লন্ডনে ক্রিকেট দলকে বাংলাদেশ হাইকমিশনের সংবর্ধনা

131

জিবি নিউজ ডেস্ক।।

বিশ্বকাপ ক্রিকেটে খেলতে আসা বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে সংবর্ধনা দিয়েছে যুক্তরাজ্যস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশন। অতিরিক্ত ঝামেলা এড়াতে লন্ডনে বদলে কিছুটা দূরে কার্ডিফের রাজধানী ওয়েলসে অনুষ্ঠিত সংবর্ধান অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয় বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় বিকেলে ওয়েলস ন্যাশনাল এসেম্বলী হলে।
উক্ত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ হাইকমিশন মনোনিত কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ, সাংবাদিকসহ ‘টাইগার’দের অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানাতে ছুটে এসেছিলেন ব্রিটিশ ফরেন অফিস প্রতিনিধি, ওয়েলসের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক মিনিষ্টার, ওয়েলস ন্যাশনাল এসেম্বলী মেম্বারসহ ব্রিটেনের বাংলাদেশী কমিউনিটির শীর্ষস্থানীয় ব্যক্তিবর্গ। টাইগারদের উৎসাহ দিতে উপস্থিত হয়েছিলেন বাংলাদেশ সরকারের পররাষ্ট্র বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম।
অনুষ্ঠানে ক্রিকেটারদের স্বাগত জানিয়ে ব্রিটেনে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাই কমিশনার সাইদা মুনা তাসনিম ‘টাইগার’দের বাংলাদেশ জাতীয় গৌরব আখ্যায়িত করে বলেন, ‘বিশ্ব ক্রিকেট মাঠে ‘টাইগার’দের দাপুটে অবস্থান পুরো জাতিকেই আন্দোলিত করে। এবারের বিশ্বকাপে ব্রিটেনের ক্রিকেট গ্রাউন্ডে টাইগারদের এই দাপুটে উপস্থিতি দিয়েই ২০২১ সালে ব্রিটেন-বাংলাদেশের পারস্পরিক সম্পর্কের অর্ধ শতাব্দি উদযাপন শুরু হলো, এমন মন্তব্য করেন হাই কমিশনার। ক্রিকেটসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে দু-দেশের সাম্প্রতিক পারস্পরিক ঘনিষ্ট সম্পর্কের কথা উল্লেখ করে হাই কমিশনার বলেন, ব্রিটেন-বাংলাদেশের এই সম্পর্কের ভিত্তি ঐতিহাসিক, যার শুরু একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে ব্রিটেনের জনগনের সহযোগিতার মধ্য দিয়ে। তিনি আইসিসিতে বাংলাদেশ টিমের অন্তর্ভূক্তি থেকে শুরু করে ‘টাইগার’দের সাম্প্রতিক সাফল্যের সংক্ষিপ্ত বর্ণনা দিয়ে বলেন, বাংলাদেশের সুখ-দুঃখের সাথি ব্রিটেনকেও আমরা ক্রিকেট বিশ্বে ‘টাইগার’দের সাম্প্রতিক সাফল্যের অংশিদার হিসেবে দেখি।

ওয়েলসের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক মন্ত্রী এলুউন্ড মরগান বাংলাদেশ টিমকে কার্ডিফে স্বাগত জানিয়ে বলেন, ক্রিকেট বিশ্বের উদিয়মান নক্ষত্র ‘টাইগার’দের বড় শক্তি তাদের সমর্থক গোষ্ঠি। ওয়েলসেও এই গোষ্ঠির বিরাট একটি অংশের বসবাস। তিনি বলেন ‘টাইগার’ সমর্থক এই গোষ্ঠি নিশ্চয়ই আগামী খেলায় কার্ডিফের ক্রিকেট গ্যালারি মাতাবে। তিনি বিশ্বকাপ ক্রিকেটে ইংল্যান্ড-বাংলাদেশ দুদলেরই সাফল্য কামনা করেন।
ব্রিটিশ ফরেন এন্ড কমনওয়েলথ অফিসের দক্ষিন এশিয়া বিভাগের প্রধান ফার্গুস অল্ড তাঁর বক্তৃতায় ব্রিটেন-বাংলাদেশের পারস্পরিক ঘনিষ্ট সম্পর্কের কথা উল্লেখ করে বলেন, ক্রিকেটও দুদেশের আরেকটি সেতুবন্ধন। বাংলাদেশের বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্রিটেনের সহযোগিতার কথা পুনরুল্লেখ করে তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক বিভিন্ন ইস্যুতে দু-দেশের ঐক্যমতের পরিধি অনেক বিশাল। বিশ্বকাপে নিজ দল ইংল্যান্ডকে পাশে রেখে ‘টাইগার’দের জন্য একক সাফল্য কামনা তাঁর জন্য খুবই কঠিন, মজা করে এমন কথাও বলেন ব্রিটিশ ফরেন অফিস প্রতিনিধি। বলেন, ‘দু-টিমের জন্যই আমার শুভ কামনা।’

বাংলাদেশের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম ‘টাইগার’দের বাংলাদেশের গর্বের ধন হিসেবে আখ্যায়িত করেন।
বাংলাদেশ টিমের ক্যাপ্টেন মাশরাফি বিন মর্তুজা এমপি তাঁর বক্তৃতায় এ পর্যন্ত ক্রিকেটে ‘টাইগার’দের অর্জনগুলোর কথা জানান সবাইকে। বলেন, বাংলাদেশের ১৭ কোটি মানুষের দোয়া আছে বলেই এগিয়ে যাচ্ছে তাঁর টিম। তাদের সম্মানিত করায় বাংলাদেশ হাই কমিশনের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান তিনি।
ন্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, অনুষ্ঠানের হোষ্ট ওয়েলস এসেম্বলী মেম্বার জুলিয়া মরগান ও বিসিসি, ইউকের প্রেসিডেন্ট নঈমুদ্দিন রিয়াজ।

উল্লেখ্য, শনিবার কার্ডিফে স্বাগতিক ইংল্যান্ডের মুখোমুখি হবে ‘টাইগার’রা।