ভোট গণনার দিন যেভাবে কাটল মোদির স্ত্রীর

49

ভারতে লোকসভা নির্বাচনের চূড়ান্ত ফলে ক্ষমতাসীন এনডিএ জোট বিপুল জয় পেয়েছে।
সর্বশেষ প্রাপ্ত ফল অনুযায়ী, এনডিএ জোট ৩৪৯, ইউপিএ ৯২ এবং অন্য সব দল ১০১টি (এসপি+বিএসপি ২৩, বাকিরা ৭৮) আসন পেতে যাচ্ছে।

বৃহস্পতিবার সকালে ভোট গণনার পর থেকেই বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোটের বিপুল জয়ের খবর আসতে শুরু করে।

এ সময় দেশটির নাগরিকরা যখন টিভির দিকে অপলক তাকিয়েছিলেন, তখন দ্বিতীয়বারের মতো মসনদে বসতে যাওয়া নরেন্দ মোদির স্ত্রী যশোদাবেন মন্দিরে প্রার্থনা করছিলেন।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজারের খবর, স্বামীর নিরঙ্কুশ জয়ের জন্য এদিন উপবাস রেখেছিলেন যশোদা।

শুধু তাই নয়, ভোট গণনাকালীন আম্বাজি মাতার মন্দিরে পূজা দিতে গিয়েছিলেন। দেবতার তুষ্টিতে যা যা করার কথা তাই করছিলেন।

স্বামী নরেন্দ্র মোদি যেন এবার তিনশোর বেশি আসন পায়, সেই প্রার্থনাই করেছিলেন আম্বাজির কাছে।

বৃহস্পতিবার দুপুর আড়াইটার দিকে আনন্দবাজারের সঙ্গে ফোনালাপে এমনটাই জানালেন যশোদাবেন মোদি।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের আগেই ফোনের ওপাস থেকে আবেগমাখা কণ্ঠ ভেসে আসে তার, ‘খুব খুশি। আজ আমি অনেক খুশি। দেবতার কাছে তো আমি এটাই চেয়েছি বারবার।’

তিনি জানান, ‘সারাদিন উপবাস থেকে শুধু আম্বাজির নয় ওই মন্দিরে মহাকালেশ্বরের লিঙ্গও রয়েছে। তার কাছেও প্রার্থনা করছেন।’

এ সময় পেছন থেকে যশোদাবেনের ভাই অশোক জোর গলায় বলেন, ‘গোটা দেশের মতো আমরাও খুশি। ’

তিনি জানান, ‘ভোরবেলা থেকেই তার বোন (নরেন্দ্র মোদির স্ত্রী) উপবাস অবস্থায় আছেন। একফোঁটা পানিও ছুঁতে দেখিনি তাকে। দেশজুড়ে সকাল ৮টা থেকে ভোটগণনা শুরু হলে আমি টিভি ছেড়ে বসি। কিন্তু সে সময় টিভির দিকে তাকাননি যশোদাবেন। গোসল সেরে পবিত্র হয়ে সাড়ে ৮টার দিকে আম্বাজি মাতার মন্দিরের উদ্দেশে বেরিয়ে পড়েন। ’

এ সময় যশোদাবেন বললেন, ‘আমি গুরুর জন্য উপোস আছি। একই সঙ্গে আম্বাজি মাতা এবং মহাকালেশ্বরের জন্যও উপোস আছি। ’

তিনি বলেন, ‘মোদি যাতে ৩০০ এর বেশি আসন নিয়ে ফের সরকারে আসে, সে জন্য ব্রত করেছি। ’

অবশ্য নির্বাচন পর্বেই যশোদাবেনের সঙ্গে কথা হয়েছিল সাংবাদিকদের। সে সময় তিনি গুজরাতের মেহসানা জেলার ব্রাহ্মণওয়াড়া গ্রামে তার বাবার বাড়িতে ছিলেন।

সেদিন সাংবাদিকদের প্রশ্নে তিনি জানিয়েছিলেন, ‘হা, নিয়মিত মন্দিরে যাই। ভগবানকে মনপ্রাণ দিয়ে ডাকি। ওটাই তো আছে জীবনে।’

কী বলেন ভগবানকে? এমন প্রশ্নে তিনি হেসে বলেছিলেন, ‘সবই ওর (নরেন্দ্র মোদি) জন্য।’

গতকাল ভোটগণনার দিনও একই কথা বলেন।

তিনি জানান, ‘ভোর থেকে উপোস আছেন। সব কেন্দ্রের ফল প্রকাশ্যে আসার পর এ উপবাস ভাঙবেন । ’

সব ফল জানতে তো অনেক রাত হয়ে যাবে! সাংবাদিকদের এমন কথায় নরেন্দ্র মোদির স্ত্রী হেসে জানালেন, ‘হ্যাঁ তা তো হবেই। কিন্তু সব ফল না জানা গেলে উপোস ভাঙব কী করে! ’

প্রসঙ্গত, দিল্লির গদি হাতছাড়া হয়নি নরেন্দ্র মোদির। পাঁচ বছর আগে ২০১৪ সালে বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ ৩৩৬ আসনে জিতেছিল। আর এককভাবে বিজেপি জিতেছিল ২৮২টি আসন। সেবার কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউপিএ ৫৯টি আসন জিতেছিল। আর এককভাবে কংগ্রেস পেয়েছিল মাত্র ৪৪টি আসন।

এবার বিজেপির নেতাকর্মী ও সমর্থকদের মূল স্লোগান ছিল ‘ফির একবার, মোদি সরকার’। তাদের এ স্লোগান একেবারে অক্ষরে অক্ষরে মিলেছে। এবার বিজেপি ২৯৪টি আসন পেতে পাচ্ছে। বুথফেরত সমীক্ষায় তার স্পষ্ট ইঙ্গিত ছিল। সেই সমীক্ষা নিয়ে বিতর্ক হয়েছে। প্রশ্নও উঠেছিল অনেক।

জন্ম নিয়েছিল অনেক অবিশ্বাস, সংশয় ও সন্দেহ। কিন্তু গণনা শুরু হওয়ার সামান্য সময়ের মধ্যেই বোঝা গেল পাঁচ বছর আগের ভোটের রায়ের সঙ্গে এবারের রায়ের অমিল বলতে প্রায় কিছুই নেই।

মন্তব্য
Loading...