলে তা গ্রহণ করা হয়নি এ ধরনের বক্তব্য মিথ্যা ও বানোয়াট।

সংবাদ সম্মেলনে রাকসু আন্দোলন মঞ্চের সমন্বয় শরিক ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি শাকিলা খাতুন, বিপ্লবী ছাত্রমৈত্রীর সাধারণ সম্পাদক রঞ্জু হাসান, ছাত্র ফেডারেশনের রাজনৈতিক ও শিক্ষা সম্পাদক মহব্বত হোসেন মিলন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য
Loading...