বিশ্বনাথের বিষ্ণুপুর ধামে পুনঃনির্বাচন দাবী

25
gb

বিশ্বনাথ প্রতিনিধি::

সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার দশঘর ইউনিয়নের শ্রী শ্রী বৈষ্ণব রায়ের সিদ্ধ বকুলতলা বিষ্ণুপুর ধাম- জীবনপুরের নির্বাচন নিয়মতান্ত্রিক, গঠনতন্ত্র ও মৌখিক গঠনতন্ত্র অনুযায়ী হয়নি দাবী করে তা বাতিলপূর্বক পুনরায় নির্বাচন দেয়ার আবেদন জানানো হয়েছে। গত ২রা জুন শ্রী শ্রী বৈষ্ণব রায়ের সিদ্ধ বকুলতলা বিষ্ণুপুর ধাম-জীবনপুরের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সভাপতি শান্ত গোস্বামীর কাছে সনাতন ধর্মীয় ভক্তবৃন্দের পক্ষে এই আবেদন করেন সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার মীরপুর ইউনিয়নের লহরী গ্রামের জিতেন দেবনাথ। আবেদনে তিনি উল্লেখ করেন, গত ৩১ মে বিষ্ণুপুর ধামের পরিচালনা কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ায় নতুন কমিটি গঠনের ল্েয সর্বসাধারণের উপস্থিতিতে সভার কার্য্য শুরু হয় । নির্বাচন পরিচালনা করার জন্য ন্যূনতম তিন সদস্য বিশিষ্ট কমিটি প্রয়োজন হলেও সভায় নজিরবিহীনভাবে একটি পরে একজন সভাপতি দ্বারা এক সদস্য বিশিষ্ট নির্বাচন পরিচালনা কমিটি গঠন করা হয়। নির্বাচনে অন্য কোনো প্রার্থী না থাকায় সভাপতি পদে অ্যাডভোকেট প্রহল্লাদ চন্দ্র দে’কে সর্বসম্মতিক্রমে নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়। সাধারণ সম্পাদক পদে তিনজন ও কোষাধ্য পদে চার জন প্রার্থী থাকায় সমঝোতার ভিত্তিতে একটি পদের জন্যে একজন করে নাম দেয়ার জন্যে পাঁচমিনিট সময় দেয়া হয়। কিন্তু তারা ব্যর্থ হওয়ায় সাবজেক্ট কমিটি গঠন করা হয় । সাবজেক্ট কমিটিতে বিভিন্ন এলাকার নিরপে ব্যক্তিদের নিয়ে কমিটি গঠনের বাধ্যবাদকতা থাকাসত্ত্বেও একটি মহলের পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী একজন করে সাত জনের নাম ঘোষণা করা হয়। একই সাথে অন্যান্য সদস্যের নিকট হতে আরও নাম ঘোষণা করা হলে সাত জনের নাম হয়ে গেছে জানিয়ে আর কোনো নাম না নেয়ার কথা বললে সাবেক ও নবনির্বাচিত সভাপতি তার প্রতিবাদ জানিয়ে বিভিন্ন এলাকা হতে সাবজেক্ট কমিটিতে সদস্য নেওয়ার পে মত দেন । কিন্তু তার কথায় কর্ণপাত না করে তাদের পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী বিশ্বনাথ থানা হতে পাঁচজন সদস্য এবং সিলেট হতে এক জন ও জগন্নাথপুর থানা হতে একজন নিয়ে সাত সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয় । প্রকৃতপক্ষে কেউই জগন্নাথপুরের স্থায়ী বাসিন্দা নন। আবেদনে সাবজেক্ট কমিটি ঘোষিত সাধারণ সম্পাদক ও কোষাধ্য পদ বিলুপ্তি করে নিয়মতান্ত্রিকভাবে যোগ্যতা সম্পন্ন ব্যক্তিগণ দ্বারা একটি নতুন সাবজেক্ট কমিটি গঠন করে ধাম কমিটি গঠনে পুনরায় নির্বাচন দেয়ার অনুরোধ জানানো হয়। আবেদন পাওয়ার কথা স্বীকার করে নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সভাপতি শান্ত গোস্বামী বলেন, নির্বাচিত সভাপতি দেশের বাইরে আছেন। তিনি ফিরে আসার পর সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

gb
মন্তব্য
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More