গোপালগঞ্জে ভিজিএফের চাল ওজনে কম প্রতিবাদ করায় মেম্বারকে পেটাল চেয়ারম্যানের লোকজন!

191
gb

এম আরমান খান জয়,গোপালগঞ্জ :

গোপালগঞ্জে ঈদের ভিজিএফের চাল ওজনে কম দেয়ার প্রতিবাদ করায় চেয়ারম্যানের লোকজন ইউপি সদস্য লাসমত সরদারকে মারপিট করার অভিযোগ উঠেছে। শনিবার (১৮ আগস্ট) সকাল ১০ টার দিকে গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার পাইকান্দি ইউনিয়নে এ ঘটনাটি ঘটেছে। লাসমত সরদার ওই ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ড মেম্বার। অভিযোগ পেয়ে দুপুরে গোপালগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা. শাম্মী আকতার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। লাসমত সরদার অভিযোগ করে বলেন, ঈদ উপলক্ষে পাইককান্দি ইউনিয়নের দুঃস্থ ১ হাজার ৪ শ’ ৪ পরিবারে ২০ কেজি করে ভিজিএফের চাল বরাদ্দ দেয় সরকার। শনিবার সকালে ইউনিয়ন পরিষদ ভবনে ইউপি চেয়ারম্যান শাহজাহান সিকদার চাল বিতরণ শুরু করেন। বিতরণকৃত চাল দেখে ওজনে কম দেয়া হচ্ছে বলে আমার সন্দেহ হয়। আমি দুঃস্থ এক মহিলার চাল পরিমাপ করে ২০ কেজির স্থলে ১৩ কেজি পাই। এ সময় প্রত্যেককেই ১৩/১৪ কেজি করে চাল দেয়া হচ্ছিল। বিষয়টি আমি গোপালগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে অবহিত করি। এতে চেয়ারম্যানের লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে আমাকে মারপিট করে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ঘটনাস্থলে আসলে সকালের তুলনায় প্রত্যেকে ৩/৪ কেজি চাল বাড়িয়ে বিতরণ করা হয়। তারপরও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা চাল পরিমাপ করে ওজনে ৩ কেজি করে কম পান। আমাকে মারপিটের ব্যাপারে আমি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আইনের আশ্রয় নিয়ে গোপালগঞ্জ সদর থানায় একটি সাধারন ডায়েরি করেছি । অভিযুক্ত পাইককান্দি ইউপি চেয়ারম্যান শাহজাহান সিকদার ভিজিএফের চাল ওজনে কম দেয়ার কথা অস্বীকার করে বলেন, ওই ইউপি মেম্বার তার ওয়ার্ডে ১ শ’ ৫০ টি ভিজিএফ কার্ড দাবি করে। কিন্তু তাকে ৮০ টি কার্ড দেয়া হয়। তাকে কার্ড কম দেয়ায় তিনি ক্ষিপ্ত হন। আজ চাল বিতরণের সময় ওজনে কম দেয়া হচ্ছে বলে মিথ্যা অভিযোগ করেন। সকালে জোর করে এক মহিলার চাল সে মাপতে গেলে ওই মহিলার স্বজনরা তাকে ইউপি পরিষদের বাইরে চড় ধাপ্পড় মেরে লাঞ্ছিত করেছে বলে শুনেছি। আমি কিংবা আমার লোকজন তাকে মারপিট করেনি। আমাদের বিরুদ্ধে মেম্বারের আনিত মারপিটের অভিযোগ মিথ্যা ও বানোয়াট। গোপালগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা. শাম্মী আকতার বলেন, আমি অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। চাল ওজনে কম দেয়ার সত্যতা পেয়েছি। বিতরণকৃত চাল পরিমাপ করে ২০ কেজির স্থলে ১৭ কেজি পেয়েছি। এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে ইউপি মেম্বারকে মারপিটের কথা শুনেছি।