শেখ হাসিনার ঘোষিত দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযানে জিততেই হবে ইলিয়াস হক

37
gb

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি : মাননীয় প্রধাণমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত দুর্নীতির বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযানকে স্বাগত জানিয়ে গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক ইলিয়াস হকের একটি স্টাটাস ফেসবুকে ও বিভিন্ন অনলাইন প্রত্রিকায় ভাইলার হয়েছে । তার লেখাটাকে আমি তুলে ধরছি। সকালে ঘুম থেকে উঠে যদি শুনি আমার খুবই আপনজন অতিপরিচিত কেউ গ্রেফতার হয়েছে তবে মোটেও অবাক হবো না। কে কোথায় কি করছে কি ভাবে সম্পদের পাহাড় বানাচ্ছে যা দৃশ্যমান দেখলেও অদৃশ্য কোন খবরই অনেকের জানা নাই। মানুষের মনে প্রশ্ন জাগে কি ভাবে রাতা রাতি এতো টাকার মালিক হলো। কি ভাবে নামে বেনামে এতো সম্পদের পাহাড় গড়লো এই প্রশ্নে দেশ এখন মুখরোচক। কয়দিন আগেও যাকে দেখেছি নিরহ জীবন যাপন করতে। হঠাৎই গাড়ি বাড়ি চালচলন বদলে গেলো। গ্রামের বাড়িতে যার নাম ডাকা হতো ব্যাঙ্গ করে তাকে এখন বংশীয় পদবি সহ ভাই বলে ডাকা শুরু করছে। তার পিছনে মানুষের ঢল। বাড়ীতে বিভিন্ন দরবার। কোরবানি বা কোন অনুষ্ঠানে দামি গরু বিশাল খাওয়া দাওয়ার আয়েজন। মাথায় ছাথি ধরে ভাইয়ের ঘাম পর্যন্ত মুছে দেয়। হটাৎই সে বনে যায় নেতা। তার অতিত কর্মকান্ড কি ছিলো সব ভুলে যায় মানুষ। পাগলের মতো টাকার পিছে ছুটছে। বড় বড় নেতা প্রশাসন কর্মকর্তা তার দখলে চলে যায়। সমাজে এই ধরনের মানুষের সংখ্যা দিন দিন বাড়ায় বেশামাল দেশ। নিজের দল বিব্রতো এখন। কি করবে কি ভাবে লাগাম টেনে ধরবে। হিমশিম খাচ্ছে পুলিশ সহ সংশ্লিষ্ঠ বাহিনী। অনুমতির দোহাই দিয়ে বাচাতে চেষ্টা করছে প্রিয়ভাজন মানুষদের। তবে শেষ রক্ষা হবে না মনে হয়। কলুষিত রাজনীতি দেশ সমাজ কি ভাবে উত্তরন হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী একা এই যুদ্ধে বিজয় অর্জন করবে কিনা। নানা প্রশ্ন মানুষের। অধিকাংশ মানুষ প্রধানমন্ত্রীর উপর খুশি নিরহ সাধারন মানুষ এবং ত্যাগি নেতা কর্মীরাও। পরিবর্তন হতে যাচ্ছে রাজনীতি এই পরিবর্তনে দেশের পরিবর্তন হোক এটা অধিকাংশ মানুষ চায়। তাই কখন কোথায় কে গ্রেফতার হয় সে ব্যাপারে কোন আগ্রহ নাই। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষনা অক্ষরে অক্ষরে পালন করবে সকল দপ্তর এই আশায় বুক বেধে আছে লক্ষ কোটি মানুষ। মানুষের প্রত্যাশা এই দেশ একদিন বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলায় রুপান্তরিত হবে। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পুরন হবে। মানুষের কাঙ্খিত স্বপ্ন পুরন হবে। তাই দেশের অধিকাংশ মানুষ এই লুটেরা চাঁদাবাজ মাদক ঘুষ দুর্নীতির বিরুদ্ধে। সেই কারনেই টানা দ্বিতীয় বার ক্ষমতায় এসে আওয়ামী লীগ অনুধাবন করতে পেরেছে দেশের গলদটা কোথায়। এই গলদ দুর করতে এবার বিশেষ শুদ্ধি অভিযানে অনেকেই বিব্রতো। ফেঁসে যাচ্ছে স্বপ্নেও না ভাবা মানুষগুলো। এই মানুষগুলো এতোদিন মুখেশের আড়ালে দেশকে ধ্বংসের দ্বার প্রান্তে নিতে চেষ্টা করেছে৷ তাই এবারে শেষ রক্ষা হবে না এই লুটেরাদের। যে কোন মুল্যে এই অভিযানে জিততেই হবে এটাই মানুষের প্রত্যাশা শেখ হাসিনা ঘোষিত দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযানে জিততেই হবে।শেখ হাসিনার ঘোষিত দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযানে জিততেই হবে ইলিয়াস হক গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি : মাননীয় প্রধাণমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত দুর্নীতির বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযানকে স্বাগত জানিয়ে গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক ইলিয়াস হকের একটি স্টাটাস ফেসবুকে ও বিভিন্ন অনলাইন প্রত্রিকায় ভাইলার হয়েছে । তার লেখাটাকে আমি তুলে ধরছি। সকালে ঘুম থেকে উঠে যদি শুনি আমার খুবই আপনজন অতিপরিচিত কেউ গ্রেফতার হয়েছে তবে মোটেও অবাক হবো না। কে কোথায় কি করছে কি ভাবে সম্পদের পাহাড় বানাচ্ছে যা দৃশ্যমান দেখলেও অদৃশ্য কোন খবরই অনেকের জানা নাই। মানুষের মনে প্রশ্ন জাগে কি ভাবে রাতা রাতি এতো টাকার মালিক হলো। কি ভাবে নামে বেনামে এতো সম্পদের পাহাড় গড়লো এই প্রশ্নে দেশ এখন মুখরোচক। কয়দিন আগেও যাকে দেখেছি নিরহ জীবন যাপন করতে। হঠাৎই গাড়ি বাড়ি চালচলন বদলে গেলো। গ্রামের বাড়িতে যার নাম ডাকা হতো ব্যাঙ্গ করে তাকে এখন বংশীয় পদবি সহ ভাই বলে ডাকা শুরু করছে। তার পিছনে মানুষের ঢল। বাড়ীতে বিভিন্ন দরবার। কোরবানি বা কোন অনুষ্ঠানে দামি গরু বিশাল খাওয়া দাওয়ার আয়েজন। মাথায় ছাথি ধরে ভাইয়ের ঘাম পর্যন্ত মুছে দেয়। হটাৎই সে বনে যায় নেতা। তার অতিত কর্মকান্ড কি ছিলো সব ভুলে যায় মানুষ। পাগলের মতো টাকার পিছে ছুটছে। বড় বড় নেতা প্রশাসন কর্মকর্তা তার দখলে চলে যায়। সমাজে এই ধরনের মানুষের সংখ্যা দিন দিন বাড়ায় বেশামাল দেশ। নিজের দল বিব্রতো এখন। কি করবে কি ভাবে লাগাম টেনে ধরবে। হিমশিম খাচ্ছে পুলিশ সহ সংশ্লিষ্ঠ বাহিনী। অনুমতির দোহাই দিয়ে বাচাতে চেষ্টা করছে প্রিয়ভাজন মানুষদের। তবে শেষ রক্ষা হবে না মনে হয়। কলুষিত রাজনীতি দেশ সমাজ কি ভাবে উত্তরন হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী একা এই যুদ্ধে বিজয় অর্জন করবে কিনা। নানা প্রশ্ন মানুষের। অধিকাংশ মানুষ প্রধানমন্ত্রীর উপর খুশি নিরহ সাধারন মানুষ এবং ত্যাগি নেতা কর্মীরাও। পরিবর্তন হতে যাচ্ছে রাজনীতি এই পরিবর্তনে দেশের পরিবর্তন হোক এটা অধিকাংশ মানুষ চায়। তাই কখন কোথায় কে গ্রেফতার হয় সে ব্যাপারে কোন আগ্রহ নাই। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষনা অক্ষরে অক্ষরে পালন করবে সকল দপ্তর এই আশায় বুক বেধে আছে লক্ষ কোটি মানুষ। মানুষের প্রত্যাশা এই দেশ একদিন বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলায় রুপান্তরিত হবে। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পুরন হবে। মানুষের কাঙ্খিত স্বপ্ন পুরন হবে। তাই দেশের অধিকাংশ মানুষ এই লুটেরা চাঁদাবাজ মাদক ঘুষ দুর্নীতির বিরুদ্ধে। সেই কারনেই টানা দ্বিতীয় বার ক্ষমতায় এসে আওয়ামী লীগ অনুধাবন করতে পেরেছে দেশের গলদটা কোথায়। এই গলদ দুর করতে এবার বিশেষ শুদ্ধি অভিযানে অনেকেই বিব্রতো। ফেঁসে যাচ্ছে স্বপ্নেও না ভাবা মানুষগুলো। এই মানুষগুলো এতোদিন মুখেশের আড়ালে দেশকে ধ্বংসের দ্বার প্রান্তে নিতে চেষ্টা করেছে৷ তাই এবারে শেষ রক্ষা হবে না এই লুটেরাদের। যে কোন মুল্যে এই অভিযানে জিততেই হবে এটাই মানুষের প্রত্যাশা শেখ হাসিনা ঘোষিত দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযানে জিততেই হবে।

gb

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More