নকল করে ফার্স্ট হয়ে লাভ নেই: রাষ্ট্রপতি

65
gb

জিবি নিউজ ২৪

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, নকল করে ফার্স্ট ক্লাস ফার্স্ট হলেও কোনো লাভ হবে না। চাকরি পাওয়া যাবে না। সব পরীক্ষায় জিরো পেয়ে ফিরতে হবে। তাই ছাত্রছাত্রীদের ভালো করে অধ্যয়নের বিকল্প নেই। 

রোববার বিকেলে রাষ্ট্রপতি তার সাবেক নির্বাচনী এলাকার ইটনায় এক সুধী সমাবেশে এ কথা বলেন। কিশোরগঞ্জ জেলায় রাষ্ট্রপতির সপ্তাহব্যাপী সফরের পঞ্চম দিনে ইটনা সদরে অবস্থিত রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ সরকারি কলেজ মাঠে এই সুধী সমাবেশের আয়োজন করা হয়।

রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘আমি জীবনে ভালো করে সেকেন্ড ডিভিশনও পাইনি। আমি সব সময় থার্ড ডিভিশনে পাস করেছি। কিন্তু জীবনেও নকল করিনি।’

রাষ্ট্রপ্রধান বলেন, তিনি হাওরেও প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেছেন। প্রত্যেক ইউনিয়নে কোথাও একটি, কোথাও দুটি হাই স্কুল করেছেন। ইটনায় কলেজ করেছেন, যেখানে ১২০০-১৪০০ ছাত্রছাত্রী আছে। কিশোরগঞ্জের বিভিন্ন কলেজেও হাওর এলাকার অনেক ছাত্রছাত্রী আছে।

রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘শিক্ষার দিক থেকে আমরা অনেক এগিয়ে গেছি। কিন্তু গুণগত শিক্ষায় আমরা পিছিয়ে আছি। এ কারণে বিভিন্ন ধরনের চাকরির প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় কাঙ্ক্ষিত ফল আসে না। তাই ভালো করে লেখাপড়া করতে হবে।’

শিক্ষার্থীদের তিনি আরও বলেন, ইটনা, মিঠামইন ও অষ্টগ্রামে রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল তৈরি করা হবে। এখানে সব শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের হোস্টেলে থাকতে হবে। ক্যাডেট কলেজের আদলে এসব স্কুল করা হবে। রাষ্ট্রপতি হামিদ নিজ এলাকায় বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের বর্ণনা দিয়ে বলেন, চলমান প্রকল্পগুলো সম্পন্ন হলে হাওরের চেহারা সম্পূর্ণ পরিবর্তন হয়ে যাবে।

কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য রাষ্ট্রপতিপুত্র রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিকের সভাপতিত্বে সুধী সমাবেশে বক্তব্য দেন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জিল্লুর রহমান, রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ের সচিব সম্পদ বড়ূয়া, জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও পিপি শাহ আজিজুল হক, ইটনা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান চৌধুরী কামরুল হাসান, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা ইসমাইল হোসেন, রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ ইসলাম উদ্দিন, আওয়ামী লীগ নেতা বজলুর রহমান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি ওমর ফারুক প্রমুখ।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব মো. জয়নাল আবেদীন, জেলা প্রশাসক সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী, পুলিশ সুপার মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার), জেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন বাচ্চু প্রমুখ।

gb

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More