বড় ধরনের নাশকতা পরিকল্পনা নস্যাৎ : বিজিবি’র দাবি চাঁপাইনবাবগঞ্জে পদ্মার চরে বিজিবি অভিযানে ১৮টি ককটেল উদ্ধার

419
gb

 

জাকির হোসেন পিংকু,চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি:
চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার সওড়াপাড়া পদ্মা নদীর পাড় ও বিপরীতে লক্ষিচরএলাকায় বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় ককটেলভর্তি দুটি বালতি উদ্ধার করেছেবিজিবি। এর একটি সওড়াপাড়া চরে উদ্ধার বালতি থেকে ১৮টি ককটেল উদ্ধার করাহয়েছে। অপর বালতি লক্ষীচরে বালু দিয়ে ঢেকে রাখা অবস্থায় সনাক্ত করেছেবিজিবি। ওই বালতিটি উদ্ধারে কাজ শুরু করেছে শিবগঞ্জ থানা পুলিশ। এ ঘটনায়কেউ আটক না হলেও বালতি বহনকারী দুজনকে সনাক্ত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেবিজিবি। এরা হলেন, শিবগঞ্জের চর হাসানপুর গাইপাড়া গ্রামের মৃত.আজিজুলহকের ছেলে হিরো (২৫) ও একই গ্রামের আশরাফুলের ছেলে তরিকুল (৩০)।চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৯’বিজিবি ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক লে. কর্ণেল আবুল এহসানদুপুর ১টায় বলেন, ধারণা করা হচ্ছে, দেশে বিরাজমান পরিস্থিতিতে শিবগঞ্জ বাচাঁপাইনবাবগঞ্জ শহরে বড় ধরনের অরাজকতা ও নাশকতা সৃষ্টিতে এগুলি ব্যবহার করা হত। বিজিবির অভিযানে তা নস্যাৎ হয়েছে। তিনি বলেন, সকালে সওড়াপাড়া সীমান্ত এলাকা দিয়ে পদ্মা নদী পার হয়ে দুটি বালতিতে করে বিপুল সংখ্যক ককটেলনিয়ে দূস্কৃতিকারীরা দেশের ভেতরে প্রবেশ করছিল। খবর পেয়ে প্রথমে ফতেপুরসীমান্ত ফাঁড়ির একটি দল অভিযান শুরু করলে দূস্কৃতিকারীরা দুর থেকে বিজিবি
দল দেখেই ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে ককটেল ভর্তি বালতি নিয়ে নদীতে ঝাঁপ দিয়েপালিয়ে যায়। এমতাবস্থায় বিজিবি’র রঘুনাথপুর সীমান্ত ফাঁড়ির আরেকটি দলস্পীডবোট নিয়ে দ্রæত অভিযানে যোগ দেয়। যৌথ অভিযানে সওড়াপাড়া চরে
১টি ও লক্ষীচরে ১টি দূষ্কৃতিকারীদের ফেলে যাওয়া বালতি সনাক্ত হয়। সওড়াপাড়ায়বালতিটি উদ্ধার করে ১৮টি ককটেল পাওয়া যায়। এ ব্যাপারে শিবগঞ্জ থানায় পলাতক ওঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে বলেও জানিয়েছেনলে.কর্ণেল এহসান। শিবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাবিবুর রহমানদুপুর সোয়া ২টায় জানিয়েছেন, বিজিবি’র অভিযানে মোট ৩২টি ককটেল উদ্ধার হয়েছে। ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।