উগ্র জাতীয়তাবাদের সমালোচনায় বিশ্ব নেতারা

230
gb

জিবি নিউজ 24 ডেস্ক//

শান্তির জন্য বিশ্বনেতাদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে লড়াইয়ের আহ্বান জানিয়েছেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাঁক্রো। প্রথম বিশ্বযুদ্ধে যুদ্ধবিরতির শতবর্ষ পূর্তি উদযাপনে রোববার প্যারিস পিস ফোরামে এ আহ্বান জানান তিনি। তিন দিনব্যাপী এ সম্মেলনে অংশ নেন বিভিন্ন দেশের ৭০ শীর্ষ নেতা। এসময় রাজনীতি ও কূটনীতিতে জাতীয়তাবাদের প্রভাবের নিন্দা করেন ম্যাক্রো।

প্যারিস পিস ফোরামে অংশ নিতে রবিবার সকাল থেকেই ফ্রান্সের রাজধানীতে বিশ্বনেতাদের সমাগম। সারাদিন টানা বৃষ্টি হলেও নির্ধারিত সময়েই সম্মেলনস্থলে পৌঁছে যান তারা। ভয়াবহ প্রথম বিশ্বযুদ্ধের অবসান হয়েছিল যে যুদ্ধবিরতির মধ্য দিয়ে, তার শতবর্ষ পূর্তিতে রোববার ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে জড়ো হন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন, তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ানসহ বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় নেতারা।

বিশ্বের ৭০টি দেশের নেতাদের উপস্থিতিতে তিনদিনব্যাপী এ সম্মেলনে নেতৃত্ব দেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাঁক্রো। নিজ বক্তব্যে সব দেশের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় বিশ্বকে এগিয়ে নিতে সকলের প্রতি আহ্বান জানান তিনি। এসময় বিশ্বনেতাদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে শান্তির জন্য সংগ্রাম করার আহ্বান জানান ম্যাঁক্রো।

ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাঁক্রো বলেন, ‘পরস্পরকে ভয় দেখানো বাদ দিয়ে আসুন আমরা সম্ভাবনা তৈরি করি। ফরাসি মাটি থেকে প্রথম বিশ্বযুদ্ধের চিহ্ন মুছে যায়নি। বিশ্বের অন্য কোথাও এটা বিস্মৃত হবে না। আসুন আমরা ভুলে না যাই। গিয়ে অতীত স্মরণ করি এবং অতীতের ভুল থেকে শিক্ষা নেই।’

বক্তব্যের সময় ম্যাঁক্রোর পাশেই ছিলেন জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মার্কেল। জাতীয়তাবাদের ধারণার নিন্দা করে বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠায় ভিন্ন ভিন্ন দেশকে পারস্পরিক সহযোগিতা মূলকঅবস্থান গড়ে তোলার আহ্বান জানান তিনি।

জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মার্কেল বলেন, ‘উদ্ধত জাতীয়তাবাদ ও সামরিক আগ্রাসনের পরিস্থিতি কতোটা ভয়াবহ হতে পারে, প্রথম বিশ্বযুদ্ধ তারই নিকৃষ্টতম উদাহরণ। সমঝোতায় যেতে না চাওয়ার মানসিকতাই বিশ্বের ক্রমবর্ধমান রাজনৈতিক ও কূটনৈতিক সংঘাতের মূলম বিশ্বযুদ্ধের স্মৃতি সে শিক্ষাই দেয়।’

আর্ক ডি ট্রায়োম্ফি স্মৃতিস্তম্ভে শ্রদ্ধা জানানোর মধ্য দিয়ে শুরু হয় প্যারিস পিস ফোরাম। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের অর্ধশতাধিক নেতা যুদ্ধে নিহত সেনাদের স্মরণে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। এর আগে, ফরাসি প্রেসিডেন্ট ম্যাঁক্রো ও অ্যাঙ্গেলা মার্কেলের সঙ্গে একই মোটর শোভাযাত্রায় আর্ক পি ট্রায়োস্ফি চত্বরে উপস্থিত হন অধিকাংশ নেতা। বিশ্বনেতাদের এ সমন্বিত পদযাত্রাকে ‘বিশ্ব শান্তির প্রতি পদযাত্রা’ বলে অ্যাখ্যা দিয়েছেন বিশ্লেষকরা। এসময় প্রথম বিশ্বযুদ্ধ বিষয়ক নতুন একটি বই পিস ফোরাম লাইব্রেরিতে বই উপহার দেন ম্যাঁক্রো ও মার্কেল।

১৯১৪ সালের ২৮শে জুলাই ইউরোপে প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শুরু হয়। প্রথম বিশ্বযুদ্ধে একপক্ষে ছিল ওসমানীয় সাম্রাজ্য, অস্ট্রিয়া-হাঙ্গেরি, জার্মানি ও বুলগেরিয়া। এদের বলা হতো কেন্দ্রীয় শক্তি। অন্যদিকে সার্বিয়া, রাশিয়া, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, জাপান, ইতালি, রোমানিয়া ও যুক্তরাষ্ট্র ছিল অপরপক্ষ। এরা মিত্রশক্তি হিসেবে পরিচিত ছিল। যুদ্ধবিরতির মধ্য দিয়ে ১৯১৮ সালের ১১ই নভেম্বর এর সমাপ্তি ঘটে।