সুন্দরগঞ্জে প্রভাবশালীদের চাপে ধর্ষিতা দু-বোন মামলা করতে পাচ্ছেনা

272
gb

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধা ||

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার বোয়ালি গ্রামের ভিখারী নুরু পাগলার ধর্ষিতা দু-মেয়ে প্রভাবশালীদের চাপে থানায় মামলা করতে পারছে না।
জানা গেছে, গত ২৬ মার্চ উপজেলার মন্ডলের হাট নামক স্থানে বারোনি মেলা করে ভিখারী নুরু পাগলার কিশোরী দুই মেয়ে বাড়ি ফেরার সময় রাত আনুমানিক সাড়ে ৭টার দিকে ছাপড়হাটী ইউনিয়নের ম্যাসের ঘাট নামক স্থানে পৌছা মাত্রই পূর্ব থেকে ওৎ পেতে থাকা ৪/৫ জনের একটি সংঘবদ্ধ দল তাদের ঝাপটে ধরে মুখে ওড়না পেছিয়ে পার্শ্ববতী ধানক্ষেতে নিয়ে গিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এসময় পথচারীদের উপস্থিতি টের পেয়ে ধর্ষণকারীরা ধর্ষিতাদের ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। ধর্ষিতাদের গোংরানি শুনে পথচারীরা তাদের উদ্ধার করে রিক্সা যোগে বাড়িতে পাটিয়ে দেয়। বাড়িতে এসে ধর্ষিতারা তাদের পিতা ও এলাকাবাসিকে ঘটনাটি অবগত করে ধর্ষকদের নাম বলে দেয়। এনিয়ে গত ২৮ মার্চ পার্শ্ববতী ধর্মপুর বাজারস্থ ইউপি সাবেক সদস্য হাবিজার রহমানের ধানের গোডাউনে শালিস সভা বসলেও বিষয়টি অমিমাংসীত থেকে যায়। এব্যাপারে ধর্ষিতাদের সাথে কথা হলে তারা জানায়, ধর্মপুর গ্রামের জ্যোতিষের ছেলে বিধান, মন্টুর ছেলে মোন্নাফ, মেহের আলীর ছেলে জিন্না, মেনহাজ উদ্দিনের ছেলে সাইফুল ও সবুজ তাদের জোর করে ধর্ষণ করে। এদিকে ধর্ষণকারী ও তাদের প্রভাবশালী লোকজন মামলা না করার জন্য চাপ সৃষ্টি করায় তারা মামলা করতে সাহস পাচ্ছে না। এব্যাপারে থানা অফিসার ইনচার্জ আতিয়ার রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, ঘটনাটি স্থানীয়ভাবে মীমাংসার চেষ্টা চলায় মামলা দায়ের করতে বিলম্ব করছে।