ভয়ংকর ‘বোমা নগরী’তে তামিম-মুস্তাফিজরা

96
gb

জিবিনিউজ 24 ডেস্ক //

যেখানে বাঘের ভয় সেখানে রাত হয়! এই প্রবাদটা যেন বাংলাদেশ দলের বর্তমান পরিস্থিতির সঙ্গে বেশ যায়।

বুধবার (২২ জানুয়ারি) রাত ৮টায় ঢাকা ছাড়ার পর প্রায় ১১টার দিকেই লাহোরের আল্লামা ইকবাল বিমানবন্দরে অবতরণ করে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে বহনকারী বোয়িং ৭৩৭-৮০০ মডেলের উড়োজাহাজ ‘মেঘদূত’।

 

আগামী ২৪, ২৫ ও ২৭ জানুয়ারি লাহোরে পাকিস্তানের বিপক্ষে তিনটি টি২০ খেলবে টাইগাররা। ওই সিরিজ খেলে দেশে ফিরে ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহে টেস্ট খেলতে দল আবার যাবে পাকিস্তানে। ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ম্যাচ হবে রাওয়ালপিণ্ডিতে।

 

বাংলাদেশের তৃতীয় দফার সফর এপ্রিলে। ৩ এপ্রিল করাচিতে একটি ওয়ানডে খেলবে দুই দল। তার পর একই শহরে আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের আরেকটি টেস্ট ৫ এপ্রিল থেকে।

 

এবার আসা যাক মূল কথায়, প্রথম দফার তিনটি ম্যাচই হবে লাহোরে। যেখানকার আরেক নাম হতে পারে লাশের নগরী কিংবা বোমা নগরীও। শুধু বোমা নগরী বললেও কম বলা হবে। ভংয়কর বোমার নগরী এই লাহোর। কাগজে কলমেও সেই প্রমাণ মিলে যাবে।

পাকিস্তানের জনপ্রিয় পত্রিকা ‘ডন’ ও ‘এক্সপ্রেস’-এ প্রকাশিত গত কয়েক বছরের প্রতিবেদন থেকে পাওয়া তথ্যমতে, ২০০০ সাল থেকে অদ্যাবধি গত ১৯ বছরের বেশি সময় ধরে কেবল এই লাহোরেই পড়েছে পাঁচ শতাধিক লাশ।

 

যার মধ্যে বেশি ছিল জঙ্গিদের আত্নঘাতি বোমা হামলা, রিমোট কন্ট্রোল বোমা বিষ্ফোরণ কিংবা সন্ত্রাসী এট্যাক। আর সবমিলিয়ে প্রায় ৪৫টি জঙ্গি হামলা হয়েছে।

ঠিক তেমন একটা লাশের শহরেই পা রাখবে টাইগাররা। অবশ্য পিসিবির তরফ থেকে বলা হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা দেওয়া হবে বাংলাদেশ দলকে। তারপরও তো থেকে যায় উদ্বেগ, উৎকন্ঠা। থেকে যায় টেনশন।

 

কেননা ২০০৯ সালে শক্ত নিরাপত্তা বলয় ভেদ করেই লাহোরে শ্রীলংকা ক্রিকেট দলের ওপর ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলা হয়েছিল। ওই দিনটি এখনো ভোলেনি ক্রিকেটপ্রেমীরা। ওই হামলার পর বিশ্বের বিভিন্ন দেশ এই লাহোরকে একপ্রকার নিষিদ্ধ নগরী বলেও অভিহিত করেন।

যদিও সেই রক্তের দাগ মুছে আবারও পাকিস্তান সফর করে শ্রীলংকা ক্রিকেট দল। ক’দিন আগেও তারা দেশটিতে সিরিজ খেলেছে। নিরাপত্তা নিয়ে ইতিবাচক কথাও শুনিয়েছে।

তারও আগে দীর্ঘদিন পাকিস্তানে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট হয়নি। লম্বা একটা সময় সংযুক্ত আরব আমিরাতে হোম সিরিজগুলো আয়োজন করেছিল পাকিস্তান।

একনজরে গত কয়েক বছরের উল্লেখযোগ্য হামলা

সময় স্থান হামলার ধরণ নিহত আহত
১০ জানুয়ারি, ২০০৮ লাহোর হাইকোর্টোর বাহিরে আত্নঘাতি বোমা ২৬ ৭৩
১২ মার্চ, ২০১০ আর.এ বাজার বাস স্টপ আত্নঘাতি বোমা ৫৭ ১১০
১ জুলাই, ২০১০ দরবার কমপ্লেক্স আত্নঘাতি বোমা ৪২ ১৭৫
৬ জুলাই, ২০১৩ ফুড স্ট্রিট ওল্ড আনারকলি রিমোট কন্ট্রোল বোমা ৫০
১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ পাঞ্জাব অ্যাসেম্বলির বাহিরে আত্নঘাতি বোমা ১৪ ৮৫

পাকিস্তান সফরে বাংলাদেশের টি২০ স্কোয়াড

মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ (অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, লিটন দাস, সৌম্য সরকার, আফিফ হোসেন ধ্রুব, নাইম শেখ, নাজমুল হাসান শান্ত, মোহাম্মদ মিঠুন, মেহেদী হাসান, আমিনুল বিপ্লব, মোস্তাফিজুর রহমান, শফিউল ইসলাম, রুবেল হোসেন, আল-আমিন হোসেন ও হাসান মাহমুদ।