যুক্তরাষ্ট্রে নিখোঁজ বাংলাদেশি তরুণ, রেড এলার্ট জারি

151
gb

জিবি নিউজ 24 ডেস্ক //

১৭২ দেশের হাজার হাজার প্রতিবন্দ্বীদের অংশগ্রহণে যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগোতে অনুষ্ঠিত ‘স্পেশাল অলিম্পিক’-এ অংশ নিতে যাওয়া বাংলাদেশ টিমের সদস্য রেজওয়ানুল হক (২২) এর হদিস ৫ দিনেও উদঘাটন হয়নি। অটিস্টিক তরুণ রেজওয়ানুলের হদিস উদঘাটনে শিকাগোর পুলিশ যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে রেড এলার্ট জারি করেছে। প্রধান প্রধান টিভি এবং সংবাদপত্রে ফলাও করে প্রচার ও প্রকাশ পেয়েছে রেজওয়ানুলের নিখোঁজ সংবাদ।

শিকাগোতে বাংলাদেশের কন্সাল জেনারেল মনির চৌধুরী জানান, ‘রেজওয়ানুল ইংরেজিতে কথা বলতে পারে না। অটিস্টিক তরুণ হিসেবে সে ফুটবল খেলে। ২০১৫ সালে লসএঞ্জেলেসে অনুষ্ঠিত ‘স্পেশাল অলিম্পিক’এ ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড় হিসেবে স্বর্ণ জয় করেছিল।’

মনির চৌধুরী উল্লেখ করেন, ‘২০ সদস্যের টিম গিয়েছিল এই অলিম্পিকে অংশ নিতে। যাওয়ার আগে ওয়াশিংটনে বাংলাদেশ দূতাবাস অথবা আমাকে কিছুই অবহিত করা হয়নি। তবে এখন আমরা সর্বাত্মক চেষ্টায় আছি রেজওয়ানুলকে খুঁজে বের করতে।’

‘স্পেশাল অলিম্পিক’র ৫০ বছর পূর্তি উৎসব শুরু হয় ১৭ জুলাই। এর আগের দিন বিকেল ৫টায় রেজওয়ানুল হোটেল থেকে একটি মাইক্রোবাসে উঠে বলে হোটেলের সিসিটিভিতে দেখা গেছে।

শিকাগো পুলিশের মুখপাত্র এন্থনী গুগলীলমি এ প্রসঙ্গে বলেছেন, বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টায় নর্থ মিশিগান এভিনিউতে অবস্থিত ইস্ট ডেলওয়ারে প্যালেস হোটেল থেকে বের হয় রেজওয়ানুল। এরপর সে আর হোটেলে ফিরেনি কিংবা কাউকে কিছু জানায়নি।

এন্থনী আরো উল্লেখ করেছেন, পরদিন শুক্রবার টিমের সাথে মিলিত হয়ে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যাবার কথা। কিন্তু তাকে পায়নি টিমের সদস্যরা। এর আগেই বাংলাদেশ টিমের কর্মকর্তারা পুলিশকে অবহিত করেন।

স্পেশাল অলিম্পিক-ইন্টারন্যাশনাল কমিটির কর্মকর্তারা জানান যে, তারা পুলিশের সাথে একযোগে কাজ করছেন।

এন্থনী জানিয়েছেন যে, রেজওয়ানুলের ছবি সকল পুলিশ স্টেশনে বিতরণ করা হয়েছে। গণমাধ্যমে দেয়া হয়েছে। সে নিখোঁজ হবার আগে নীল হেট ছিল মাথায়, সামনে লেখা ছিল ‘ইউএসএ’। গায়ে ছিল নীল রং-এর শার্ট। এই শার্টের পেছনে লাল অক্ষরে ‘বাংলাদেশ’ লেখা ছিল। পরনে ছিল কাল প্যান্ট। সাদা রংয়ের জুতা পায়ে। লাল ও এ্যাশ কালারের ব্যাকপেক ছিল।

পুলিশ সর্বসাধারণের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছে রেজওয়ানুলের সন্ধান পেলেই ৩১২-৭৪৭-৮৩৮০ অথবা ৯১১ এর ফোন করার জন্যে।

কন্সাল জেনারেল আরো জানান, টিমের ১৯ জন সদস্যই বাংলাদেশে ফিরে গেছেন ২২ জুলাই।