‘অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ’ উন্নয়ন কনসার্ট জেমস উন্মদনায় ভাসলো চুয়াডাঙ্গা

201
gb

 শামসুজ্জোহা পলাশ, চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি : ১৭.১০.১৮ :

‘অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ’ সেøাগানে চুয়াডাঙ্গায় হয়েগেল উন্নয়ন কনসার্ট। এ কনসার্টকে ঘিরে গত কয়েক দিন থেকে জেলাবাসীর মধ্যে ছিল একটা আলাদা উন্মাদন। তারই বহি:প্রকাশ ঘটলো মঙ্গলবার (১৬ অক্টোবর) বিকেল ৪ থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত চুয়াডাঙ্গা নতুন ষ্টেডিয়ামে (জাফরপুর) অনুষ্ঠিত উন্নয়ন কনসার্ট’র আসরে। উন্নয়ন কনসার্টের মূল আকর্ষণ গুরু জেমস এর গান শুনতে ও তাকে দেখতে

 

চুয়াডাঙ্গা নতুন ষ্টেডিয়ামে অর্ধলক্ষাধিক দর্শক শ্রোতা সমবেত হয়। উন্নয়ন কনসার্টে দেশসেরা শিল্পী গুরু জেমস, বাপ্পা মজুমদারের ব্যান্ডদল দলছুট, আখি আলমগীর ও এমআই রাজু সঙ্গীত পরিবেশন করেন। অনুষ্ঠান উপস্থাপনায় ছিলেন রাফসান সাবাব খান ও অভিনেত্রী তানিয়া হোসেন। উন্নয়ন কনসার্টে ছিলো আকর্ষণীয় লেজার শো ও আতশবাজী। কনসার্টটি সর্বসাধারণের জন্য উম্মুক্ত ছিল। উন্নয়ন কনসার্টে স্থানীয় শিল্পীরা ৪৫ মিনিট গান পরিবেশন করেন। ‘অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ’ ¯ে¬াগানে জাতীয় নির্বাচনের আগে সরকারের উন্নয়নমূলক কার্যক্রম নিয়ে বিভাগীয় শহরগুলোর পর জেলা শহরে শুরু হওয়া উন্নয়ন

 

 

কনসার্ট এর ১৬তম আসর ১৬ অক্টোবর মঙ্গলবার (১৬ অক্টোবর) চুয়াডাঙ্গায় অনুষ্ঠিত হল। সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসনের আয়োজনে অনুষ্ঠিত এই উন্নয়ন কনসার্ট অনুষ্ঠিত হয়। উন্নয়ন কনসার্টে অনুষ্ঠিত সঙ্গীতের মাঝপথে উপস্থাপক রাফসান সাবাব খান ও উপস্থাপিকা তানিয়া হোসেন মঞ্চে ডেকেনেন চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের এমপি ও জাতীয় সংসদের হুইপ সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন, সাংস্কৃতিক মন্ত্রনালয়ের অতিরিক্ত সচিব চুয়াডাঙ্গার কৃতি সন্তান আলতাফ হোসেন, চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক গোপাল চন্দ্র দাস ও চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সুপার মাহবুবুর রহমান পিপিএমকে। চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের এমপি ও জাতীয় সংসদের হুইপ সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন বলেন, উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের বার্তা পৌঁছিয়ে দিতেই এই উন্নয়ন কনসার্টের আয়োজন। তিনি বর্তমান সরকারের সময় চুয়াডাঙ্গার উন্নয়নের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে বলেন, চুয়াডাঙ্গায় ৫০০ কিলোমিটার পাকা রাস্তা করা হয়েছে, যুবপ্রশিক্ষণ কেন্দ্র, যুবকমপ্লেক্স, এই ষ্টেডিয়াম (উন্নয়ন কনসার্ট স্থল), সন্ত্রাস নিমূল, স্কুল কলেজ দৃষ্টি নন্দন বিল্ডিংসহ সমাজের এমন কোন জায়গা নেই সেখানে উন্নয়নের ছোয়া লাগেনি। এটা সম্ভব হয়েছে শুধু আজকের প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনার কারণে। এই উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে আবারও নৌকা মাকায় ভোট চান হুইপ ছেলুন। এছাড়া সাংস্কৃতিক মন্ত্রনালয়ের অতিরিক্ত সচিব আলতাফ হোসেন, চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক গোপাল চন্দ্র দাস ও চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সুপার মাহবুবুর রহমান পিপিএম চুয়াডাঙ্গাসহ দেশের সার্বিক উন্নয়নের সংক্ষিপ্ত চিত্র তুলে ধরেন। কনসার্টে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের ফাঁকে ফাঁকে সরকারের বিভিন্ন জনকল্যাণমূলক ও উন্নয়ন কর্মকাÐের প্রামাণ্য ভিডিওচিত্র দেখানো হয়। এছাড়াও দেখানো হয় প্রধানমন্ত্রীর ১০টি ‘বিশেষ’ উদ্যোগের ভিডিও তথ্যচিত্র। মঙ্গলবার দুপুর ২ টায় স্টেডিয়ামের গেট খোলা হলেও বেলা ১২ টার দিক থেকে ষ্টেডিয়াম এলাকায় ভিড় জমাতে থাকে জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা দর্শক শ্রোতা। দুপুর ২ টায় গেট খোলার সাথে সাথে বানের পানির মত দর্শক শ্রোতারা ঢুকতে থাকে ষ্টেডিয়ামের ভিতর উন্নয়ন কনসার্ট স্থলে। উন্নয়ন কনসার্ট দেখতে আসা প্রায় অর্ধলক্ষাধিক এই গনগণকে সামাল দিতে হিমশীম খেতে হয় নীরাপত্তার দায়ীত্বে থাকা আইন শৃংখলা বাহীনির সদস্যদের। উন্নয়ন কনসার্ট এর অনুষ্ঠানকে ঘিরে দূর্বৃত্তরা যে কোন নাশকতা মূলক কর্মকান্ড ঘটাতে না পারে তার জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে গড়ে তোলা হয় নিছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থার। এই উন্নয়ন কনসার্টকে ঘিরে ষ্টেডিয়াম এলাকা ছাড়াও চুয়াডাঙ্গা জেলা শহরকেউ ঢেকে ফেলা হয় নিরাপত্তার চাদরে। উন্নয়ন কনসার্টে আরও উপস্থিত ছিলেন, চুয়াডাঙ্গা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, সামসুল আবেদীন খোকন, পৌর মেয়র ওবায়দুর রহমান চৌধুরী জিপু, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. কলিমুল্লাহ, যুব উন্নয়ন অধিদফতরের উপ-পরিচালক মাসুম আহমেদ, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সিব্বির আহমেদ, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খুস্তার জামিল, সাবেক পৌর মেয়র জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ স¤পাদক রিয়াজুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার টোটন, জেলা যুবলীগের আহŸায়ক নঈম হাসান জোয়ার্দ্দারসহ জেলা, উপজেলা ও থানার পদস্থ কর্মকর্তা কর্মচারী, সাংবাদিক, বিভিন্ন পেশাজীবি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও সমাজের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, সবুজ বাংলা উন্নয়ন কনসার্টের সিনিয়র ম্যানেজার শিবলী আহমেদ উপস্থিত ছিলেন। কনসার্টটি জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত থাকায় খুব কাছ থেকে সর্বস্থরের মানুষ খুব কাছ থেকে তাদের প্রিয় শিল্পীদের গান উপভোগ করতে পারেন এবং উন্মাদনায় মেতে উঠেন। উল্লেখ্য, কনসার্টকে ঘিরে গত কয়েক দিন ধরে নানা সাজে সজ্জিত করা হয় চুয়াডাঙ্গার নতুন স্টেডিয়াম ও আশপাশ এলাকা। কনসার্টের তারিখ ও সময় ঘোষণা করে শহরসহ জেলার সর্বত্র করা হয়েছিল মাইকিং। সব মিলিয়ে সরকারের উন্নয়ন উদযাপনের এই কনসার্টকে ঘিরে চুয়াডাঙ্গার চারিদিকে বয়ে যাচ্ছিল উসবের আমেজ আর সাজ সাজ রব। এছাড়াও কনসার্টকে সফল করতে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে চুয়াডাঙ্গার সকল শ্রেণি-পেশার নেতৃবৃন্দ, সুশীল সমাজ, রাজনৈতিক, শিল্পী-সাহিত্যিক, সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভার সিদ্ধান্তক্রমে শহরসহ সবর্ত্র টাঙানো হয়েছিল ব্যানার-ফেস্টুন। দর্শকদের বসার জন্য স্টেডিয়ামের গ্যালারী ধুয়ে মুছে পরিষ্কার করা হয়। উন্নয়ন কনসার্টের মিডিয়া পার্টানার দেশ টিভি অনুষ্ঠানটি সরাসরি স¤প্রচার করে। দেশ টিভি অনুষ্ঠান টি সরাসরি স¤প্রচার করায় জেলার প্রায় ৭ লাখ মানুষসহ দেশ বিদেশের মানুষ খুব সহজেই এই উন্নয়ন কনসার্টের মনোমুগ্ধকরা সঙ্গীতাঅনুষ্ঠান উপভোগ করেন। এছাড়া গত ২০-২১ জুলাই দেশের ৬৪টি জেলায় দুই দিনব্যাপী ‘সৃজনে উন্নয়নে বাংলাদেশ’ শীর্ষক সাংস্কৃতিক উৎসব হয় সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে। # #