ওষুধ নেই, বিপাকে সিলেট সিটি কর্পোরেশন

219
gb

জিবিনিউজ24 ডেস্ক:

শীত মৌসুমে মশার উৎপাত বেড়ে যায় সাতাশটি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত সিলেট সিটি কর্পোরেশন এলাকায়। এসব ওয়ার্ডে মশার উৎপাত ঠেকাতে প্রয়োজন তিন হাজার লিটার ওষুধ ছিটানো। কিন্তু সিটি কর্পোরেশনের কাছে ওষুধের মজুদ একেবারেই নগণ্য। তিন হাজার লিটারের বিপরীতে আছে মাত্র ৪০ লিটার! ওষুধ না থাকায় মশা নিয়ে বিপাকে পড়েছে সিটি কর্তৃপক্ষ।

সিলেট নগরবাসী এখন মশার যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ। নগরীর প্রত্যেক পাড়া-মহল্লায় মশার উৎপাত। অথচ এ ব্যাপারে নগর কর্তৃপক্ষ যেন অনেকটাই উদাসীন। মশার উপদ্রব বাড়লেও নগরীর কোথাও ছিটানো হয়নি মশা নিধনের ওষুধ।

সিটি কর্পোরেশনের পরিচ্ছন্নতা শাখা সূত্রে জানা যায়, নগরীতে মশা নিধনের জন্য চাহিদার তিন হাজার লিটার ওষুধ তাদের কাছে নেই। মাস তিনেক আগে মশা নিধনের এক হাজার ৩০০ লিটার ওষুধ কিনতে দরপত্র আহবান করা হয়। তবে এখন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে ওষধু কেনা সম্পন্ন হয় নি।

সিটি কর্তৃপক্ষ বলছে, বর্তমান পরিস্থিতিতে ওই দরপত্রের বাইরেই চার লাখ টাকার ওষুধ কেনার সিদ্ধান্ত হয়েছে। কয়েক দিনের মধ্যেই এ ওষুধ কেনার প্রক্রিয়া শুরু হবে।

যেমনটি বলছিলেন সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এনামুল হাবীব, ‘সিটি কর্পোরেশনের কাছে মশা নিধনের ওষুধ কম থাকায় তাৎক্ষণিকভাবে চার লাখ টাকার ওষুধ কেনার সিদ্ধান্ত হয়েছে। কয়েক দিনের মধ্যেই ওষুধ কেনার প্রক্রিয়া শেষে নগরীতে তা ছিটানো শুরু হবে।’

মশা নিধনের জন্য ডিসেম্বরের মধ্যে আরও ৩৫ লাখ টাকার ওষুধ কেনার দরপত্র আহবান করা হবে বলেও জানিয়েছেন এই কর্মকর্তা।

এদিকে, নগরীতে মশার উৎপাত ঠেকাতে নালা-নর্দমা পরিচ্ছন্ন অভিযানও চালায়নি নগর কর্তৃপক্ষ। নগরীর বিভিন্ন ওয়ার্ডের বেশ কয়েকজন বাসিন্দা জানিয়েছেন, তাদের এলাকায় কোন পরিচ্ছন্ন অভিযান দেখতে পান নি।

এ ব্যাপারে সিটি কর্পোরেশনের পরিচ্ছন্নতা শাখার প্রশাসনিক কর্মকর্তা হানিফুর রহমান জানান, মশার প্রজননক্ষেত্র বিনষ্ট করতে খুব শিগগিরই নালা-নর্দমা পরিচ্ছন্নতা অভিযান শুরু হবে।