ঐতিহাসিক সাতই মার্চ

585
gb

মোহাম্মদ আমজাদ হোসেন ভূইয়া  ||

শোন সবে বলছি এবার-                                                                                
কি ঘটেছে একাত্তুরের অগ্নিঝরা মার্চ মাসেরই সাত তারিখে,                                                                                                                      
জেনে রেখো জাতির ললাট উজ্জল হলো ঐ দিনেতে এই নিরীখে।                                             
সোহরোয়ার্র্দীর সেই উদ্দ্যানে জনে জনে জনারন্য হয়ে ছিল,                                                   
বাঁধ না মানা জন¯্রােতে কৃষক শ্রমিক ছাত্র যুবার ঐ মিছিলে।

সকাল হতে জনতার ঢল মিছিল লয়ে চারিদিক থেকে দলে দলে ,                                                                                         
এক হয়েছিল একই সুরে একই ডোরে, একই বাঁধন এক সাধনে।                                                                                                          
বঙ্গ বন্ধুর ছয় দফা আর এগার দফার ঢাকের তালের আওয়াজ শুনে,                                                                                                             
আসছে মানুষ বানের স্রোতে রাজপথ ধরে  মিছিল করে দূর দমনে। 

আসছে কারা শুনবে কারা স্বাধীনতার স্বাধ পেতে যারা পাগলপাড়া,                                                                                                                  
দেশের তরে দশের তরে জাতির হয়ে পন করেছে দিবানিশী।                                                                                                               
চোখের তাঁরায় ঝিঁকিমিকি আলো জ্বলে নতুন গানের ছন্দ তালে,                            
তালে তালে তাল মিলিয়ে স্বাধীনতার হাওয়া লেগেছে নৌকোর পালে।

ভাবছে মানুষ গুনছে মানুষ এতোদিনে এতো মানুষ কোথায় ছিলো?                                                                                                       
বঙ্গবন্ধুর ডাক শুনে সব কেমন করে মনের জোরে জোর যে পেলো।                                                                                                                   
মিছিল আসে ¯্রােতের মত শ্লোগান তুলে আকাশ বাতাস মুখরিত,                                                                                                                    
তবুও মানুষ গুনছে প্রহর জাতির জনক আসবে কখন দিবে ভাষন অবিরত।

সাতই মার্চের রৌদ্রোজ্জল সেই মহেন্দ্রক্ষনে মুজিব এলো ঐ এলোরে,                                                                                                                 
দৃপ্ত পায়ে এগিয়ে এসে ফুলেল শোভা টেবিলে ঘেষে মনের জোরে।                                                                                                                     
ডাক দিয়েছেন সাহস করে ধৈর্য্য ধরে সবার পরে দেশ উপরে,                               
রাখবো সবাই উচিয়ে ধরে লাল সবুজ এর রঙিন পতাকা দেশের তরে।

আম জনতা সবাই শুনুন সবাই মিলে প্রতিজ্ঞা করুন হই একতা,                                                                                               
রক্ত দিয়েছি আরও দেবো মুক্ত করবো এই দেশ আর দেশ মাতাকে’।                                                                                               
ঘরে ঘরে প্রস্তুত রাখো বাঁশের লাঠি খুন্তি কুড়াল যার যা আছে,                                                        
দূর্গ তোল ঘরে ঘরে প্রতিরোধ করো, জুলুম বাজদের জুলুম ঠেকাও একই সাথে ।            
                                          
যদি বা আর আমার কথার আওয়াজ না পায় আম জনতায় জেনে রেখো,                                                          
এই ভাষনই আমার আদেশ এগিয়ে যাবে একমিছিলে দেশের টানে’                                                               
এ দেশ আমার এ দেশ তোমার কৃষক শ্রমিক মজুর চামার বীর বাঙালী ভাই বোনেরা,                                                                           
মন কারা এ বাণী শুনে স্বাধীনতার বার্তা পেয়ে এক হয়েছে আম জনতা মনে প্রানে। 
        
শেখ মুজিবের অমর বানী তাল পেয়েছে আরও জানি খুশীর নাঁচন দোলায় দোলে,                     
খুশীর তালে সবাই মিলে জোরে জোরে হাত তালিতে মন যে কারে।                                                                                                                    
সেই ভাষনই সত্য ভাষন ঐতিহাসিক হলো পরে জাতির তরে দেশের পরে ,                                                                                                                   
তারই ধারায় বিশ্ব বিবেক দিয়েছে নাড়ায়ে এ দেশ স্বাধীন, বিজয় এলো ডিসেম্বরে। 

বঙ্গব›ধুর মধুর সুরে উচ্চারিত কালজয়ী অমিয়বানী স্থান পেয়েছে আরও জানি,                                                                                
রেকর্ড হলো বিশ্ব খাতায় স্থান যে পেলো ইউনেস্কোর বাহুডোড়ে।                                                                                            
এই পৃথিবীর যত ভাষন ৭ই মার্চের শ্রেষ্ট ভাষন স্থান পেল যে এক কাতারে,                       
মুজিব তোমার শ্রেষ্ঠ ভাষন আসন পেল ঐতিহাসিক সব ভাষনের সাথে সাথে।