কানাডার মন্ট্রিয়লে অনুষ্ঠিত হলো চাইল্ড নিউট্রিশন সম্মেলন; বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী

646
gb

সিবিএনএ, কানাডা থেকে ||

কানাডার মন্ট্রিয়ালে অনুষ্ঠিত হয়ে গেলো প্রথম বারের মতো গ্লোবাল চাইল্ড নিউট্রিশন ফোরামের ১৯তম সম্মেলন। ১৭ সেপ্টেম্বর শুরু হওয়া এইসন্মেলনটির উদ্বোধন করেন ক্যুইবেক প্রদেশের শিক্ষামন্ত্রী সেবাস্টিয়ান প্রোলক্স। এতে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রীঅ্যাডভোকেট মোস্তাফিজুর রহমান ফিরোজ।  ৫ দিন চলা এই সন্মেলনটি গত ২১ সেপ্টেম্বর শেষ হয়েছে।

সম্মেলনটিতে ৫৭টি দেশের বিভিন্ন বিষয়ের বিশেষজ্ঞ, এনজিও, দাতাসংস্থা এবং সংশ্লিষ্ট চার শতাধিক ব্যক্তি অংশ নেন।সম্মেলনে স্কুলে স্কুলেখাদ্য কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য পরিকল্পিত কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। কনফারেন্সের এবারের থিম ছিলো- ‘স্কুলে খাবারের প্রোগ্রামের মাধ্যমেস্থায়ী উন্নয়নের জন্য সেতু; স্থানীয়, জাতীয়, আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক সম্প্রদায়ের আকর্ষণ’। এতে বাংলাদেশের প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুররহমান ফিরোজ বাংলাদেশের সাফল্যের চিত্র তুলে ধরেন।

কানাডার বাংলাদেশ হাই কমিশনের সূত্র মতে, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা  মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান এমপি সেখানে মন্ত্রীদের গোল টেবিল প্যানেলেরসদস্য হিসেবে বক্তব্য রাখেন। তাঁর বক্তব্যে তিনি বলেন যে বর্তমান সরকার ২০১৩ সালে ডব্লিউএফপি থেকে সহযোগিতায় স্কুল-খাদ্য কর্মসূচীচালু করেছে এবং আজ পর্যন্ত তা মোট ৩০ মিলিয়ন স্কুলছাত্রকে দেয়া হচ্ছে। বাংলাদেশ সরকার এই গুরুত্বপূর্ণ কর্মসূচিতে পর্যায়ক্রমে সকল শিশুকেঅন্তর্ভুক্ত করার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে।

গ্লোবাল চাইল্ড নিউট্রিশন ফাউন্ডেশন এবং জাতিসংঘ বিশ্ব খাদ্য প্রোগ্রাম বিশ্ব জুড়ে শিশুদের খাদ্য এবং পুষ্টি নিশ্চিত করতে প্রতি বছর ক্ষুধারবিরুদ্ধে এই সম্মেলনের আয়োজন করে। এবারের সন্মেলনের সহযোগিতায় রয়েছে গ্লোবাল চাইল্ড নিউট্রিশন ফাউন্ডেশন, জাতি সংঘের সেন্টারঅফ এক্সিলেন্স এগেন্স্ট হাঙ্গার, সিটি অফ মন্ট্রিয়ল এবং হাঙ্গার ব্রেকফাস্ট ক্লাব কানাডা।

মন্ট্রিয়লে অনুষ্ঠিত এই সম্মেলনে আরও অংশগ্রহণ করেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মনজুর কাদির, মন্ত্রীর যুগ্ম সচিবরামচন্দ্র দাস, ঢাকায় ডব্লিউএফপি’র প্রোগ্রাম ডিরেক্টর রেজাউল করিম এবং কানাডাস্থ বাংলাদেশ হাই কমিশনের প্রথম সচিব (বাণিজ্যিক) দেওয়ান মাহমুদ।