ফকিরহাটের দুইটি দুর্গা মন্দিরে ইলেকট্রনিক পদ্ধতিতে সম্পুর্ণ ভিন্ন আঙ্গিকে শারদীয় দুর্গোৎসব শুরু

220
gb

 পি কে অলোক,ফকিরহাট।/

বাগেরহাটের ফকিরহাট উপজেলার জাড়িয়া মাইট কুমরা ও আট্টাকী শ্রী শ্রী শীতলা সার্বজনীন দুর্গা মন্দিরে ইলেকট্রনিক পদ্ধতিতে সম্পুর্ণ ভিন্ন আঙ্গিকে শারদীয় দুর্গোৎসব শুরু হয়েছে। জাকজমক পূর্ণ এই পূজা অর্চনা অনুষ্ঠানে প্রতিমাদের অভিনয় করা সত্য ত্রেতা দ্বাপর আর কলি যুগের নানান অবতারের কাহিনী দেখতে ভক্তরা মহাষষ্ঠী পুজার শুরুতেই ভীড় করছেন। জানা গেছে,এবার উপজেলার মধ্যে লখপুর ইউনিয়নের জাড়িয়া মাইট কুমরা ও ফকিরহাট সদর ইউনিয়নের আট্টাকী শ্রী শ্রী শীতলা সার্বজনীন দুর্গা মন্দিরে ৩য় বারের মত এবারও ইলেকট্রনিক পদ্ধতিতে সম্পুর্ণ ভিন্ন আঙ্গিকে শারদীয় দুর্গোৎসব শুরু হয়েছে। পুজা মন্দির কমিটি সম্পূর্ণ ভিন্ন আঙ্গিকে বহুরুপে দেব দেবীদের আভিরভাবের কাহিনী নিয়ে প্রতিমা গুলি তৈরী করতে সক্ষম হয়েছেন। মন্দিরের সকল সাজসজ্জার কাজ এখন শেষ, চলছে পূজা অর্চনার কাজ। এবার জাড়িয়া মাইট কুমরা মন্দিরটিকে অন্যান্য বছরের তুলনায় ভিন্ন আঙ্গিকে সুসজ্জিত করে সাজানো হয়েছে। যা দেখলে ভক্তদের মনকে আরো বেগবান করবে। মন্দির কমিটির সভাপতি মৃনাল কান্তি দেবনাথ ও সাধারন সম্পাদক শেখর রঞ্জন দেবনাথ বলেন, অন্যান্য বছর যে ধরনের প্রতিমা তৈরী করা হলেছিল এবার তা অন্য রকমের ভাবে তৈরী করা হয়েছে। যা ভক্তকুলের মন-কে আকৃষ্ঠ আরো করবে। তারা বলেন এবার শো-এর মাধ্যমে প্রতিমা গুলি তাদের অভিনয়ের মাধ্যমে স্বঃস্বঃ কৃতকর্ম গুলি তুলে ধরতে সক্ষম হবে। যেমন মহিষসুর বধ, দাতা কর্ণ,পাবর্তীর শীব ভক্তি ও দেবী দুর্গা মায়ের মত্তে আগমন সহ বিভিন্ন কাহিনী শো-এর মাধ্যমে উপাস্থাপন করা হয়েছে। এদিকে খোজ নিয়ে জানা গেছে,পূজা অর্চনা অনুষ্ঠানে যাহাতে কোন প্রকার বিশৃংখলা না ঘটতে পারে এজন্য পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ হতে বাড়তি নিরাপত্তাও জোরদার করা হয়েছে। র‌্যাব পুলিশের পাশা পাশি ৩৪২জন আনসার ব্যাটেলিয়ান সর্বক্ষনিক ৬৮টি মন্দিরে দায়িত্ব পালন করবেন। এর মধ্যে মহিলা আনসার সদস্য ১৩৬জন, পুরুষ সদস্য ১৩৮জন এবং পিসি ৩৫জন, ও এপিসি ৩৩জন দায়িত্বে নিয়োজিত থাকবেন। ####