তাহিরপুরে নিরীহ পরিবারের উপর পল্লী চিকিৎসকের হামলায় নারীসহ আহত ৫

58
gb
1
সুনামগঞ্জ  প্রতিনিধি
সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার শ্রীপুর (উত্তর)ইউনিয়নে আতশবাজি ফোটানোকে কেন্দ্র করে পল্লী চিকিৎসকের হামলায় মহিলাসহ ৫জন আহত হয়েছে।
সোমবার(২৫,০৫,২০২০) রাত ৯ টার দিকে উপজেলার ১নং শ্রীপুর (উত্তর)ইউনিয়নের বালিয়াঘাট(বাদারঘড়)গ্রামে এই হামলার ঘটনা ঘটে। এঘটনার  মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।
স্থানীয়রা জানায়-সোমবার রাত ৯দিকে পল্লী চিকিৎসক রাজ্জাক ও তার ভাতিজা,জয়,রোকন,শান্ত,আলামিন ও সোহাগ মিয়া নিয়ে শাহ আলমের বসত ঘরের দরজার সামনে আতশবাজি ফোটায়। এতে শাহ আলম বিরক্ত হয়ে  নিষেধ করেন আতশবাজি ফোটাতে। তার কিছুক্ষণ পরেই বালিয়াঘাট(বাদারঘড়)গ্রামের রশিদ মিয়ার ছেলে পল্লী চিকিৎসক রাজ্জাক মিয়া(৩৫),নুরু মিয়া(৪২),কদ্দুস মিয়া(৩৭),শহিদ মিয়া(৩৯),নুরু মিয়ার ছেলে সুজন মিয়া(২৫),সোহাগ মিয়া(২১),শহিদ মিয়ার ছেলে আলামিন(২০) ও শান্ত মিয়া(১৮) একত্রিত হয়ে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে শাহ আলমের বসত ঘরে হামলা চালিয়ে ৫জনকে আহত করে ও বাড়ি-ঘর ভাংচুরসহ ৫০হাজার টাকা লুট করে নিয়ে যায়।
এতে গুরুত্বর আহতদের মধ্যে রেহেনা বেগমকে তাহিরপুর সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকী আহত শাহ আলম (৬৫),শাহ আলমের স্ত্রী রেহানা বেগম (৫৫),শাহ আলমের ২মেয়ে সাকিলা আক্তার(১৭) ও রাকিবা আক্তার(১০)কে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। কিন্তু পল্লী চিকিৎসক রাজ্জাক তার কয়েকজন লোক হাসপাতালে ভর্তি দেখিয়ে নিজের ফায়দা হাসিল করার জন্য।
তাহিরপুর থানার (ওসি)মোহাম্মদ আতিকুর রহমান জানান-খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রণ করে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। তবে পুনরায় সংঘর্ষ এড়াতে পুলিশ সতর্ক অবস্থানে রয়েছে।
এখন পর্যন্ত  পক্ষ কোন লিখিত অভিযোগ দায়ের  করে  নি।

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আপনি এটির সাথে ঠিক আছেন তবে আপনি চাইলে অপ্ট-আউট করতে পারেন Accept আরও পড়ুন