টাওয়ার হ্যামলেটসে বাংলাদেশী অধ্যুষিত ৩১টি স্কুলে বাজেট কাট: মেয়রের নিন্দা

76

জিবি নিউজ২৪ ||

টাওয়ার হ্যামলেটসের মোট ৩১টি স্কুলের উল্লেখযোগ্য পরিমানের বাজেট কেটে নেয়ার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন টাওয়ার হ্যামলেটসের নির্বাহী মেয়র জন বিগস। মেয়র একে সরকারের প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ হিসাবে আখ্যায়িত করেছেন। তিনি বলেন, সরকারের এই বাজেট কাটের ফলে বারার শিক্ষা কার্যক্রমে বিপর্যয় নিয়ে আসবে।

ন্যাশনাল এডুকেশন ইউনিয়ন অব স্কুল কতৃক প্রকাশিত তালিকা থেকে দেখা গেছে টাওয়ার হ্যামলেটসের ৩১টি স্কুলের মধ্যে সবচাইতে বেশী কাটা হয়েছে মালবারী স্কুলের বাজেট। গেল টার্মের (২০১৭/১৮) তুলনায় আগামী টার্মে (১৮/১৯) এই স্কুলের বাজেট কাটা হয়েছে ২শ ৮২ হাজার ৩শ ১০ পাউন্ড। এর পরই রয়েছে ওসমানী স্কুল। ওসমানী স্কুলের বাজেট কমেছে ২শ ২১ হাজার ৫শ ৭৩ পাউন্ড।

 

বাজেট কাটার দিক থেকে তৃতীয় স্থানে রয়েছে স্টেপনীগ্রীন ম্যাথমেটিকস এন্ড কম্পিউটিং কলেজ। এর বাজেট কমেছে ১শ ৮১ হাজার ৬শ ৩২ পাউন্ড। এভাবে টাওয়ার হ্যামলেটসের মোট ৩১টি স্কুলের বাজেট কাটা হয়েছে। উল্লেখ্য যে, স্কুল কাটস এল্যায়েন্স অব এডুকেশন ইউনিয়ন, স্থানীয় স্কুলগুলোর হেড টিচাররা, নির্বাহী মেয়র জন বিগস, লেবার কাউন্সিলার বৃন্দ, স্থানীয় দুই লেবার এমপি যথাক্রমে রুশনারা আলী ও জিম ফিটজপ্যাট্রিক দীর্ঘদিন থেকেই স্কুলের বাজেট কাটের বিরুদ্ধে ক্যাম্পেইন চালিয়ে আসছেন। ২০১৫ সালের পর সারা দেশের স্কুল বাজেট কাটা হয়েছে প্রায় ২.৮ বিলিয়র পাউন্ড।

সরকারের নতুন স্কুল ফান্ডিং ফর্মূলার কারনে টাওয়ার হ্যামলেটসের মতো দরিদ্র্য বারার স্কুল বাজেট কেটে নিয়ে অন্যত্র দেয়া হচ্চেছ। এক হিসাবে এই ফর্মূলার কারনে আগামী দশকের মধ্যে টাওয়ার হ্যামলেটসের শিক্ষা বাজেট ২৪ মিলিয়ন পাউন্ড পর্যন্ত কমবে। বিবৃতিতে মেয়র তার প্রতিক্রিয়ায় আরো বলেন, একদিকে টোরী সরকার আমাদের পাবলিক সার্ভিসের বাজেট ক্রমাগতভাবে কেটে নিচ্চেছ অন্যদিকে এর বিপরীতে কাউন্সিলকে এসব বাজেট কাটের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যেতে হচ্চেছ।

বিশেষ করে আমাদের শিশুদের এবং স্কুলগুলোর জন্য সাপোর্ট দরকারী হয়ে উঠেছে। আর এজন্য এতকিছুর পরও আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি টাওয়ার হ্যামলেটসে আরো দুটি সেকেন্ডারী স্কুল প্রতিষ্ঠার। আর এজন্য কাউন্সিলের আসন্ন বাজেটে দুটি নতুন স্কুল প্রতিষ্ঠার জন্য আমরা ৯৭ মিলিয়ন পাউন্ড বরাদ্দ দিয়েছি। টাওয়ার হ্যামলেটসে সেকেন্ডারী স্কুল প্লেসের স্বল্পতা মোকাবেলায় আমাদেরকে এই কাজটি করতে হচ্চেছ। উল্লেখ্য যে, ওয়েস্ট ফেরী এবং লন্ডন ডকে এই দুটি স্কুল প্রতিষ্ঠা করা হবে। কেবিনেট মেম্বার ফর চিলন্ড্রেন, স্কুল এন্ড ইয়ং পিপল কাউন্সিলার ড্যানি হ্যাসেল তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, টোরী সরকার বলেছিলো প্রত্যেক স্কুলের জন্য অতিরিক্ত ক্যাশ বরাদ্দ দেয়া হবে।

কিন্তু বাস্তবে আমরা দেখলাম তারা তাদের প্রতিশ্রুতি থেকে সরে এসেছে। আমরা দেখলাম টাওয়ার হ্যামলেটসের ৩১টি স্কুলের বাজেট কমে গেছে এবং নতুন ফার্ন্ডি ফর্মূলার কারনে পরিস্থিতি ক্রমেই কঠিন হয়ে উঠছে। ড্যানি হ্যাসেল আরো বলেন, স্পেশাল নিডস এবং ডিসএ্যাবল চিলন্ড্রেনদের জন্য অতিরিক্ত বরাদ্দ প্রয়োজনের তুলনায় মোটেই যথেষ্ট নয়। এটা এখাতে ঘাটতি মোকাবেলায় খুবই সামান্য। এর বাইরে এজাতীয় শিশুদের সংখ্যা বৃদ্ধির কারনে এবং এই সার্ভিসের জটিলতার জন্য বাড়তি চাপ রয়েছে। আমরা এখাতে ফান্ডিং বাড়ানোর দাবী জানিয়ে আসছি।

যেসকল স্কুলে বাজেট কাট করা হয়েছে তার লিস্ট দেয়া হল

মন্তব্য
Loading...