বড় ধরনের সংঘর্ষ থেকে রক্ষা পেল এলাকাবাসী নবীগঞ্জে সার্কেল এএসপির উদ্যোগে বেরী বিল নিয়ে দু’পক্ষের বিরোধ নিষ্পত্তি

90
gb

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥

নবীগঞ্জ উপজেলার সুজাপুর বেরী বিল নিয়ে দু’পক্ষ মূখোমুখি অবস্থানে ছিল দীর্ঘদিন ধরে। বড় ধরনের সংঘষের্র আশংকায় ছিলেন এলাকাবাসীও। এ অবস্থায় নবীগঞ্জ-বাহুবল সার্কেলের সিনিয়র এএসপি পারভেজ আলম চৌধুরীর উদ্যোগে দু‘পক্ষের দীর্ঘ দিনের বিরোধ নিষ্পত্তি করা হয়েছে। ফলে বড় ধরনের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের হাত থেকে রক্ষা পেয়েছেন স্থানীয় লোকজন।
স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, উপজেলার বাউসা ইউপির সুজাপুর বেরী বিল নামক জলমহালটির ২৯ সদস্য বিশিষ্ট একটি মৎস্যজীবি সমিতি সম্প্রতি দু‘ভাগে বিভক্ত হয়ে যায়। ওই গ্রামের আব্দুল লতিফ ও তার বড় ভাই আব্দুল জলিলসহ ২২ সদস্য একপক্ষে এবং কনা মিয়াসহ ৬ সদস্য আরেক পক্ষে অবস্থান করেন। ফলে দু‘পক্ষের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিল। সম্প্রতি উভয় পক্ষই বিল ফিসিংয়ের জন্য খলা ঘর তৈরী করে মাছ ধরার জালসহ সরঞ্জামাধি তৈরী করেন। এদিকে সমিতির ৬ সদস্যের পক্ষে কনা মিয়া বাদী হয়ে হবিগঞ্জের বিজ্ঞ আদালতে ১৪৪ ধারায় মামলা দায়ের করেন। আদালত আইনশৃংখলা রক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য নবীগঞ্জ থানার ওসিকে নিদের্শ প্রদান করেন। এরই প্রেক্ষিতে গত মঙ্গলবার পুলিশ উভয় পক্ষকে জলমহাল ফিসিংয়ে বিরত থাকাসহ আইনশৃংখলা রক্ষা রাখার জন্য নোটিশ প্রদান করেন। এরপর থেকেই বেরী বিল পাড়ে অবস্থিত সুজাপুর গ্রামে উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। চরম উৎকন্ঠার মধ্যে সময় পাড় করেন গ্রামবাসী। বিভক্ত সমিতির লোকজন মূখোমুখি অবস্থান করেন। এতে বড় ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনার আশংকায় ছিলেন এলাকাবাসী। এ নিয়ে বিভিন্ন পত্রিকায় ফলাও করে সংবাদ প্রকাশ হয়। এ অবস্থায় বিষয়টি সমাধানের উদ্যোগ নেন নবীগঞ্জ-বাহুবল সার্কেলের সিনিয়র এএসপি পারভেজ আলম চৌধুরী। বিরোধটি নিষ্পত্তির লক্ষ্যে গতকাল শনিবার বিকেলে নবীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আজিজুর রহমান ও সেকেন্ড অফিসার এস আই শামসুল ইসলামের সহযোগীতায় সার্কেল এসএসপির অফিসে উভয় পক্ষকে নিয়ে বৈঠকে বসেন। বৈঠকে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানসহ এলাকার সালিশ বিচারক ও মুরব্বিয়ানবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে উভয় পক্ষ (সমিতির ২৯ জন) মিলে জলমহাল ফিসিং করে লভ্যাংশ সমান ভাগে ভাগ করে নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়। পুলিশের হস্তক্ষেপে বিষয়টি নিষ্পত্তি হওয়ায় এলাকার পরিস্থিতি এখন স্বাভাবিক। স্থানীয় লোকজনের সাথে আলাপ হলে তারা জানান, বড় ধরনের সংঘর্ষের ঘটনার আশংখ্যায় ছিলেন তারা। পুলিশের উদ্যোগে বিরোধ নিষ্পত্তি হওয়ায় এলাকার পরিবেশ এখন শান্ত। পুলিশ প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানান এলাকাবাসী।

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More