বিদেশ থেকে কৃষিপণ্য আমদানি করা জাতির জন্য লজ্জার: পরিবেশমন্ত্রী

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি ॥

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন এমপি বলেছেন, ‘বাংলাদেশ কৃষি প্রধান দেশ। যেখানে দেশের শতকরা ৮০ ভাগ মানুষ কৃষক, সেখানে কেন বিদেশ থেকে পেঁয়াজ আনতে হবে। কৃষি নির্ভরতা কম থাকায় বিদেশ থেকে কৃষিপণ্য আমদানি করতে হয়। এখন বিদেশ থেকে পেঁয়াজ আনতে হচ্ছে। সঠিকভাবে দেশে পেঁয়াজ উৎপাদন করলে এমন সংকটটিও দেখা দিত না। দামও বাড়ত না। মানুষের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে পেঁয়াজ থাকত।’
গত রবিবার (১৭নভেম্বর) বিকেলে বড়লেখা উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে রবি’ ১৯/২০ মৌসুমে ৯৫৫জন ক্ষুদ্র ও প্রান্তি কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে বীজ ও সার বিতরণ কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।
বনমন্ত্রী আরো বলেন,‘কৃষি প্রধান একটি দেশে, বিদেশ থেকে কৃষিপণ্য আমদানি করা লজ্জার বিষয়। আগে আমাদের অ লে বাজার থেকে শুধু কেরোসিন ও লবন কিনতে হত। পেঁয়াজসহ অন্যান্য কৃষিপণ্য এখান থেকে উৎপাদন করা হত। এখন সেই দিনগুলো আর নেই। মানুষের মাঝে কৃষি নির্ভরতা কমে গেছে। সরকার কৃষিতে ভর্তুকি দিচ্ছে। কৃষকদের বিনামূল্যে বীজ ও সার দিচ্ছে। কৃষি নির্ভরতা বাড়াতে হবে। এক সময় অন্য দেশ থেকে আমাদের চাল কিনতে হত। এখন দেশে প্রচুর পরিমাণে চাল উৎপাদন হচ্ছে। ফলে আমাদের চাহিদা মিটিয়ে তা বিদেশে রপ্তানি সম্ভব হচ্ছে।’
বিতরন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বড়লেখা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শামীম আল ইমরান। কৃষি কর্মকর্তা দেবল সরকারের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন বড়লেখা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সোয়েব আহমদ, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার উদ্দিন, পৌরসভার মেয়র আবুল ইমাম মো. কামরান চৌধুরী, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান তাজ উদ্দিন, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রাহেনা বেগম হাছনা, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল লতিফ প্রমুখ। মন্ত্রী বলেন আমাদের দেশের কৃষি পন্যের উতপাদন বৃদ্দি করে জাতিকে লজ্জা থেকে রক্ষা করতে হবে,এবং দেশকে খাদ্যে বিদেশ নির্ভরশীলতা কমাতে হবে।

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আপনি এটির সাথে ঠিক আছেন তবে আপনি চাইলে অপ্ট-আউট করতে পারেন Accept আরও পড়ুন