চিকিৎসক ও জনবল না নিয়েই বার্ন ইনস্টিটিউটে রোগী ভর্তি শুরু

113
gb

বিশেষ প্রতিনিধি জিবি নিউজ ২৪ ||

বিশ্বের সর্ববৃহৎ বার্ন হসপিটাল ‘শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট’ এর যাত্রা শুরু হচ্ছে। রোববার (১৫ সেপ্টেম্বর) থেকে এই ইনস্টিটিউটে রোগী ভর্তির সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

শনিবার (১৪ সেপ্টেম্বর) খবরটি নিশ্চিত করেছেন ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক ড. আবুল কালাম।

ড. আবুল কালাম বলেন, উদ্বোধনের পর আমরা অগোছালো একটা পরিবেশ পেয়েছিলাম। কর্মী সংকট ছিল, আরও বিভিন্ন রকমের সংকট থাকায় আমরা এতদিন রোগী ভর্তি করাতে পারিনি। এখন সিদ্ধান্ত হয়েছে আগামীকাল রোববার থেকে আমরা ভর্তি নেব। এখন থেকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটেই সব ধরনের সেবা পাওয়া যাবে।

আগামীকাল থেকে ৪টি ওয়ার্ডে একযোগে চিকিৎসা সেবা দেয়া শুরু হবে জানিয়ে তিনি বলেন, দুটো ওয়ার্ডে পুরুষ রোগী, একটিতে নারী এবং একটি ওয়ার্ডে শিশুদের ভর্তি করা হবে। এই সপ্তাহের শেষে অপারেশন থিয়েটারও চালু হয়ে যাবে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যেই ইনস্টিটিউট পুরোদমে চলতে শুরু করবে।

এছাড়া ইন্টেনসিভ কেয়ার ইউনিট (আইসিইউ), পুরুষ এসডিইউ কেয়ার, নারী এসডিইউ কেয়ার বেডও আগামী সপ্তাহে চালু করা হবে বলেও জানান পরিচালক আবুল কালাম।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে সরেজমিনে দেখা যায়, এখনও ভবনটি অগোছালোই রয়ে গেছে। রয়েছে চিকিৎসক ও জনবল সংকট। হাসপাতালে রোগী ও স্বজনদের সহজ চলাচলের জন্য বসানো এলিভেটরগুলো এখনও চালু হয়নি। অনেকগুলো লিফটও বন্ধ। কয়েকটি সিঁড়িতে এখনও সংস্কার কাজ চলছে। প্রথম ৩টি তলা বাদে সব তলায় এখনও টয়লেট চালু হয়নি। চালু হয়নি ক্যান্টিনও।

এসব ব্যাপারে ড. আবুল কালাম বলেন, ক্যান্টিন আগামীকাল থেকে খুলবে। আর লিফটগুলোতে সংযোগ দেয়া হয়নি। রোগীর ভিড় বাড়লে প্রয়োজন অনুসারে এগুলো চালু করা হবে। এছাড়াও হাসপাতাল দেখভালের জন্য অনেক কর্মচারী নিয়োগ দিতে হবে। আমরা আগামীকাল থেকে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করব। এ মাসের মধ্যেই এই বিষয়গুলো সমাধান হয়ে যাবে।

উল্লেখ্য, রাজধানীর চাঁনখারপুলে এক দশমিক ৭৬ একর জমিতে ৯১২ কোটি টাকা ব্যয়ে ১৮তলা বিশিষ্ট শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট নির্মাণ করা হয়। এই বার্ন ইনস্টিটিউটকে বিশ্বের সবচেয়ে বড় বার্ন হাসপাতাল হিসেবে বিবেচনা করা হয়। গত বছরের অক্টোবর মাসে এটির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়। এই ইনস্টিটিউটে বার্ন ইউনিট, প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিট এবং একাডেমিক উইং মিলে ৩টি ব্লক থাকছে। রোগীদের চিকিৎসার জন্য রাখা হয়েছে ৫০০ শয্যা। এছাড়া গুরুতর অসুস্থ রোগীদের চিকিৎসার জন্য আইসিইউ ২২টি শয্যা এবং উন্নত চিকিৎসা নিশ্চিত করার হাই ডেফিসিয়েন্সি ইউনিটে ২২টি শয্যা, ১২টি অপারেশন থিয়েটার এবং একটি অত্যাধুনিক পোস্ট অপারেটিভ ওয়ার্ড রাখা হয়েছে।

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More