প্রবাসীর জায়গা সম্পত্তি দখলের অভিযোগ: লন্ডনে সংবাদ সম্মেলন

269
gb

 ছবি সাজু নামে বাংলাদেশে প্রবাসীর জায়গা সম্পত্তি দখল ও জানমালের নিরাপত্তা হুমকি স্বরুপ উল্লেখ করে লন্ডনে সংবাদ সম্মেলেন করেছেন পূর্ব লন্ডনের ইলফোর্ডের বাসিন্দা সাজু আহমদ। ২১ নভেম্বর বুধবার পূর্ব লন্ডনের ব্রিকলেইনের একটি রেস্টুরেন্টে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান সিলেটের বিশ^নাথ উপজেলার দশঘর গ্রামে তার পৈতৃক বসতভিটা রয়েছে। আনুমানিক ৪ একর ভ‚মির ওপর প্রতিষ্ঠিত বসতবাসীসহ জায়গা সম্পত্তি একই গ্রামের আবুল হুসেন মেম্বার দখল করে আছেন। তিনি তার পৈত্রিক সম্পত্তি উদ্ধারে সরকারের সহযোগিতা কামনা করেছেন। অন্যদিকে বাংলাদেশে আবুল হোসেন মেম্বারের সাথে ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি এই অভিযোগ প্রত্যাখান করে বলে এগুলি পারিবারিক সমস্যা আলাপ আলোচনার মাধ্যমেই সব কিছুর সমাধান হবে। তিনি কারো সম্পত্তি দখল করে রাখেননি। এদিকে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে সাজু আহমদ জানান, তার দেশের বাড়ী বিশ^নাথ উপজেলার দশঘর গ্রামে। সেখানে তার পৈতৃক বসতভিটা রয়েছে। বসতবাড়ি আনুমানিক ৪ একর ভ‚মির ওপর প্রতিষ্ঠিত। দশঘর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পূর্বদিকে অবস্থিত তাদের বাড়িটি স্থানীয়ভাবে স্কুলবাড়ি নামে পরিচিত। দেশে স্থানীয়ভাবে বাড়িতে না থাকায় তাদের কর্মচারী হিসেবে একই গ্রামের ডিজন মালাকার, (পিতা দিরু মালাকার) বাড়িটি দেখাশোনা করে আসছে। দীর্ঘদিন যাবত অত্যন্ত নিরাপদে তাদেরর সম্পত্তি ভোগাধিকার করে আসছিলেন। কিন্তু বর্তমানে একটি কুচক্রী মহলের নজর তাদের বিষয় সম্পত্তির উপর পড়েছে। বিগত ৮ ফেব্রæয়ারী ২০১৮ তিনি দেশে গেলে সেখানে তার বাড়ির জায়গা জমি জরিফ করতে চাইলে স্থানীয় আবুল হোসেন মেম্বার বাঁধা প্রদান করেন। এছাড়া আরো দুটি স্থানে দাগ নাম্বার ৮০০২, ৭৮৩৪, ৭৮৩১, ৭৮৩২ ও খতিয়ান নাম্বার ১৬৭৯, ৬৬৭, ৬০০, ৬০০, এ সকল দাগ মিলে সর্বমোট ৭১ শতক জমি প্রায় ২০ বছর থেকে জবর দখল করে আছেন বলে অভিযোগ করন সাজু আহমদ। তিনি বলেন তার বাড়ীর অগণিত সুপারি, নারিকেল ও অন্যান্য ফলজবৃক্ষ এবং একাধিক মৎস্য ভর্তি পুকুর রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী নির্দেশিত একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প অনুসরণ করে দীর্ঘদিন যাবৎ তাদের বাড়িতে বিভিন্ন কৃষিজ পন্যাদি উৎপাদনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। এমতাবস্থা গত ১৭ অক্টোবর ২০১৮ইংরেজি তারিখে সকাল ১১টার সময় স্থানীয় আবুল হুসেন মেম্বার (৫৫), পিতা মৃত নওয়াব আলী, দশঘর, বিশ^নাথ, তার পুত্র আমজাদ হুসেন (২১), বাচ্চু (৫০) পিতা অজ্ঞাত, (তাদের সকলের একই ঠিকানা) সহ অজ্ঞাত আরো ১০ জন ব্যক্তি দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র দ্বারা সজ্জিত হয়ে তাদের বাড়িতে প্রবেশ করে এবং তার কর্মচারী ডিজন মালাকারকে হুমকি দিয়ে চাঁদা দাবি করে। ডিজন মালাকার প্রতিবাদ করলে উপল্লেখিত ব্যক্তিবর্গ তাকে শারীরিকভাবে লাঞ্চিত করে এবং তাকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি রেখে বৃক্ষাদি থেকে সুপারি, নারকেল ও পুকুরে জাল ফেলে মাছ নিয়ে যায়। প্রায় দুই ঘন্টা যাবত তান্ডবের মাধ্যমে তিনটি ভ্যানগাড়ি লক্ষাধিক টাকার মালামাল নিয়ে পালিয়ে যায়। এমতাবস্থা ডিজন মালাকার উপায়ন্ত না দেখে প্রতিবাদ করতে থাকে আবারো তাকে শারীরিকভাবে লাঞ্চীত করে। । এই ঘটনার পর থেকে প্রাণভয়ে ভীত ডিজন মালাকার তাদের বাড়িতে যেতে পারছে না। এমতাবস্থা তার বাড়ির এলাকা একটি ভীতিকর পরিস্থিতির বিরাজ করছে। সম্প্রতি একাধিকবার তারা বিভিন্ন নাম্বার থেকে তার লন্ডনের ফোনে ফোন করে হুমকি দিয়ে যাচ্ছে। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন প্রবাসীরা এখান থেকে বহু কষ্টের মাধ্যমে উপার্জিত বৈদেশিক মুদ্রা স্বদেশে প্রেরণের মাধ্যমে দেশের উন্নয়নে ভ‚মিকা রেখে আসছি। এরপরও আমাদের জানমাল হুমকির সম্মুখীন। তিনি বলেন, আবুল হুসেন মেম্বার বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) দশঘর ইউনিয়ন শাখার সভাপতি হওয়ায় রাজনৈতিক বিভিন্ন মুখী প্রভাব খাটিয়ে সে স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনকে নিষ্ক্রিয় করে রাখছে। গত ১০ বছর যাবত ইউনিয়নের কোন নির্বাচন না হওয়ায় এবং ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ইলিয়াস গুমের আন্দলনে জড়িত থাকায় দেশ ছেড়ে লন্ডনে চলে আসেন। তারপর মেম্বার আবুল হুসেন ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করে আসছে। এই উদ্ভুত পরিস্থিতিতে একজন প্রবাসী বাংলাদেশীর জান মালের হেফাজতের করতে সরকারের প্রতি আহবান জানান। অন্যদিকে বাংলাদেশে ফোনে আবুল হোসেন মেম্বার জানান, সাজু আহমদ তার চাচাত বোনের ছেলে। দীর্ঘদিন যাবত তার জায়গা সম্পত্তি তিনি দেখাশুনা করলেও দখল করে রাখেননি। সে দেশে গেলে নিজ বাড়ীতে সম্পত্তি ভোগদখল করে। বর্তমানে সাজু আহমদের চাচাত ভাইদের সাথে সম্পত্তি নিয়ে বিরোধ সৃস্টি হলে আমি তা মিমাংশার উদ্যোগ নিয়ে সে আমার উপর ক্ষেপে যায়। এছাড়া সাজু আহমদ হিন্দু সম্প্রদায়ের সম্পত্তি দখলেরও চেস্টা করছে বলে অভিযোগ করেন আবুল হোসেন মেম্বার। মিসবাহুল উলুম মাদ্রাসা ডেভেলপমেন্ট এসোসিয়েশনের বিশেষ সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত ছবি মিসবাহুল উলুম বিশ্বনাথ ও ওসমানীনগর উপজেলার সীমান্তবর্তী কাহির ঘাট এলাকার ইসলামি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান মিসবাহুল উলুম মাদ্রাসা ডেভেলপমেন্ট এসোশিয়েশন ইউকের বিশেষ সাধারন সভা গত ১৯ শে নভেম্বর সোমবার পূর্ব লন্ডনের ব্রিকলেইনের একটি রেস্টুরেন্টে অনুষ্ঠিত হয়। সংগঠনের সভাপতি সভাপতি কয়ছর আলীর সভাপতিত্বে এবং সাধারন সম্পাদক সৈয়দ তাজির উদ্দিন মান্নানের পরিচালনায় সভার শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন সৈয়দ বদরুল ইসলাম। সভায় যুক্তরাজ্যে বসবাসরত অত্র এলাকার বিশিষ্ট ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন । কাহির ঘাট মিসবাহুল উলুম মাদ্রসার উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখার জন্য উপস্থিত সকলে সংগঠনের আজীবন সদস্যপদ ফরম পুরন করে কার্যকরী কমিটির কাছে হস্তান্তর করেন। সভায় সংগঠনের প্রাথমিক সংবিধান উপস্থাপন করেন সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ তাজির উদ্দিন। এসময় ব্যাপক আলাপ আলোচনার পর তা সর্বসম্মতি ক্রমে গৃহিত হয় । উক্ত সভার আলোচনায় অংশ গ্রহন করেন, আব্দুল কাইয়ুম, মো: মশাহিদ মিয়া, মরতুজা মিয়া, মৌলানা শাহ রেদওয়ান আহমদ, আব্দুল হক , সৈয়দ আফরুজ মিয়া, রেজওয়ান খান , সৈয়দ ফারুক কামাল, আব্দুল রকিব, মো: বশর উল্যাহ, মসুদ আহমদ, আলহাজ খালিছুর রহমান, শামীমআহমদ, নিজাম উদ্দিন, কনর মিয়া,আনা মিয়া প্রমুখ ।