যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালের প্রসূতি ওয়ার্ডে পুরুষের প্রবেশ নিষেধ আদেশ মানা হচ্ছেনা

135

ইয়ানূর রহমান ||

যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালের প্রসূতি ওয়ার্ডে পুরুষের প্রবেশ নিষেধ আদেশ মানা হচ্ছেনা। প্রসূতি ওয়ার্ডের গেটের বাইরে বড় অক্ষরে লেখা আছে পুরুষের প্রবেশ নিষেধ।

কিন্তু বাস্তবে এই নিয়মের কোন বালাই নেই। পুরুষেরা ওয়ার্ডের মধ্যে ইচ্ছামতো যাচ্ছেন-আসছেন। গেটে নিরাপত্তারক্ষী না থাকায় প্রসূতি ওয়ার্ডে পুরুষেরা যাতায়াতের সুযোগ পাচ্ছেন। এতে প্রসূতিরা ইতস্তবোধ হচ্ছেন।

রবিবার বিকেলে প্রসূতি ওয়ার্ডে গিয়ে দেখা গেছে, এখানে পুরুষের প্রবেশ নিষেধ নিয়মটি কেউ মানছেন না। পুরুষ স্বজনরা রোগী দেখতে এসে ওয়ার্ডে ঘন্টার পর ঘন্টা বসে থাকছেন। তাদের কারণে অন্য রোগীরা শিশুদের বুকের দুধ খাওয়াতেও যেন লজ্জা পাচ্ছেন।

কয়েকজন প্রসূতি জানান, অনেক সময় শিশুদের দুধ খাওয়ানোর সময় তাদের শরীরের কাপড় ঠিক থাকেনা। তাছাড়া ঘুমানের সময়ও শাড়ি কাপড়ের একই অবস্থা হয়ে থাকে। দিনের বেলায় তো সব সময় ওয়ার্ডে পুরুষেরা থাকেন। আবার রাতের বেলায়ও পুরুষেরা অবাধে যাতায়াত করেন।

ওয়ার্ডে দায়িত্বরত সেবিকারা জানান, পুরুষ ভিজিটরের কারণে মারাত্মক সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। ভিতরে প্রবেশের ব্যাপারে তাদের নিষেধ করলে তারা ক্ষুব্দ হয়ে খারাপ আচরণ শুরু করে। গেটে স্থায়ীভাবে নিরাপত্তারক্ষী না থাকায় পুরষের প্রবেশ ঠেকানো যাচ্ছেনা।

হাসপাতালের তত্ত¡াবধায়ক ডা. আবুল কালাম আজাদ লিটু জানান, প্রসূতি ওয়ার্ডে পুরুষের প্রবেশের ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। সেখানে ইচ্ছামতো পুরুষের যাতাযাতের বিষয়টি তার জানা ছিলো না। অবশ্যই এই ব্যাপারে কঠোর ভূমিকা পালন করা হবে।

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আপনি এটির সাথে ঠিক আছেন তবে আপনি চাইলে অপ্ট-আউট করতে পারেন Accept আরও পড়ুন