কানাডায় অভিবাসন: ভুল বা মিথ্যা তথ্য দিলে আশা পুরণ হবে না

336
gb

জিবিনিউজ ডেস্ক:: অনেক সময় ছোট একটা ভুল সারা জীবনের কান্না হয়ে থেকে যায়৷ মানুষ ভুল না বুঝেই করে অনেক ক্ষেত্রে৷ কিছু ভুল পরে শুদ্ধ করে জীবনকে সুন্দর করে সাজানো যায়৷কিন্তু এমন কিছু ভুল আছে যা আর শুদ্ধ করা যায় না৷সেটার শুধু অাফসোস থেকে যায় সারাজীবন৷

তিন বছর আগে, আমি আমার বান্ধবী’র জন্য কানাডায় উকিল ধরে ওদের পুরো পরিবারের জন্য পেপার জমা দিয়েছিলাম৷ অনেক মোটা অংকের টাকা ওদের দিতে হয়েছে এজন্য৷ অনেক ধাপ আর প্রক্রিয়া পার করে সাত মাস আগে ওদের মেডিকেলের বা স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য কানাডা ইমিগ্রেশন থেকে চিঠি পায়৷সে চিঠি পাওয়ার পর, আমি স্বস্তির একটা নি:শ্বাস ছেড়ে কিছুটা নিশ্চিন্ত হয়েছিলাম যে, আল্লাহ অবশেষে ওদের মেডিকেল হলো৷এবার চিন্তা কিছুটা কমবে৷

মেডিকেল করে পাঠানোর পর আবার শুরু হলো অপেক্ষার পালা, কবে পাসপোর্ট এর জন্য লেটার আসবে সে অপেক্ষা৷কারণ, মেডিকেলের জন্য ডাকা মানেই হলো ৯০% কাজ হয়ে গেছে৷এখন শুধু ভিসা দেওয়ার পালা৷ বাংলাদেশ থেকে ওদের অপেক্ষা, এদিকে আমার অপেক্ষা কবে লেটার আসবে  ইমিগ্রেশন থেকে সেই জন্য৷অবশেষে আরো ৬ মাস পর, গত মাসে ইমিগ্রেশন থেকে একটা চিঠি এলো।চিঠির খাম দেখে সবার চোখে-মুখে হাসি ছড়িয়ে পড়লো।

কিন্তু চিঠিটা খুলে দেখার পর সবার মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পড়লো। হায় আল্লাহ, এ কি লেটার !

চিঠিতে লেখা ছিলো- ‘Rejected File’

এর পেছনে যেসব কারণ দেখিয়েছিল তা হলো-
প্রথম কারণ:

 ‘তোমরা এর আগে একবার আবেদন করছিলে। কিন্তু দ্বিতীয়বার যখন আবেদন করেছো, তখন আবেদন ফরমে সেই তথ্যের জায়গায় কেন ‘No’ লেখা? কেন তোমরা মিথ্যা বলেছো?

দ্বিতীয় কারণ:

‘আগের ফরম তোমার স্বামীর নামে। ওখানে তুমি তোমার পেশা হাউজওয়াইফ দিয়েছিলে। কিন্তু দ্বিতীয়বারের আবেদন ফরমে তোমার পেশা হিসেবে চাকরি লিখেছো। কিন্তু আগে যে তারিখে তুমি হাউজওয়াইফ ছিলে, ঠিক ঐ তারিখের আগে থেকেই তুমি জব করো- এমন তথ্য দিয়েছে দ্বিতীয়বারের আবেদন ফরমে। এটা কিভাবে সম্ভব? দুই জায়গার তারিখ এক।কিন্তু দুইরকম তথ্য কেন?

যদি ৯০ দিনের ভেতর যথাযোগ্য উত্তর না পাঠাও, তবে তোমাদের পাসপোর্টের উপর ৫ বছরের নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হবে।

চিঠিটা ঠিক একটা কালবৈশাখি ঝড় ছিলো, যা তছনছ করে দিয়ে গেলো সব৷ কিছু বলার মতো ভাষা খুঁজে পাচ্ছিলাম না৷যেখানে মেডিকেল হয়েছে, সেখানে রিজেক্ট ফাইল কিভাবে সম্ভব! এত ছোট একটা ভুলের জন্য সব শেষ !

ফরম পূরণ করার সময় সর্তকতার সাথে অনেক কিছু দেখার মাঝখানে আগের apply করার তথ্যে ‘Yes’ এর জায়গায় ‘No’ দিয়েই সব ওলট-পালট হয়ে গেলো।

চাকরির তারিখ বসানোর সময়টাতেও কেউ বুঝেনি যে, দুই তারিখ এভাবে মিলে যাবে। এত কিছু কারো মাথায় আসেনি। ছোট একটি ভুল কিভাবে একটি স্বপ্নকে ভেঙ্গে চুরমার করে দিয়ে গেলো৷এখন কয়েকজন উকিল ধরেও কোন আশার সংবাদ পাচ্ছি না৷ সবার একটাই কথা- ‘এই চিঠির জবাব কিভাবে দেবো?’ এই অভিবাসনের হয়তো আর কোন সম্ভাবনাই নেই।

দুঃখে কষ্টে ভারাক্রান্ত মন। এতগুলো টাকা দিয়েছে উকিলকে ! তারপর এতগুলো বছর অপেক্ষা, সব বুঝি শেষ হয়ে গেলো ! উকিলের কথা ছিলো-

বান্ধবীকে কিভাবে শান্ত্বনা দেবো ? আমি নিজেই তো শান্ত্বনা খুঁজে পাচ্ছি না৷কি পরিমান মন খারাপ তা হয়তো লিখে প্রকাশ করা সম্ভব নয়৷ এত দিনের স্বপ্ন, আশা সব শেষ৷ কিছু ভুল শুধু সারা জীবনের আফসোস হিসেবেই থেকে যায়। আমার এই লেখাটা তাদের জন্য, যারা নতুন কোন দেশের বাইরে যাবার জন্য ভিসার বা ইমিগ্রেশনের আবেদন ফরম পূরণ করবেন বা করছেন তাদের জন্য৷

ফরম পূরণ করার পর ভালো করে পড়ুন৷একবার নয়, একশতবার পড়ুন৷নিজে চেক করুন, অন্যকে দিয়ে করান৷ তারপর জমা দিন৷ কখনো কারো কোন স্বপ্ন এভাবে যেন মলিন না হয়, এই প্রার্থনা আর শুভ কামনা সবার জন্য৷

সূত্র: প্রবাস কথা

gb
মন্তব্য
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More