৬৬ বসন্ত পেরিয়ে ৬৭ বয়সে পড়লেন রুনা লায়লা

51
gb

জিবি নিউজ ২৪

বাংলা গানকে সমৃদ্ধ করেছেন। নিয়ে গেছেন অনন্য উচ্চতায়। আমরা গর্ব করেই তার নামটি বলতে পারি। তিনি কিংবদন্তি কণ্ঠশিল্পী রুনা লায়লা। আজ এই গুণী মানুষটির জন্মদিন। এ ছাড়া সুরকার হিসেবে প্রথমবারের মতো পেতে যাচ্ছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। নানা প্রসঙ্গে কথা হয় তার সঙ্গে।

জীবনে অনেকবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন। ‘একটি সিনেমার গল্প’ চলচ্চিত্রের জন্য এবার সুরকার হিসেবে প্রথমবারের মতো পুরস্কার পেতে যাচ্ছেন পাচ্ছেন। এবারের অনুভূতিটি কেমন?   ভীষণ আনন্দ লাগছে। গানটিতে কণ্ঠ দেওয়ার আগে আমি আঁখিকে বলেছিলামÑ স্টেজ শো থেকে দূরে থাকতে। সে দেশের বাইরে যাওয়াও ক্যানসেল করেছে। আঁখি সত্যিই অনেক কষ্ট করেছে। তার পর গানটিতে কণ্ঠ দিয়েছে। পাশাপাশি চমৎকার সংগীতায়োজন করেছেন ইমন সাহা। সব মিলিয়ে অবশেষে আমাদের এই সাফল্য। পরিচালক আলগমীর, আঁখি, ইমনÑ আমরা সবাই এ সাফল্যে আনন্দিত।

আমার আম্মা বেঁচে থাকলে সবচেয়ে বেশি খুশি হতেন। সত্যি বলতে কীÑ আমার জীবনের প্রতিটি প্রাপ্তিতেই আমার পরিবার ভীষণ খুশি থাকতেন, গর্ব অনুভব করতেন। একজন সুরকার হিসেবে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির ঘোষণার পর থেকেই আমার বাবা-মা, আমার বোন দীনা লায়লাকে ভীষণ মিস করছি। আবার আমার একমাত্র মেয়ে তানিকেও মিস করছি। তানির সঙ্গে ফোনে কথা হচ্ছে। কিন্তু এ মুহূর্তে কাছে থাকলে হয়তো আরও ভালো লাগত।                       আজ আপনার বিশেষ দিন। এই দিনেই বাবা-মায়ের কোলজুড়ে এসেছেন। দিনটি ঘিরে আপনার ভাবনার কথা জানতে চাই। দীর্ঘ পথপরিক্রমায় কী মনে হয়?

জন্মদিন সবসময়ই ঘরোয়া আয়োজনের মধ্য দিয়েই পালন করেছি। ছোটবেলায় দিনটির জন্য অপেক্ষায় থাকতাম। কারণ নতুন নতুন জামা-কাপড় উপহার পাব। পরিবারের সদস্যদের বাইরে তেমন কেউ থাকত না জন্মদিনে। এখন তো আসলে পরিবারের অনেকেই নেইÑ বাবা নেই, মা নেই, বোন দীনা লায়লা নেই। জন্মদিন এলেই যে শুধু তাদের মিস করি এমনটি নয়। নীরবে একা একা যখন হঠাৎ ফেলে আসা দিনের কথা মনে হয়, তখনই তারা আমার স্মৃতিতে চলে আসেন। মনের অজান্তেই হয়তো চোখের কোনে পানি চলে আসে। এখন পারিবারিকভাবেই দিনটি উদযাপন করি। সবার সঙ্গে সুন্দর সময় কাটে।

ওপার বাংলার চ্যানেল স্টার জলসা আপনার জন্মদিন ঘিরে বিশেষ আয়োজন করেছে।

স্টার জলসার উদ্যোগে ‘কে আপন কে পর’ ধারাবাহিকের বিশেষ এই আয়োজনকে আমি স্বাগত জানাই। এমন একটি জনপ্রিয় ধারাবাহিক নাটক প্রচারের সময়কালে আমারই জন্মদিনে আমার উপস্থিতির বিষয়টি আমার জন্য অনেক ভালোলাগার। একজন শিল্পী হিসেবে আমার দায়বদ্ধতার জায়গা থেকেই এই ধারাবাহিকের বিশেষ পর্বে উপস্থিত হয়ে তাদের কাজের স্পৃহাকে আরও বাড়ানোর চেষ্টা করেছি মাত্র। আমি সত্যিই ভীষণ সম্মানিত বোধ করছি, আজ রাত ১০টায় বিশেষ এই পর্বটি প্রচার হবে।

জীবনে অনেক পেয়েছেন। রুনা লায়লার অপ্রাপ্তি বলতে কিছু আছে?

আমার জীবনে কোনো অপ্রাপ্তি নেই। আলহামদুলিল্লাহ, আমি এখন পর্যন্ত যা পেয়েছি, যতটুকু পেয়েছি; আমি মনে করি অনেক বেশি পেয়েছি। সবসময়ই শুকরিয়া আদায় করি। সাধারণ মানুষের কাছ থেকে যে ভালোবাসা, যে শ্রদ্ধা পেয়েছি, তা আমার কাছে পুরস্কারের চেয়েও অনেক বড়। শুধু দেশেই নয়, দেশের বাইরে যখন যাই; তখন যে ভালোবাসা পাই তা, দেখে আমি মাঝে মাঝে বিস্মিত হইÑ মুগ্ধ হই। নিশ্চয়ই আল্লাহর রহমত আছে বলেই তা সম্ভব হয়েছে।

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More