রাবি শিক্ষকের আত্মহত্যা, সহকর্মীর বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র

1,550
gb

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষিক আকতার জাহানের আত্মহত্যার এক বছর পর তাঁর সহকর্মীর বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দিয়েছে পুলিশ। গত ২৫ আগস্ট রাজশাহী মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে মতিহার থানা পুলিশ এ অভিযোগপত্র জমা দেয়।

আজ রোববার বিকেলে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও মতিহার থানার উপপরিদর্শক (এসআই) ব্রজ গোপাল এ বিষয়টি জানিয়েছেন। তিনি বলেন, আকতার জাহানের আত্মহত্যার বিষয়টি খুবই গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করা হয়েছে। বিভিন্ন তথ্য ও প্রমাণের ভিত্তিতে একই বিভাগের শিক্ষক আতিকুর রহমান রাজাকে অভিযুক্ত করে অভিযোগপত্র দেওয়া হয়েছে। মামলার তদন্তে আতিকুর রহমানের বিরুদ্ধে শিক্ষক আকতার জাহানকে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার প্রমাণ পাওয়া গেছে।

গত বছরের ৯ সেপ্টেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের জুবেরী ভবনের ৩০৩ নম্বর কক্ষ থেকে আকতার জাহানের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ সময় ওই কক্ষ থেকে একটি সুইসাইড নোটও উদ্ধার করা হয়, যেখানে তিনি আত্মহত্যার কারণ হিসেবে শারীরিক ও মানসিক চাপের কথা উল্লেখ করেন। এ ছাড়া তাঁর সন্তান আইমান সোয়াদ আহমেদকে যেন তাঁর বাবা তানভীর আহমেদ নিজের হেফাজতে নিতে না পারে সে বিষয়ে উল্লেখ করেন। এ ঘটনার পরের দিন ১০ সেপ্টেম্বর আকতার জাহানের ছোটভাই কামরুল হাসান রতন বাদী হয়ে মতিহার থানায় আত্মহত্যার প্ররোচনা মামলা করেন।

এ ঘটনায় গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক শিক্ষার্থীদের দাবির মুখে আকতার জাহানের সাবেক স্বামী ও একই বিভাগের শিক্ষক তানভীর আহমেদকে পাঁচ বছরের জন্য বিভাগ থেকে বহিষ্কার করা হয়। একই সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক সেলিনা পারভীনকে প্রধান করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

আকতার জাহানের আত্মহত্যার ঘটনায় তাঁর সহকর্মী আতিকুর রহমান রাজাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে যায় গোয়েন্দা পুলিশ। এই মামলায় তাঁকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়। পরে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আতিকুরকে বিভাগ থেকে সাময়িক বহিষ্কার করে।