২ শ্রমিকের মৃত্যুতে থমথমে অবস্থা পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র

108
gb

জিবি নিউজ ডেস্ক।।

পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় নির্মাণাধীন পায়রা ১৩২০ মেগাওয়াট তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে দেশি-বিদেশী দুই শ্রমিকের মৃত্যুর ঘটনায় বুধবার সকল ধরনের কাজ বন্ধ রয়েছে।

এ ঘটনার পর সেখানে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ভেতরে বাইরে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে বিদুৎ প্রতিমন্ত্রী পায়রা তাপবিদ্যুত কেন্দ্র এলাকা পরিদর্শন করার কথা রয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক।

জানা যায়, পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার নিশানবাড়িয়া ১৩২০ মেগাওয়াট বিদ্যুত কেন্দ্রের সাবিন্দ্র দাস (৩২) এক বাঙালি শ্রমিকের মৃত্যু হয়। মঙ্গলবার পৌনে তিন টার দিকে নির্মানাধীন বয়লার থেকে বেল্ট ছিড়ে নিচে পড়ে শ্রমিকের মৃত্যু হওয়ার পর লাশ গুম করার গুজব ছড়িয়ে পরলে বাঙালি শ্রমিকরা বিক্ষুদ্ধ হয়ে ওঠেছে। এ ঘটনার জের ধরে বাঙালি শ্রমিকদের সঙ্গে সেখানে কর্মরত চীনা নাগরিকদের দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়। এ সময় তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ভেতরে ক্যান্টিন, অফিস, প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ও ওয়েল্ডার ভাঙচুর করা হয়। এতে দুই পক্ষের প্রায় ২০ জন শ্রমিক আহত হন। এদের মধ্যে ছয় চীনা নাগরিককে মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১টার দিকে শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে ভোররাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান চীনা নাগরিক চাং ইয়াং ফাং। অন্যরা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এদিকে, শ্রমিকদের সংঘর্ষের ঘটনায় রাতেই পায়রা তাপবিদুৎ কেন্দ্রের অভ্যন্তরে বিপুল পরিমাণ পুলিশ ও র‌্যাব মোতায়েন করে কতৃপক্ষ। রাতে ঘটনাস্থলে ছুটে যান জেলা প্রশাসক মতিউল ইসলাম চৌধুরী ও পুলিশ সুপার মইনুল হাসান।

পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. রেজওয়ান হক খান জানান, শ্রমিকের মৃত্যু নিয়ে ভুল বোঝাবুঝির কারণে দুই গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে করেছে। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

সূত্র।।বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম

gb
মন্তব্য
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More