পূর্বপরিকল্পিতভাবেই খাশোগিকে হত্যা : সৌদি প্রসিকিউটর

193
gb

জিবি নিউজ24 ডেস্ক //

ভিন্ন মতাবলম্বী সাংবাদিক জামাল খাশোগিকে পূর্বপরিকল্পিতভাবেই ইস্তাম্বুলে কন্স্যুলেটের ভেতর হত্যা করা হয়েছে বলে অবশেষে স্বীকার করেছে সৌদি আরব। বৃহস্পতিবার সৌদি প্রসিকিউটর বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

এরইমধ্যে নিহত জামাল খাশোগির ছেলে সালাহ বিন জামাল খাশোগি সৌদি আরব থেকে যুক্তরাষ্ট্রে পৌঁছেছেন।

এদিকে, খাশোগি হত্যার জেরে সৌদি আরবের ওপর অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা আরোপের পক্ষে বৃহস্পতিবার ইইউ’র পার্লামেন্টে ভোটাভুটি অনুষ্ঠিত হয়েছে।

কয়েক মাস আগে যুক্তরাষ্ট্র ও সৌদি আরবের দ্বৈত নাগরিক সালাহ বিন জামাল খাশোগির দেশ ত্যাগে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে সৌদি কর্তৃপক্ষ। জামাল খাশোগির হত্যাকাণ্ডের পর পরিবারের সদস্যদের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো।

অবশেষে বৃহস্পতিবার খাশোগির ছেলে সালাহ বিন জামাল খাশগি সৌদি আরব ছেড়েছেন বলে জানিয়েছে গণমাধ্যম।

শুরু থেকে সাংবাদিক জামাল খাশোগিকে হত্যার দায় অস্বীকার করে আসলেও আন্তর্জাতিক মহলের চাপে তা স্বীকার করতে বাধ্য হয় সৌদি কর্তৃপক্ষ। এবার রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমে প্রচারিত সংবাদে সৌদি প্রসিকিউটর বলেন, জামাল খাশোগিকে পূর্বপরিকল্পিতভাবেই ইস্তাম্বুলে কন্স্যুলেটের ভেতর হত্যা করা হয়েছে। তুরস্ক ও সৌদি আরবের যৌথ তদন্ত শেষে তুরস্কের দেয়া প্রমাণাদির ভিত্তিতে এটি নিশ্চিত হয়েছে বলে জানান সৌদি আরবের অ্যাটর্নি জেনারেল সাউদ আল মোজেব।

তবে রিয়াদের শুধুমাত্র দায় স্বীকারোক্তিতে সন্তুষ্ট নয় তুরস্ক। সৌদি যুবরাজ সালমান বিন মোহাম্মদের সমালোচকখ্যাত খাশোগির মৃতদেহের অবস্থানসহ নিজেদের দেশে সৌদি সাংবাদিক হত্যা সংক্রান্ত আরো বেশ কিছু প্রশ্নের উত্তর চায় তারা। বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রীখাশোগি হত্যা সংক্রান্ত সব প্রশ্নের জবাব চান সৌদি কর্তৃপক্ষের কাছে ।

মেভলুত কাভুসগলু বলেন, এখনো অনেক প্রশ্ন রয়ে গেছে যা সৌদি আরবকে জবাব দিতে হবে। হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত ১৮ জন কোথায়? তাদের কী গ্রেফতার করা হয়েছে? তাদেরকে হত্যার নির্দেশ দিয়েছে কে? খাশোগির মৃতদেহ এখনো পাওয়া যায়নি, সেটি কোথায়? খাশোগির পরিবারের সদস্যরাও তা জানতে চায়। খাশোগির মরদেহ দাফন করার অধিকার তাদের রয়েছে।’

একইদিন ইতাম্বুলের সৌদি কনস্যুলেটের সামনে খাশোগি হত্যায় মূল সন্দেহের তীর যার দিকে সেই সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালামানের হাতে রক্ত মাখা ছবি নিয়ে শোকসভা করে সাংবাদিক খাশোগির বন্ধু, শুভাকাঙ্খী ও ও অধিকারকর্মীরা। এ সময় হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের গ্রেফাতার করে দ্রুত বিচারের আওতায় আনার দাবি জানান তারা।

খাশোগি হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে গোয়েন্দা তৎপরতা দেখতে গত সোমবার তুরস্ক সফরে যান মার্কিন কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ’র প্রধান জিনা হ্যাসপেল। হোয়াইট হাউজ মুখপাত্রের বরাতে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, তুরস্ক সফর নিয়ে শিগগিরই মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে অবহিত করবেন তিনি। এর আগে, তুর্কি গণমাধ্যমে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে খাশোগিকে হত্যার সময়কার অডিও ক্লিপ শোনার দাবি করেন সিআইএ প্রধান। তবে কীভাবে এবং কোথায় শুনেছেন এ বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানাননি তিনি।

এদিকে, সাংবাদিক জামাল খাশোগিকে হত্যার জেরে সৌদি আরবের ওপর অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা আরোপের পক্ষে ইউরোপীয় ইউনিয়নের পার্লামেন্টে ভোটাভুটি অনুষ্ঠিত হয়েছে। সৌদি আরবের কাছে অস্ত্র বিক্রি না করতে ইইউ দেশগুলোর সমর্থন আদায় ও নিষেধাজ্ঞা আরোপে বৃহস্পতিবার ভোটাভুটিতে অংশ নেন পার্লামেন্টের সদস্যরা। ৩২৫-১ ভোটে প্রস্তাবটি গৃহীত হয়।

জামাল খাশোগির হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে নিরপেক্ষ তদন্ত ও জড়িতদের বিচারের দাবি জানিয়েছে রাশিয়া ও চীনও। বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলনে দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা এ দাবি জানান।