নির্বাচনকালে প্রধানমন্ত্রীর ঐচ্ছিক ছুটি চায় পিডিপি

1,993
gb

বিশেষ প্রতিনিধি ||

নির্বাচন কমিশনারকে নির্বাহী প্রধান করে অবসরপ্রাপ্ত সেনা ও সরকারি কর্মকর্তা সমন্বয়ে একটি নির্বাচনকালীন সরকার গঠনের দাবি জানিয়েছে প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক পার্টি-পিডিপি। এসময় মন্ত্রিপরিষদ ও পার্লামেন্ট ভেঙে দিযে প্রধানমন্ত্রী ঐচ্ছিক ছুটিতে থাকবেন বলে মত দিয়েছে দলটি।

সোমবার বিকালে রাজধানীর আগারগাঁও নির্বাচন কমিশন ভবনে অনুষ্ঠিত সংলাপে অংশ নিয়ে এই প্রস্তাব দেয় দলটি। প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা সংলাপে সভাপতিত্ব করেন।

পিডিপি কো-চেয়ারম্যান নিলুফার পান্না কোরেশী ও যুগ্ম মহাসচিব কাজী আদনান তানজীম তুষারের নেতৃত্বে ১৫ প্রতিনিধিদল ইসির সঙ্গে সংলাপে অংশ নিয়ে এসব প্রস্তাব দেয়।

পিডিপির অন্যন্য প্রস্তাবনাগুলো হলো, অবাধ নির্বাচনের স্বার্থে সেনাবাহিনীকে ভোটকেন্দ্রে উপস্থিত থেকে সাধারণ ভোটারদের ভোটদানের নিশ্চয়তার বিধান করা; পোলিং ও প্রিজাইডিং অফিসারদের নিরাপত্তা বিধানে সেনাবাহিনীকে ম্যাজিস্ট্রেসি পাওয়ার দিয়ে কেন্দ্রে অবস্থানের সুযোগ দেয়া; ভোটের আগের দিন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের ভোটকেন্দ্র প্রস্তুতির দায়িত্ব দেয়া; শুধু জনসংখ্যা নয়, ভোটার সংখ্যা ও সংসদীয় এলাকার আয়তন বিবেচনায় সীমানা নির্ধারণের আইনি কাঠামো সংস্কার; প্রবাসীদের দূতাবাসের মাধ্যমে ভোটাধিকার প্রয়োগের ব্যবস্থা করা; নির্বাচনের তিন মাস আগে নির্ভুল ভোটার তালিকা প্রণয়ন; নির্বাচনে ইভিএম প্রয়োগ বাতিল করা; নির্বাচন মাঠে প্রতিটি রাজনৈতিক দলের সমান সুযোগ নিশ্চিত করা; নির্বাচনে না ভোটের বিধান রাখা, কোনো আসনে প্রার্থীর প্রাপ্ত ভোট না ভোটের থেকে কম হলে সেই আসনে ভোট বাতিল করা; নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল জোটবদ্ধ না হয়ে নিজ প্রতীকে নির্বাচনে অংশ নেয়া; একটি দলের একই প্রতীক বারবার নির্বাচনে অংশ নেয়ার বিধান বাতিল করা; জাতীয় সংসদে ৩০০ আসনের পরিবর্তন আনা যায় কি না বিষয়টি বিবেচনা করাসহ ১৬ দফা প্রস্তাব দিয়েছে দলটি।

২০১৯ সালের ২৮ জানুয়ারির পূর্ববর্তী ৯০ দিনের মধ্যে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন করার সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে। গত ১৬ জুলাই একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে রোডম্যাপ ঘোষণা করে ইসি। রোডম্যাপ অনুযায়ী সংলাপ হচ্ছে। গত ৩১ জুলাই সুশীল সমাজ, ১৬ ও ১৭ আগস্ট গণমাধ্যম প্রতিনিধির সঙ্গে সংলাপের পর ২৪ আগস্ট থেকে নিবন্ধিত ৪০টি রাজনৈতিক দলের সঙ্গে ধারাবাহিক সংলাপ করছে ইসি। এ পর্যন্ত ১৪টি রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়েছে।