দ্রুত সারাদেশের পেশাদার সাংবাদিকদের প্রণীত তালিকা প্রকাশ করুন: সরকারকে বিএমএসএফ

1,113
gb
হাকিকুল ইসলাম খোকন ||
ঢাকা, ১৯ সেপ্টেম্বর  ইনকিলাবের সম্পাদক এ এম বাহাউদ্দিন ও তার সহযোগি সন্ত্রাসী কর্তৃক ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি শাখাওয়াত হোসেন বাদশা, নারী সাংবাদিকসহ ১০/১২জন সাংবাদিককে লাঞ্ছিত, সাংবাদিক ছাটাই, সাংবাদিক-কর্মচারীদের বকেয়া বেতন ভাতা প্রদানসহ হাইকোর্টে র আদেশে ইনকিলাব পত্রিকার প্রিন্টার্স লাইন থেকে যুদ্ধাপরাধী মওলানা মান্নানের নাম বাদ দেয়ার দাবীতে প্রতীকি অবস্থান কর্মসূচী পালিত হয়েছে।
মঙ্গলবার দুপুর ১২টা থেকে ১টা পর্যন্ত ইনকিলাব ভবনের সামনে অনুষ্ঠিত কর্মসূচীতে বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম ঢাকা জেলা কমিটির নেতৃবৃন্দ একাত্মতা ঘোষণা করেন।
প্রতীকি এ কর্মসূচীতে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) যুগ্মসম্পাদক পুলক ঘটক।
এতে সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক আহমেদ আবু জাফর, সাংগঠনিক সম্পাদক মাইনুল হাসান, ঢাকা জেলা কমিটির আহবায়ক আবুল কালাম আজাদ, উপদেষ্টা কলিম এম জায়েদী, যুগ্ম-আহবায়ক রিয়াজুল হাসান অভি, উজ্জল ভূইয়া, সদস্য আরিফুল মাসুম, গৌরনদী বিএমএসএফ’র সমন্বয়কারী রাহাত সুমন, ঠাকুরগাঁওয়ের বিশাল রহমান প্রমুখ অংশগ্রহন করেন।
নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে ইনকিলাবের সম্পাদক ও প্রকাশক এএম বাহাউদ্দিন ও তার সহযোগিদেরকে গ্রেফতার করার দাবী করেন।
বিএমএসএফ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক আহমেদ আবু জাফর তার প্রতিক্রিয়ায় সরকারের কাছে দ্রুত সারাদেশের পেশাদার সাংবাদিকদের প্রণীত তালিকা প্রকাশের তাগিদ দেন। এছাড়া সাংবাদিক নিয়োগ নীতিমালা প্রণয়ন, সাংবাদিক নির্যাতন বন্ধে যুগোপযোগি আইন প্রণয়ন, নবম ওয়েজবোর্ড ঘোষণাসহ ১৪ দফা দাবী বাস্তবায়ন করতে সরকার এবং গণমাধ্যমসমুহের নিকট দাবী তোলেন।
এদিকে ইনকিলাব কর্তৃপক্ষ ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি শাখাওয়াত হোসেন বাদশা ও সাংবাদিক-কর্মচারীদের ওপর হামলাসহ সৃষ্ট পরিস্থিতিতে বিএমএসএফ গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে অবিলম্বে সুরাহা করার জন্য তথ্যমন্ত্রনালয় ও সাংবাদিক নেতৃবৃন্দের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।