Bangla Newspaper

বিশ্ব নবী হযরত মোহাম্মদ মোস্তফা (সা:) এর পৃথিবীতে আগমন উপলক্ষে বৃষ্টল সেন্ট্রাল মসজিদে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা:) পালিত হয়েছে

38

খায়রুল আলম লিংকন (বৃষ্টল,ইউ কে): বিশ্ব নবী হযরত মোহাম্মদ মোস্তফা (সা:) এর পৃথিবীতে আগমন উপলক্ষে বৃষ্টল সেন্ট্রাল মসজিদে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা:) উপলক্ষে প্রতিবছরের মতো এবছরও ওয়াজ মাহফিল ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়েছে.
মসজিদ কমিটির সভাপতি আব্দুর রাজিক এর সভাপতিত্বে ও মসজিদের খতিব মুফতি হাফিজ মাওলানা ঈকরাম ঊদ্দিন এর পরিচালনায় সভার শুরুতে পবিএ কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন নতুন প্রজন্মের প্রতিনিধি মোহাম্মদ এহসানুর রহমান. মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসেবে ওয়াজ ফরমান হযরত মাওলানা শফিকুর রহমান বিপ্লবী, প্রধান বক্তা হিসেবে মিলাদুন্নবীর তাৎপর্য্য তুলে ধরেন লজ কজওয়ে মসজিদের খতিব হযরত মাওলানা ইরফান জালালী.
এ সময় বক্তারা বলেন, আল্লাহর রাসুল ছিলেন বিশ্ববাসীর জন্য রহমত। তাই তার পূর্ণাঙ্গ অনুসরণ ও অনুকরণের মাধ্যমে প্রকৃত মুমিন হওয়া আমাদের ঈমানী দায়িত্ব.আনুমানিক পনের শত বছর পূর্বে ৫৭০ খ্রিস্টাব্দে রবিউল আওয়াল মাসে এ পৃথিবীতে আগমন করেছিলেন ইসলাম ধর্মের প্রবর্তক বিশ্ব মানবতার মুক্তির দূত বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ মোস্তফা (স:)। তার আগমনের এই মাসে বিশ্বের ধর্মপ্রাণ মুসলমানগণ উদযাপন করে থাকেন ঈদে মিলাদুন্নবী মাহফীল।
কোরআন মজিদের ৩য় পারা সুরা আলে এমরানে ৮১-৮২ নং আয়াতে মধ্যে আল্লাহতায়ালা মিলাদুন্নবী মাহফিলের কথা উল্লেখ করেছেন | নবীজীর সম্মানে এটাই ছিল প্রথম মিলাদ মাহফিল এবং মিলাদ মাহফিলের উদ্যোগ্ক্তা ছিলেন স্বয়ং আল্লাহ তায়ালা | সুতরাং মিলাদে মাহফিল আনুষ্ঠান হচ্ছে আল্লাহর সুন্নত বা তরিকা |
মিলাদুন্নবী পবিত্র কোরআন দ্বারা প্রমানিত তাই এ নিয়ে বিতর্ক করার কোন অবকাশ নেই.
বর্তমানে আমাদের সমাজে রাসুল (সাঃ) বিদ্বেষী একদল মুনাফেক মুসলমানের
আবির্ভাব ঘটেছে। কোরআন হাদিসের জ্ঞানশুন্য মুর্খ থেকে শুরু করে লেবাসধারী আলেম উলামা পীর মাসায়াখেরা পর্যন্ত বলে এবং বেদাতের ফতুয়াবাজি করে যে, মহাপবিত্র ঈদুল আজম “ঈদে মিলাদুন্নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম” নাকি কোরআন হাদিসে নাই ? মুর্খ মুনাফেকদের এই মিথ্যাচারের দাতভাঙ্গা জবাব হিসেবে পবিত্র কুরআনুল কারীমের সুরা আলে ইমরানের ১০৩ নং আয়াতে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন এরশাদ করেন,
”তোমাদেরকে যে নিয়ামত দেওয়া হয়েছে তার জিকির কর এবং খুশি কর|আল্লাহ পাক পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফের সুরা ইউনুসের ৫৮ নং আয়াতে এরশাদ করেন,
অর্থাৎ হে রাসুল আপনি বলুন আল্লাহর দয়া ও রহমতকে কেন্দ্র করে তারা যেন আনন্দ করে এবং এটা হবে তাদের অর্জিত সকল কর্মফলের চেয়েও অধিক শ্রেষ্ঠ |
এ পৃথিবীতে যত নেয়ামত রয়েছে বা এসেছে এর চেয়ে সবচেয়ে বড় নেয়ামত হচ্ছে হাবিবুল্লাহ হুজুর পাক
সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম | আল্লাহর এই নেয়ামত ও অনুগ্রহকে কেন্দ্র করে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা ও আনন্দ উদযাপন করার নির্দেশ স্বয়ং রাব্বুল আলামিন দিয়েছেন
যার প্রমান উপরোক্ত পবিত্র কোরআনের আয়াত |অতএব নবীজির শুভাগমনের চেয়ে শ্রেষ্ঠ নেয়ামত আর কি হতে পারে ?

মাহফিলে অন্যান্যদের মধ্য উপস্থিত ছিলেন মসজিদ কমিটির সহ-সভাপতি মাসুক মিয়া,
সাবেক সভাপতি শফিকুর রহমান চৌধুরী, বৃষ্টল বাংলা প্রেসক্লাব সভাপতি কামরুল ইসলাম,বাংলাদেশ হাউজ সভাপতি ফকরুল আলী, সহ-সভাপতি চমক আলী,
মখলিছ আলী,ছমরুল হক ,হাবিবুর রহমান,আঙ্গুর আলম , আব্দুল হামিদ,মোবারক আলী সহ বিভিন্ন কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ.
বিশ্ব মুসলিমের মুক্তি ও কল্যানের জন্য বিশেষ দোয়ার মাধ্যমে ওয়াজ মাহফিলের সমাপ্তি ঘোষনা করা হয়.

Comments
Loading...