নিজেদের সম্মান রক্ষার্থেই’ ব্রেক্সিট চুক্তির পক্ষে ভোট দিন

75

যুক্তরাজ্যের বাণিজ্যমন্ত্রী লিয়াম ফক্স বলেছেন, দেশটির প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন থেকে যুক্তরাজ্যের বেরিয়ে যাওয়ার শর্ত হিসেবে যে ব্রেক্সিট চুক্তির খসড়া তৈরি করেছেন তা যদি সংসদে পাস না হয় তাহলে ঝুলে যেতে ইইউ থেকে যুক্তরাজ্যের বেরিয়ে যাওয়ার প্রক্রিয়া। তিনি মনে করেন, ‘নিজেদের সম্মান রক্ষার্থেই’ প্রধানমন্ত্রীর প্রস্তাবে সংসদ সদস্যদের ভোট দেওয়া উচিত। ব্রেক্সিট বাস্তবায়ন যদি বাধাপ্রাপ্ত হয় তাহলে ভোটাররা সংসদের ওপর থেকে আস্থা হারিয়ে ফেলতে পারে। সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে, এ মাসে ব্রেক্সিট প্রস্তাবের ওপর সংসদে ভোটাভুটি হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু মে ভোটের তারিখ পিছিয়ে দিয়েছেন এটা জেনে যে, বড় ব্যবধানে প্রস্তাবটি পরাজিত হবে। আগামী ১৪ জানুয়ারি সংসদে ভোটাভুটি হওয়ার দিন নির্দিষ্ট হয়েছে।

আগামী ২৯ মার্চ যুক্তরাজ্যের ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বেরিয়ে যাওয়ার কথা। আর ইইউ ত্যাগের শর্ত হিসেবে মে তৈরি করেছেন ইইউ ত্যাগের শর্তাবলী, যা ব্রেক্সিট বাস্তবায়ন চুক্তি নামে পরিচিত। চুক্তিটি কার্যকর করতে হলে তা পাস কারাতে হবে সংসদে। কিন্তু চুক্তির শর্ত নিয়ে ব্রিটিশ কনজারভেটিভ পার্টির মধ্যেই রয়েছে প্রবল দ্বিমত, যার জেরে দুই ব্রেক্সিটবিষয়ক মন্ত্রীসহ আরও কয়েক মন্ত্রী পদত্যাগ করেছেন। এমন কি খোদ নিজের দলের সংসদ সদস্যরা মের নেতৃত্বকে চ্যালেঞ্জ করেছিলেন। তাদের অনাস্থাপত্রের জেরে মের বিরুদ্ধে গত ১২ ডিসেম্বর সংসদে অনুষ্ঠিত হয়ে গেছে ভোটাভুটিও। বেশিরভাগ সংসদ সদস্য মের নেতৃত্বের পক্ষে ভোট দিলেও তাদের অবস্থান ব্রেক্সিট চুক্তির শর্তের বিরুদ্ধে।

বাণিজ্যমন্ত্রী লিয়াম ফক্স বলেছেন, সংসদ সদস্যরা যদি থেরেসা মের ব্রেক্সিট বাস্তবায়নের খসড়া চুক্তিতে সমর্থন না দেন তাহলে ব্রেক্সিট কার্যকর হওয়ার সম্ভাবনা কমে যাবে। তার ভাষায়, ‘ফিফটি ফিফটি চান্স।’ সেক্ষেত্রে ব্রেক্সিট বাতিল হয়ে যাওয়ার দিকেই আগাবে পরিস্থিতি। ফক্সের ভাষ্য, ব্রেক্সিট বাস্তবায়ন তখনই শতভাগ নিশ্চিত হবে, যখন সংসদ সদস্যরা নির্ধারিত খসড়া চুক্তিটির পক্ষে ভোট দেবেন। যদি চুক্তিটি পাস না হয়, তাহলে ভোটার ও সংসদের মধ্যে থাকা আস্থার বন্ধন ক্ষতিগ্রস্ত হবে। কারণ ভোটাররা ইইউ থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পক্ষে ভোট দিয়েছিলেন।

ব্রিটিশ বাণিজ্যমন্ত্রী ফক্স তার সহকর্মীদের প্রতি বলেছেন, তাদের উচিত প্রধানমন্ত্রী মের প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দেওয়া। প্রধানমন্ত্রীকে সমর্থন করা দলের এমপিদের ‘মান-সম্মানের প্রশ্ন।’ চুক্তির পক্ষে ভোট দিলে ২৯ মার্চ যুক্তরাজ্যের ইউরোপীয় ইউনিয়ন ত্যাগের বিষয়টি শতভাগ নিশ্চিত হবে। তার ভাষ্য, ‘আমি মনে করি, তা না হলে এমন একটা ধারণা তৈরি হবে যে যারা ইইউ ত্যাগের জন্য ব্রেক্সিট গণভোটে ভোট দিয়েছিল, আমরা তাদের আস্থা ভঙ্গের কাজ করেছি।’

কিন্তু লিবারেল ডেমোক্র্যাট এমপি লায়লা মোরান মন্তব্য করেছেন, ‘ভোটার ও সংসদের মধ্যে থাকা আস্থার বন্ধ নষ্ট করে দিচ্ছে লিয়াম ফক্সের মতো মন্ত্রীদের অবস্থান , যারা আরেকটি গণভোট আয়োজনের ক্ষেত্রে জনগণের ওপর আস্থা রাখতে পারছেন না।’

মন্তব্য
Loading...