হারুনকে সরানোর একমাসেও এসপি পায়নি নারায়ণগঞ্জ

151
gb

জিবি নিউজ ২৪

চাঁদাবাজির অবিযোগ ওঠার পর পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ হারুন অর রশীদকে সরিয়ে আনার একমাসের বেশি সময় পার হলেও এখনও এসপি পায়নি নারায়ণগঞ্জ। গুরুত্বপূর্ণ এই জেলায় এসপি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মনিরুল ইসলাম।

চাঁদাবাজি এবং পারটেক্স গ্রুপের কর্ণধার এম এ হাশেমের ছেলে আম্বার গ্রুপের চেয়ারম্যান শওকত আজিজের স্ত্রী ও সন্তানকে জোর করে উঠিয়ে নেয়ার অভিযোগের মুখে গত ৩ নভেম্বর এক প্রজ্ঞাপনে এসপি হারুনকে নারায়ণগঞ্জ থেকে সরিয়ে পুলিশ সদরদপ্তরে পুলিশ সুপার (টিআর) হিসেবে বদলি করা হয়। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্ত করা হবে বলেও জানিয়েছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

এদিকে নারায়ণগঞ্জ থেকে এসপি হারুনকে সরিয়ে আনার পর একমাস পার হলেও জেলাটিতে এখনও পুলিশ সুপার দেয়া হয়নি। এ ব্যাপারে পুলিশ সদর দপ্তরের সহকারী মহাপরিদর্শক (মিডিয়া) মীর সোহেল রানা ঢাকা টাইমসকে বলেন, ‘এখনও পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জে এসপি হিসেবে কেউ যোগদান করেননি। সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) ভারপ্রাপ্ত এসপির দায়িত্ব পালন করছেন।

গত ১ নভেম্বর রাতে পারটেক্স গ্রুপের চেয়ারম্যান এম এ হাশেমের ছেলে শওকত আজিজ রাসেলের স্ত্রী ফারাহ রাসেল ও ছেলে আনাব আজিজকে বাসা থেকে তুলে আনার অভিযোগ ওঠে এসপি হারুনের বিরুদ্ধে। আরও অভিযোগ ওঠে শওকত আজিজ রাসেলকে ফাঁসানোর জন্য তার গাড়িতে মাদকদ্রব্য ও গুলি উদ্ধার করা হয়েছে বলে নাটক সাজান পুলিশের আলোচিত এই এসপি।

এরপর গত ৮ নভেম্বর নারায়ণগঞ্জ থেকে আনুষ্ঠানিক বিদায় নেন। বিদায় অনুষ্ঠানে কেঁদে কেঁদে হারুন বলেন, সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কাজ করতে গিয়ে তিনি সমালোচিত হয়েছেন। এটা তদন্তে বের হবে।

অন্যদিকে হারুনের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তে ঢাকা রেঞ্জের পক্ষ থেকে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। আর এসপি হারুনকে পুলিশ সদর দপ্তরে টিআর করে রাখা হলেও এখনও পর্যন্ত তাকে কোনও দায়িত্ব দেয়া হয়নি।

উল্লেখ্য, হারুন এক সময় ঢাকা মহানগর পুলিশে ছিলেন। তখন বিএনপি নেতা জয়নুল আবদিন ফারুকের ওপর হামলার ঘটনায় আলোচিত হন তিনি। গত জাতীয় নির্বাচনের আগে নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপারের দায়িত্ব পাওয়ার আগে কয়েক বছর গাজীপুরের পুলিশ সুপার ছিলেন। ওই জেলায় থাকার সময় গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে তার বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ তুলেছিল বিএনপি।