রাজধানীতে সন্তানসহ ইয়াবা ব্যবসায়ী মা-বাবা গ্রেপ্তার

254
gb

গত শনিবার রাতে রাজধানীর পান্থপথের হোটেল ওলিও ড্রীম হ্যাভেন (আবাসিক) থেকে দুই ছেলে ও স্ত্রীসহ র‍্যাবের হাতে ধরা পড়েছেন আবদুল আজিজ (৬৪) নামে এক ইয়াবা ব্যবসায়ী। তাদের সঙ্গে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ওই হোটেল ম্যানেজার এবং চট্টগ্রামের এক মাদক ব্যবসায়ীকে।

তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় সাত হাজার ৮৯০ পিস ইয়াবা এবং ইয়াবা কেনা-বেচার দুই লাখ ছয় হাজার ৬০ টাকা।

আবদুল আজিজ (৬৪) পেশায় একজন ট্রাক চালক। ট্রাক চালনোর সুবাদে দেশের বিভিন্ন স্থানে ইয়াবার ক্রেতা ও বিক্রেতাদের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। এক পর্যায়ে তিনি নেমে পড়েন ইয়াবা ব্যবসায়। আর দ্রুত বড়লোক হওয়ার আশায় স্ত্রী সন্তানদের দিয়ে ইয়াবা কারবার চালিয়ে আসছিলেন। পরিবারের সবাই মিলে ঢাকা, গাজীপুর ও মুন্সিগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে ইয়াবা সরবরাহ করতো।

র‍্যাব জানায়, গ্রেপ্তারকৃত আবদুল আজিজ সপরিবারে গাজীপুরের জয়দেবপুর থানার আমবাগ এলাকায় থাকেন। আজিজ ছাড়া আরও যাদেরকে গ্রেফতার করা হয়েছে তারা হলো- আজিজের ছেলে সুমন (৩২), ও রতন (২৫), স্ত্রী নিলুফার ওরফে রীনা বেগম (৫৫), হোটেল ম্যানেজার এনামুল হক নয়ন (৩২) এবং চট্টগ্রামের মাদক ব্যবসায়ী সারোয়ার কামাল (৩২)।

র‍্যাবের আইন ও গনমাধ্যম শাখার উপপরিচালক মেজর আবদুল্লাহ আল মেহেদী কালের কণ্ঠকে জানান. হোটেল ওলিও ড্রীম হ্যাভেনের ম্যানেজার এনামুল হক নয়নের সহায়তায় সারোয়ার কামাল ওই হোটেলে ইয়াবার একটি চালান নিয়ে আসে।

ইয়াবার টাকা পরিশোধ করতে আবদুল আজিজ তার স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে ওই হোটেলে আসে।

গ্রেপ্তারকৃত সারোয়ার কামাল র‍্যাবকে জানান, মিয়ানমারের একজন নাগরিক দীর্ঘদিন ধরে চট্টগ্রামে বসবাস করে। সে মিয়ানমার থেকে বিভিন্ন কসমটিক্স, শাড়ী-কাপড় আমদানির আড়ালে ইয়াবা আমদানি করে। পরে বভিন্ন সোর্সের মাধ্যমে এসব ইয়াবা দেশের বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে দেয়। ওই মিয়ানমারের এজেন্ট হিসাবে সারোয়ার কামাল ইয়াবার চালান কাপড়ের গাটের মধ্যে প্রসেসিং করে সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে ভুয়া নামে বিভিন্ন স্থানে পৌঁছে দেয় বলেও সারোয়ার কামাল জানায়। কুরিয়ার সার্ভিসে ইয়াবা পাঠানোর পর সে বাসযোগে ঢাকায় এসে ইয়াবা বিক্রির টাক নিয়ে ফের চট্রগ্রাম চলে যায়।