রাখাইন বৌদ্ধদের ওপর চড়াও হচ্ছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী

84
gb

জিবি নিউজ ডেস্ক ।।

করোনাভাইরাসের মহামারি মোকাবেলায় সারাবিশ্ব ব্যস্ত। আর এ সময়েও মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী রাখাইন প্রদেশের বেসামরিক জনগণের উপর তাদের বর্বরতা অব্যাহত রেখেছে। এমনটাই দাবি করেছে জাতিসংঘ।

মিয়ানমারে সামরিক বাহিনী এখনো মানবতাবিরোধী অপরাধ করছে। বেসামরিক লোকজনকে এখনো লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করছে তারা। মিয়ানমার বিষয়ক জাতিসংঘের বিশেষ প্রতিনিধি ইয়াংগি লি এই অভিযোগ করেছেন।

তিনি বলেন, ‘পশ্চিমাঞ্চলীয় রাখাইন রাজ্যে বিচ্ছিন্নতাবাদী বিদ্রোহী গোষ্ঠী আরাকান আর্মির (এএ) সঙ্গে সাম্প্রতিক সংঘর্ষে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী জাতিগত রাখাইন বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের ওপর চড়াও হচ্ছে। শত শত বাড়ি পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। বৌদ্ধমঠে হামলা করা হয়েছে। মানুষকে গ্রেপ্তার এবং নির্যাতন করা হয়েছে। আমরা শিরশ্ছেদ করা অনেক মৃতদেহ পেয়েছি। এরা রাখাইনের বাসিন্দা।’

মিয়ানমারের সেনাদের এ নিপীড়নকে ‘মানবতাবিরোধী অপরাধ’ এবং ‘যুদ্ধাপরাধ’ আখ্যা দিয়ে এগুলোকে একইসঙ্গে অত্যন্ত জঘন্য কর্মকান্ড এবং আন্তর্জাতিক আইনে গুরুতর অপরাধ হিসাবে উল্লেখ করেন লি।

তিনি আরও বলেন, ‘মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী সম্প্রতি রাখাইন ও প্রতিবেশী চীন প্রদেশে যে বিমান হামলা চালিয়েছে তাতে বহু বেসামরিক নাগরিক হতাহত হয়েছে যার মধ্যে বেশকিছু শিশু রয়েছে। শুধু তাই নয়, বিমান হামলায় আহতদের চিকিৎসা নিতে বাধা দিয়েছে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী।’

লি’র এ অভিযোগের বিষয়টি নিয়ে সিএনএন মিয়ানমার সরকারের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করে কোনো প্রতিক্রিয়া পায়নি।

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আপনি এটির সাথে ঠিক আছেন তবে আপনি চাইলে অপ্ট-আউট করতে পারেন Accept আরও পড়ুন