পাইকগাছা উপজেলা সদরের দুটি কলেজের পরীক্ষা কেন্দ্র পরিবর্তনের দাবী

243
gb

 

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি \ পাইকগাছার সকল পরীক্ষা কেন্দ্রে সমান সুযোগ-সুবিধা প্রদান সহ সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখার দাবী জানিয়েছে শিক্ষার্থীরা। চলতি বছরে উপজেলা সদরের কিছু কিছু কলেজে ফলাফল বিপর্যয়ের পর এসব কলেজ কেন্দ্র পরিবর্তনের দাবী উঠেছে। গত মঙ্গলবার সকালে স্থানীয় সংসদ সদস্যের পথ আটকিয়ে কেন্দ্র পরিবর্তনের দাবী করে পাইকগাছা সরকারি কলেজের শিক্ষার্থীরা। এরআগে সোমবার উপজেলা সদরের দুটি কলেজের শিক্ষকদের অন্তদ্বন্দ নিরসন করে পরীক্ষা কেন্দ্রে সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখার দাবী জানায় ফসিয়ার রহমান মহিলা কলেজের শিক্ষার্থীরা। উলে­খ্য, বরাবর বিভিন্ন পরীক্ষায় উপজেলার প্রত্যান্ত এলাকার কেন্দ্রগুলো ভাল ফলাফল করে থাকে। এবারও যার ব্যতিক্রম হয়নি। বিশেষ করে এবারের এইচএসসি পরীক্ষায় উপজেলা সদরের কোন কোন কলেজে ফলাফল বিপর্যয় দেখা দেয়। পাশের হার কমে আসে ৩০ শতাংশের নিচে। অপরদিকে প্রত্যান্ত এলাকার কোন কোন কলেজে পাশের হার ৮০ শতাংশের উপর দেখা যায়। অনেকের অভিযোগ ওই সব এলাকার কেন্দ্র, ভ্যেনু কেন্দ্র একই স্থানে হওয়ায় এবং একই এলাকার শিক্ষকরা দায়িত্ব পালন করায় পরীক্ষার সময় পরীক্ষার্থীরা বাড়তি সুযোগ-সুবিধা পায়। ফলে ওই সকল কেন্দ্রে ফলাফল খুব-বেশি ভাল হয়। পাশাপাশি উপজেলা সদরের দুটি কলেজের শিক্ষকদের অন্তদ্বন্দের কারণে পরীক্ষার্থীদের উপর বাড়তি মানসিক চাঁপ সৃষ্টি হয়। এতে পরীক্ষার্থীরা স্বাভাবিক পরীক্ষা দিতে পারে না। যার প্রভাব পড়ে ফলাফলের উপর। এ ধরণের অভিযোগে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মধ্যে দীর্ঘদিন চাঁপা ক্ষোভ চলে আসছে। যা এবারের ফলাফল বিপর্যয়ের পর অভিযোগটি প্রকাশ্যে রূপ নিয়েছে। যদিও এ ধরণের অভিযোগ ফসিয়ার রহমান মহিলা কলেজের শিক্ষকদের দিকে বেশি করা হয়ে থাকে। তবে এমন অভিযোগ মানতেনারাজ দুই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা। পাইকগাছা সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ মিহির বরণ মন্ডল বলেন, শিক্ষার্থী ও পরীক্ষার্থীদের অভিযোগ মানসিক চাঁপ সৃষ্টির কারণে তারা স্বাভাবিক পরীক্ষা দিতে পারে না। ফলে যার প্রভাব পড়ে পরীক্ষা ফলাফলের উপর। তবে আমি মনে করি দুই কলেজের মধ্যে কোন রেষারেষি নাই। তবে হয়তো কিছু কিছু শিক্ষকদের মধ্যে অন্তদ্বন্দ থাকতে পারে। এ ক্ষেত্রে পাইকগাছা কলেজে এইচএসসি থেকে শুরু করে অনার্স পরীক্ষা হয়ে থাকে। এ পর্যন্ত আমাদের কলেজের কোন শিক্ষকের বিরুদ্ধে কোন পরীক্ষার্থী কিংবা কোন প্রতিষ্ঠান কোন অভিযোগ তুলতে পারেনি। বর্তমানে শিক্ষার্থীরা কেন্দ্র পরিবর্তন সহ পরীক্ষা কেন্দ্রের যে সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখার দাবী তুলেছে একটি সুন্দর পরীক্ষার জন্য সে বিষয়টি ভেবে দেখা উচিৎ বলে অধ্যক্ষ মিহির বরণ মন্ডল মনে করেন।