খাতা আগে নেবার অভিযোগে এইচএসসি পরীক্ষা কেন্দ্র ভাঙ্গচুর

কেন্দ্র নিরাপত্তায় ছিলেন মাত্র একজন পুলিশ সদস্য

202
gb

জাকির হোসেন পিংকু, চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি:

পরীক্ষার খাতা নির্ধারিত সময়ের পাঁচ মিনিট আগে নেবার অভিযোগ এনে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সরকারী মহিলা কলেজ এইচএসসি পরীক্ষা কেন্দ্র ভাঙ্গচুর ও হট্ট্রগোলের ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্পতিবার দুপুর ১টায় পরীক্ষা শেষের পর নবাবগঞ্জ সরকারী কলেজের বানিজ্য বিভাগের কিছু এইচএসসি পরীক্ষার্থী মহিলা কলেজ কেন্দ্রে পরীক্ষা দেবার পর এ ঘটনা ঘটায় বলে অভিযোগ করেছেন কেন্দ্র কর্তৃপক্ষ। শহরের ভেতর অবস্থিত এতবড় একটি পরীক্ষা কেন্দ্রে এসময় মাত্র একজন পুলিশ সদস্য নিরাপত্তার দায়িত্তে ছিলেন। প্রায় ২০ মিনিট হট্টহোল চলার পর অতিরিক্ত পুলিশ কেন্দ্রে আসে। কেন্দ্র সচিব ও মহিলা কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. নজরুল ইসলাম বলেন,পাশের সরকারী কলেেেজর শিক্ষার্থীরা এই কেন্দ্রে এইচএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করছে। বৃহস্পতিবার ফিনান্স,ব্যাংকিং ও বীমা ১ম পত্র পরীক্ষা চলাকালে তিনতলার ৩০৩ নং হলরুমে কড়াকড়ি করেন দায়িত্বরত উদ্ভিদ বিদ্যা প্রভাষক কামরুন্নাহার। তিনি দেখাদেখি করে লেখার অভিযোগে কয়েকজন শিক্ষার্থীর খাতা কয়েক মিনিট করে কেড়ে রাখেন। এরই জেরে পরীক্ষা শেষে ওই ঘরের শিক্ষার্থীরা ভাঙ্গচুর শুরু করে। তাঁরা ভবনের ফটক আটকে দেয়। আটকা পড়ে ছাত্রীসহ পরীক্ষার্থীরা। ক্যাস্পাসের ভেতর ও বাইরে থেকে ঢিল ছোঁড়া হয়। তাঁরা কয়েকটি বেঞ্চ,জানালার কাঁচ,নোটিশ বোর্ড,হোয়াইট বোর্ড,চেয়ার,টুল,বাইসাইকেল ভাঙ্গে ও ক্ষতিগ্রস্থ করে। এসময় তাঁরা অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। পরীক্ষার্থীরা অভিযোগ করেন,পরীক্ষা শুরুর প্রথম ৩০ মিনিটের নৈর্ব্যক্তিক অংশে পাঁচ মিনিট আগে খাতা নিয়ে নেয়া হয়। এমন অভিযোগ অস্বীকার করেছেন কেন্দ্র কর্তৃপক্ষ। তাঁরা জানান, এমন হবার সম্ভাবনা নেই। সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনজুর রহমান বলেন,ঘটনাটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। অভিযোগ অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। অধ্যক্ষ আরও বলেন,ঘটনাটি জেলা প্রশাসক ও নবাবগঞ্জ সরকারী কলেজ অধ্যক্ষকে অবগত করা হয়েছে। তিনি বলেন,গত বছরও প্রায় একই ধরনের ঘটনা ঘটায় পাশের কলেজের পরীক্ষার্থীরা। আজ( বৃহস্পতিবার) বড় অঘটন না হলেও ভবিষ্যতে অতিরিক্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।