সাংস্কৃতিকধারা নারায়ণগঞ্জের লেখা পাঠোৎসবে বক্তারা প্রকৃত লেখক কখনো ষড়যন্ত্র করতে পারে না জাতীয় সাংস্কৃতিকধারা

166
gb

 নারায়ণগঞ্জের লেখা পাঠোৎসবে বক্তারা বলেছেন, প্রকৃত লেখক কখনো ষড়যন্ত্র করতে পারে না। ভুল বুঝে কাপুরুষের মত তলে তলে বিরোধিতা বা শত্রæতাও করতে পারে না, মানুষের ক্ষতি করতে পারে না। লেখক মানেই আলোর পথের পথিক। আর তাই আমরা মনে করি, সাহিত্য-সাংস্কৃতিক বিপ্লবই মুক্তির পথ। আমাদের রাজনীতি, শিক্ষা-সাহিত্য-ধর্ম ও সাংস্কৃতিক আবহতে তৈরি করতে হবে বাংলাদেশের জন্য ভালোবাসা। যে ব্যক্তি তার দেশকে-ধর্মকে ভালোবাসে, সেই ব্যক্তি কখনোই দুর্নীতি অন্যায় করতে পারে না। আজ যখন ৭ লক্ষ কোটি টাকা পাচারের কথা উঠে এসেছে, কারা করেছে? কোন লেখক করেন নি; করেছে তথাকথিত রাজনীতিকরা। এদের বিরুদ্ধে দুর্নীতির বিরুদ্ধে একমাত্র সুসাহিত্য ও সাংস্কৃতিক বিপ্লবই মুক্তির পথ। আর তাই বেশি বেশি সাহিত্য-সাংস্কৃতিক চর্চা প্রয়োজন। নারায়ণগঞ্জ জেলা জাতীয় সাংস্কৃতিকধারার সভাপতি কবি ও ছড়াকার আলতাফ হোসেন রায়হানের ‘সবার জন্য ছড়া’ গ্রন্থের প্রকাশনা ও লেখা পাঠোৎসবে বক্তারা উপরোক্ত কথা বলেন। প্রধান অতিথি ছিলেন দৈনিক ইয়াদ সম্পাদক কলামিস্ট তোফাজ্জল হোসেন। জাতীয় সাংস্কৃতিকধারা নারায়ণগঞ্জ শাখার উপদেষ্টা ডা. জি এম জব্বার চিশতীর উদ্বোধনী বক্তব্যর মধ্য দিয়ে শুরু হওয়া আয়োজনে সভাপতিত্ব করেন জাতীয় সাংস্কৃতিকধারার সভাপতি কবি-ছড়াকার ও গবেষক চঞ্চল মেহমুদ কাশেম। প্রধান বক্তা ছিলেন জাতীয় সাংস্কৃতিকধারার প্রতিষ্ঠাতা কলামিস্ট মোিিমন মেহেদী। বিশেষ অতিথি ছিলেন জাতীয় সাংস্কৃতিকধারার পৃষ্টপোষক কথাশিল্পী শান্তা ফারজানা, নারায়ণগঞ্জ জেলা সেভ দ্য রোডের সভাপতি সাংবাদিক জাহাঙ্গীর হোসাইন, সংগঠক লুৎফুর রহমান সরদার মিয়াভাই, অনলাইন প্রেস ইউনিটির ভাইস চেয়ারম্যান কবি আনোয়ার হোসেন সাঈদী, কবি আতিক আজিজ ও মো. রফিকুল ইসলাম। অতিথি কবি ছিলেন ফরিদা ইয়াসমিন সুমনা, আনোয়ার হোসাইন ভূঁইয়া, কাজী আনিসুল হক হিরা, মাসুদ রানা লাল, ফরিদ আহমেদ হৃদয়, মোস্তফা কামাল সোহাগ, এম এ মামুন বাবুল, ইশরাত রুবাইয়া, কবি অজিত দাস, অনলাইন প্রেস ইউনিটির সহ-সম্পাদক হরিদাস সরকার, জান্নাতুল ফেরদৌসী পিয়া, সুমী দাস, ঈসিতা দাস, মোমিনুল ইসলাম, মো. হুমায়ুন কবির, সাংবাদিক নাসরিন সুলতানা, জাহিদা বেগম, রাব্বী হাওলাদার প্রমুখ। নারায়ণগঞ্জের মাসদাইর প্রাথমিক বিদ্যালয় মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত আয়োজনে উপস্থিত ছিলেন ছড়াকার চান মিয়া চান্দু, অনলাইন প্রেস ইউনিটি কুঁড়িগ্রাম শাখার আহববায়ক শাহরিয়ার আলম, সমাজসেবক মো. শফিকুল ইসলাম, অভিনেতা শাহেদ হাসান শান সহ সাহিত্য-সাংস্কৃতিক অঙ্গণে নিবেদিত অর্ধশত ব্যক্তিবর্গ। প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইয়াদ সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন বলেন, নতুন প্রজন্মকে মনে রাখতে হবে-স্বাধীনতা আর ধর্ম ব্যবসা অন্যায়। এই অন্যায় বন্ধ না করতে পারলে দেশে শান্তি আসবে না। আর তাই সাহিত্য-সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডের মাধ্যমে এই সত্য কথা ছড়িয়ে দেয়ার কোন বিকল্প নাই। সেই লক্ষ্য থেকেই সাংস্কৃতিকধারার পথচলা-কথাবলা। আমি বরাবরই অন্যায়ের বিপক্ষে ছিলাম, আছি থাকবো। সাংস্কৃতিকধারার লক্ষ্য আর আমার লক্ষ্য একটাই অন্যায়-সন্ত্রাস-দুর্নীতি থামাতে চাই। তা লেখালেখি অথবা রাজপথ যেভাই হোক না কেন।