ঘরোয়া টুর্নামেন্টেই কেবল জ্বলে ওঠেন নাসির?

280
gb

বাংলাদেশের ক্রিকেটের তুমুল আলোচিত নাম নাসির হোসেন। নানা কারণে কিংবা অকারণে জাতীয় দলের বাইরেই বেশিরভাগ সময় কাটে তার।

এই সময়টা ঘরোয়া লিগগুলোতে রানের বন্যা বইয়ে দেন। হাত ঘুরিয়ে তুলে নেন উইকেট। এই বিবেচনায় দীর্ঘ প্রায় ২ বছর পর অস্ট্রেলিয়া সিরিজে টেস্ট দলে সুযোগ পান। কিন্তু সেই নাসিরকে দেখা যায়নি। এরপর দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজ থেকে বাদ। যথারীতি ঘরোয়া জাতীয় ক্রিকেট লিগে ব্যাটে ঝড় তুলেছেন এই অলরাউন্ডার।

বগুড়ায় ম্যাচের প্রথম দুদিনে বৃষ্টি ও ভেজা আউটফিল্ডে খেলা হয়নি এক বলও। তৃতীয় দিনে খেলা হয় মাত্র ১৭ ওভার। আজ সোমবার শেষ দিনে দুই দলই ব্যাট করেছে।

রংপুরের নাসিরের পর ব্যাটে ঝড় তুলেছেন ঢাকার রনি তালুকদার। ম্যাচটি ড্র না হওয়ার কোনো কারণ ছিল না। নিরুত্তাপ ম্যাচে যা একটু উত্তেজনা ছড়াল নাসিরের ব্যাটেই। ঢাকার অনিয়মিত বোলারদের বাগে পেয়ে ২৬ বলে হাফ সেঞ্চুরি হাঁকালেন আমুদে বলে পরিচিত এই ক্রিকেটার।

বাউন্ডারি হাঁকিয়ে ইনিংস শুরু করার পর নাসির আউট হন ৩৭ বলে ৫২ রান করে। হাঁকিয়েছেন ৭টি চার এবং ২টি ছক্কা।  তার আগে হাফ সেঞ্চুরি করেন রংপুরের দুই ওপেনার সায়মন আহমেদ ও জাহিদ জাভেদ। তবে দুজনই চোটের কারণে অবসর নেন।  ৫ বাউন্ডারি এবং ৪ ছক্কায় সায়মন করেন ৬৩ রান। আর জাভেদের ৫৩ রানের ইনিংসে আছে ৭টি চার ও ১টি ছক্কার মার। ৩ নম্বরে নেমে সোহরাওয়ার্দী শুভ অপরাজিত থকেন ৮০ বলে ৫৬ রানে।

নাসিরের আউটের পরই ইনিংস ঘোষণা করে রংপুর। ৩টি করে চার ও ছক্কায় রনি তালুকদার করেন ৬০ রান। এ ছাড়া ৪৫ রান করেন জয়রাজ শেখ। ঢাকা ৩ উইকেটে ১৫০ করার পর আলোকস্বল্পতায় বন্ধ হয়ে যায় খেলা। শেষ পর্যন্ত ম্যাচটি ড্র ঘোষণা করা হয়।