বিনম্র শ্রদ্ধা ও যথাযথ মর্যাদায় মধ্যে দিয়ে স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদে দিনব্যাপী পালিত হয়েছে, অমর একুশে কর্মসূচি

1,153
gb

 

বাকুল খান ||স্পেন থেকে  ||

আন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে স্পেনের বাংলাদেশ দুতাবাস গতকাল প্রথম প্রহরে রাষ্ট্রদূত হাসান মাহমুদ খন্দকার জাতিয় পতকা অর্ধ নিমিত করার মাধ্যমে একুশের দূতাবাসের অনুষ্ঠান শুরু করেন। রাতে লাভাপিয়েস চত্বরে অস্থায়ি শহীদ মিনারে বাংলাদেশ কমিউনিটির ফুলেল শ্রদ্ধাঞ্জলি।। দূতাবাস মিলনায়তনে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস এর আলোচনায় পূর্বে প্রবিত্র কুরআন থেকে তেলওয়াত্‌ মহান ভাষা শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে দাড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করেন। পরে রাষ্ট্রপতি,প্রধান মন্ত্রী ও পররাষ্ট্র মন্ত্রি বানী পাঠ করেন,দুতাবাসের হেড অব চ্যান্সরি ও মিনিস্টার হারুন আল রাশিদ এবং প্রথম সচিব উইং শরিফুল ইসলাম। রাষ্ট্রদূত হাসান মাহমুদ খন্দকার তার বক্তব্যে বলেন,২১ চেতনাই হলো ঐক্যে। স্বার্থে সকল মতবিরোধ ভুলে একই মঞ্চে থাকার নামই হল দেশে প্রেম।তাহলেই দেশ,জাতি তার গন্তব্যে এগিয়ে যাবে। তিনি,বাংলা ভাষার প্রতি প্রবাসীদের গভীর মমত্ববোধ দেখে অভিভুত হন।বিজাতি ভাষা আর সংস্কৃতির মাঝে মাতৃভাষাকে লালন করা সত্যিই অসাধারন। বাংলাভাষা চর্চার নতুন প্রজরমকে সব ধরনের সহযোগিতয় জন্য সকলে এগিয়ে আসার আহবান জানান। পরে একুশের ভাষা নিয়ে একটি প্রামান্য চিত্র প্রদর্শন করা হয়।

মাদ্রিদে অস্থায়ি শহিদ মিনারে বাংলাদেশ কমিউনিটির শ্রদ্ধাঞ্জলি।

। বাংলাদেশ এসোসিয়েশনের ইন স্পেনের আয়োজনে প্রতি বছরের মতো এবারো নির্মাণ করা হয়,অস্থায়ি শহীদ মিনার। এতে,ফুলেল শ্রদ্ধাঞ্জলি আর বাংলা ভাষা বাসি মানুষের টল নামে।উৎসুক স্প্যানিশদের ভিড় ছিল লক্ষনিয়। এসোসিয়েশনের সাধারন সম্পাদক কাম্রুজ্জামান সুন্দরের সঞ্চালনায় প্রথমেই পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন,রাষ্ট্রদূত হাসান মাহমুদ খন্দকার সহ দূতাবাস কর্মকর্তা কমচারি বৃন্দ, পরে একে একে মিউনিসিপ্যালটির পক্ষে ডেপুটি মেয়র খরকে গারসি য়া,বাংলাদেশ এসোসিয়েশ ন ইন স্পেন, পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন,

 বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ অব স্পেন,বি এন পি,গ্রেটার এসোসিয়েশন ইন মাদ্রিদ,গ্রেটার সিলেট এসোসিয়েশন ইন মাদ্রিদ , ,গ্রেটার ণোয়াখালি এসোসিয়েশন ইন স্পেন ,নারায়ান গঞ্জ জেলা সমিতি , নরসিংদি জেলা সোসাইটি,চিটাগাং জেলা সমিতি,বিক্রমপুর মুন্সিগঞ্জ সমিতি,বাংলাদেশ প্রেসক্লাব ইন স্পেন, মাগুরা জেলা বাসি ,চাঁদপুর জেলাবাসি,সাবেক ছাত্রদল নেতৃবৃন্দ ,বৃহত্তর ফরিদপুর সমিতি সহ নানা সংগঠন । পরে বাংলাদেশ এসোসিয়েশনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি কাজি এনায়েতুল করিম তারেক সুন্দর এবং শান্তিপূর্ণভাবে একুশ উদযাপন করায় সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন। পুরো শহিদ মিনার জুড়ে ছিল,আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙ্গানো একুশে ফেব্রুয়ারি ,আমি কি ভুলিতে পারি গানের কুরাস কণ্ঠে মুখরিত।